কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জনকণ্ঠ সম্পাদকের মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জের বিশিষ্টজনদের শোক


 স্টাফ রিপোর্টার | ২৩ মার্চ ২০২১, মঙ্গলবার, ৬:১৬ | রকমারি 


জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের অনুসারী দৈনিক জনকন্ঠের সম্পাদক, প্রকাশক ও জনকণ্ঠ গ্লোব শিল্প পরিবারের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিকউল্লাহ খান মাসুদ-এর মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জের বিশিষ্টজন ও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে নেতৃবৃন্দ গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।

শোক বার্তায় বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ বলেছেন, জাতি বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্বপক্ষ শক্তির বাতিঘরকে হারাল। তাঁর মৃত্যুতে দেশ সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার একজন মহান মুক্তিযোদ্ধাকে হারাল। তিনি এ প্রজন্মের সংগঠক ও উদ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণা হিসেবে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আদর্শকে সমুন্নত রেখে ক্ষমতার পালা বদলের চরম প্রতিকূল অবস্থাতেও অবিবচল থেকেছেন এবং তাঁর সম্পাদনায় জনকণ্ঠ পত্রিকা একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে।

আতিকউল্লাহ খান মাসুদ-এর মৃত্যুতে মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) দুপুরে জনকণ্ঠের কিশোরগঞ্জের নিজস্ব সংবাদদাতা মাজহার মান্না-র কাছে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্পেশাল পিপি এম. এ আফজল, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও পাবলিক প্রসিকিউটর শাহ আজিজুল হক, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার আসাদ উল্লাহ, অবসর সুবিধা বোর্ডের সদস্য সচিব অধ্যক্ষ শরীফ আহমেদ সাদী, জেলা গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, কিশোরগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মাহমুদ পারভেজ, জেলা সিপিবির সভাপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, জেলা বাসদের সমন্বয়ক এ্যাডভোকেট শফীকুল ইসলাম, জেলা সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলনের সভাপতি এ্যাডভোকেট অশোক সরকার, জেলা ক্যাব সভাপতি আলম সারোয়ার টিটু, জেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মোস্তফা কামাল, জেলা গণতান্ত্রিক আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাডভোকেট গাজী এনায়েতুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট এনামুল হক, জেলা যুদ্ধাপরাধ প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি রেজাউল হাবীব রেজা, জেলা উদীচীর সভাপতি ফিরোজ উদ্দিন ভূঞা প্রমুখ।

এক শোক বার্তায় স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা, বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠনের নেতারা বলেন, আতিকউল্লাহ খান মাসুদ দীর্ঘ সময় সাহসিকতার সঙ্গে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় দৈনিক জনকণ্ঠ সম্পাদনার দায়িত্ব পালন করে সংবাদপত্র প্রকাশনার জগতে যোগ করেছেন নতুন মাত্রা। কেননা পত্রিকাটির অবস্থান এবং শুধুই সাংবাদিকতা পত্রিকাটিকে গৌরবোজ্জল ভূমিকায় নিয়েছিল।

সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে সোচ্চার এই মহান বীর মুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন ও ধারণ করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিশ্বাসী মানুষকে বরাবরই উদ্বুদ্ধ করেছেন। তাঁর মৃত্যুর শূন্যতা কোনছিুতেই পূরণ হবার নয়। তিনি এ প্রজন্মের সংগঠক ও উদ্যোক্তাদের অনুপ্রেরণা হিসেবে চিরকাল বেঁচে থাকবেন।

প্রসঙ্গত: আতিকউল্লাহ খান মাসুদ একজন সফল শিল্পপতি হিসেবে ১৯৯৩ সালে তাঁর জীবনের সবচেয়ে সফল সংযোজন দৈনিক জনকণ্ঠ প্রকাশ করেন। এটি সর্বপ্রথম অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয়ে দেশের চারটি স্থান থেকে একসঙ্গে প্রকাশ করে দেশের সংবাদপত্র শিল্পে আলোড়ন সৃষ্টি করে। ১৯৮৪-৮৬ সালে তিনি ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাবের সহ-সভাপতি ও ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন।

অনেক কিছুর শুরু তিনিই করেছিলেন, যা এখন অনেকে অনুসরণ করছেন। তাঁরই পথ অনুসরণের প্রতিযোগিতায় দেশের সংবাদপত্র শিল্প আজ এই পর্যায়ে উন্নীত। শুধু তা-ই নয়, সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা সুগম না থাকায় রাজধানীর পত্রিকা যখন প্রত্যন্ত জেলাগুলোতে পৌঁছুতে বিকেল হয়ে যেত, তখন দৈনিক জনকণ্ঠ প্রকাশিত হয়েছে একযোগে দেশের পাঁচ জেলা শহর থেকে প্রতিদিনের পত্রিকা ভোরেই পাঠকের হাতে তুলে দিয়েছিলেন তিনি।

উল্লেখ্য, দৈনিক জনকন্ঠের সম্পাদক ও প্রকাশক আতিক উল্লাহ খান মাসুদ (৭১) সোমবার (২২ মার্চ) ভোর ৫টার দিকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। তিনি স্ত্রী ও দুই ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

মরহুম আতিক উল্লাহ খান মাসুদ ১৯৫১ সালের ২৯ আগস্ট মুন্সীগঞ্জ জেলার মেদিনী মন্ডল গ্রামের সম্ভ্রান্ত খান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। মুক্তিযুদ্ধে তরুণ আতিক উল্লাহ খান মাসুদ ২ নম্বর সেক্টরে যুদ্ধ করেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর