কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দিনভর উত্তপ্ত কিশোরগঞ্জ, আটক ৭


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২৮ মার্চ ২০২১, রবিবার, ৯:৫৭ | বিশেষ সংবাদ 


হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতালকে ঘিরে ধাওয়া-পাল্টা এবং সংঘর্ষে রোববার (২৮ মার্চ) দিনভর উত্তপ্ত ছিল কিশোরগঞ্জ। দুপুরে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করা হয়েছে জেলা আওয়ামী লীগ অফিস। অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় চার নেতার ছবিতে।

অন্যদিকে সন্ধ্যায় অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে শহরের স্টেশন রোডে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে এবং শহরের রথখলা তমালতলায় জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ের আসবাবপত্রে।

বেলা সোয়া ১২টার দিকে কয়েকশ’ হেফাজত নেতাকর্মী লাঠিসোটা নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা চালায়।

হামলায় জেলা আওয়ামী লীগ অফিসের ভেতরে থাকা বঙ্গবন্ধু ও শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলামসহ জাতীয় চার নেতার ছবি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি, চেয়ার-টেবিল, আসবাবপত্র এবং সাইনবোর্ড ভাঙচুর করা হয়।

এ সময় বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় চার নেতার ছবিতে আগুন ধরিয়ে দেয় হামলাকারীরা। প্রায় ১৫ মিনিট ধরে হেফাজত নেতাকর্মীরা কার্যালয়টিতে হামলা ও ভাঙচুর চালায়।

এর জের ধরে শহরজুড়ে হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশ এবং আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাকর্মীদের দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া এবং সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।

ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ প্রায় ৫শ’ রাউন্ড গুলি ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করেছে বলে সদর থানার ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম জানিয়েছেন।

এছাড়া সংঘর্ষে ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিকসহ পুলিশের ১২ সদস্য, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বকুল ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ উমান খানসহ অন্তত ২৪ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

অন্যদিকে হরতাল সমর্থকদের আহত হওয়ার সংখ্যা জানা যায়নি। তবে হরতাল সমর্থক ৭ জনকে আটক করা হয়েছে বলে ওসি মো. আবুবকর সিদ্দিক পিপিএম জানিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. মো. হেলাল উদ্দিন জানান, বিকাল ৫টা পর্যন্ত সংঘর্ষে আহত হয়ে ২৫ জন হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। তাদের মধ্যে চারজনের অবস্থা গুরুতর। তবে তারা আশঙ্কামুক্ত।

এদিকে সংঘর্ষের খবর পেয়ে দুপুরেই জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম ও পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) শহরের গৌরাঙ্গবাজার এলাকায় ছুটে যান। তারা দিনভর সেখানে অবস্থান করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাজ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর