কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ধূসরিমা পাখি হয়েই আকাশে উড়াল দিলেন আশুতোষ ভৌমিক


 আশরাফুল ইসলাম | ৩ এপ্রিল ২০২১, শনিবার, ৬:৫১ | বিশেষ সংবাদ 


ধূসরিমা পাখি হয়েই আকাশে উড়াল দিলেন নিভৃতচারী শব্দসৈনিক, ৭০ দশকের অন্যতম কবি আশুতোষ ভৌমিক। শনিবার (৩ এপ্রিল) বিকাল পৌনে ৬টার দিকে কিশোরগঞ্জ শহরের বত্রিশ এলাকায় মেয়ের বাসায় তিনি পরলোকগমণ করেছেন।

এই এপ্রিল মাসেই তিনি জন্মেছিলেন আবার এই এপ্রিলেই তিনি চলে গেলেন কিশোরগঞ্জের সাহিত্যঙ্গনকে শূণ্য করে দিয়ে। বেঁচে থাকলে আগামী ২৭ এপ্রিল ৭৫ বছরে পা রাখতেন তিনি।

কবি আশুতোষ ভৌমিক দীর্ঘদিন যাবৎ শারীরিক বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছিলেন। তাঁকে হাসপাতালেও ভর্তি করা হয়েছিল।

কিন্তু কিছুতেই আর নিজের ভুবনে ফিরতে পারেননি তিনি। যেন তিনি স্থির ছিলেন তাঁর লিখা পঙক্তিমালায় ‘শোক নয়- পুনর্জন্ম/ মৃত্যু তা ভালো করেই জানে’।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে, এক মেয়ে, আত্মীয়স্বজন ও অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

কবি আশুতোষ ভৌমিক ১৯৪৭ সালের ২৭ এপ্রিল কিশোরগঞ্জ সদরের পাটধা কুঁড়েরপাড় গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।

১৯৬৯ সালে ঢাকা থেকে প্রকাশিত ‘সত্যকথা’ নামে একটি সাপ্তাহিক পত্রিকায় তাঁর প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয়। এরপর থেকে প্রথম শ্রেণির জাতীয় দৈনিক পত্রিকাগুলোতে তিনি লেখালেখি শুরু করেন।

এ দীর্ঘ সময়ে দৈনিক বাংলা, আজাদ, সংবাদ, ইনকিলাব, দেশ, জনতা, জনকণ্ঠ, সমকাল ও নয়াদিগন্তসহ বিভিন্ন দৈনিক, সাপ্তাহিক ও লিটলম্যাগে তার অসংখ্য কবিতা প্রকাশিত হয়েছে।

তাঁর প্রকাশিত কাব্যগ্রন্থের মধ্যে ‘ঝড় বাদলের দিনের গল্প’ (১৯৮৬) ও ‘স্বপ্নরা দ্যাখে স্বপ্ন’ (১৯৮৬), সূর্যাস্ত-দিনের বাঁকে, নদী কিংবা বালুচর, ধূসরিমা পাখি হয় পাখিরা আকাশ’ (২০১৯) পাঠক মহলে ব্যাপক সমাদৃত হয়।

এছাড়া তিনি কবি আবিদ আজাদ সম্পাদিত ‘শিল্পতরু’ এবং দৈনিক ঢাকা-এর নির্বাহী সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।

বিভিন্ন সময়ে ‘কারুকাজ’, ‘উদ্দেশ্য’ ও ‘সাহস’ সহ বেশ কয়েকটি লিটলম্যাগ সম্পাদনা ছাড়াও গত ৪৬ বছর যাবত ‘বিন্যাস’ নামে একটি ছোট কাগজ সম্পাদনা করেছেন।

সত্তর দশকের শক্তিমান কবি আশুতোষ ভৌমিক রংলিপি ধ্রুপদীপ্রাণ সম্মাননা এবং সুকুমার রায় সাহিত্য পদক ও সম্মাননা লাভ করেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর