কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন ৪২ জনের করোনা, ১২ দিনে শনাক্ত ৩৬৮, মৃত্যু ৬


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১২ এপ্রিল ২০২১, সোমবার, ১০:৫৫ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণের ধারাবাহিক উর্ধ্বগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। প্রতিদিনই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা। সর্বশেষ সোমবার (১২ এপ্রিল) রাতে প্রকাশিত রিপোর্টে জেলায় নতুন করে ৪২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এনিয়ে চলতি এপ্রিল মাসের ১২ দিনে জেলায় ২ হাজার ৭১৬টি নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে ৩৬৮ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। এই ১২ দিনে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মোট ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ১৫৩ জন সুস্থ হয়েছেন।

সোমবার (১২ এপ্রিল) রাতে পাওয়া এই রিপোর্ট অনুযায়ী, কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৬১ জন যাদের মধ্যে ১০ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় হাসপাতালটিতে সন্দেহজনক কোভিড-১৯ দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ১৩ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৪২১৩ জন শনাক্ত, ৩৭৩৮ জন সুস্থ এবং ৭২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ৪০৩ জন। তাদের মধ্যে ৩৭ জন হাসপাতাল ও ৩৬৬ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে। এরপরেই রয়েছে ভৈরব উপজেলা। জেলার ইটনা ও নিকলী এই দুই উপজেলায় বর্তমানে করোনা আক্রান্ত কোন রোগী নেই।

সর্বশেষ সোমবার (১২ এপ্রিল) রাতে প্রকাশিত রিপোর্টে জেলায় নতুন করে মোট ৪২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন করে মোট ১৩ জন সুস্থ হয়েছে।

এছাড়া বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৯ এপ্রিল বিকালে ভৈরব উপজেলার ৪২ বছর বয়সী একজন নারী মৃত্যুবরণ করেছেন।

নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া ৪২ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ১৮ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া করিমগঞ্জ উপজেলায় ১ জন, তাড়াইল উপজেলায় ১ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৪ জন, ভৈরব উপজেলায় ১০ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৫ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ২ জন শনাক্ত হয়েছেন।

নতুন সুস্থ হওয়া ১৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ৭ জন এবং ভৈরব উপজেলায় ৬ জন রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ৪০৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৭১, হোসেনপুর উপজেলায় ১০ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১০ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৬ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২৩ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩২ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১৫ জন, ভৈরব উপজেলায় ৮৬ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৩৩ জন, মিঠামইন উপজেলায় ১১ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৬ জন রয়েছেন।

এদিকে গত ৭ই ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর থেকে সোমবার (১২ এপ্রিল) পর্যন্ত মোট ৭৪ হাজার ২৪৮ জন প্রথম ডোজ এবং গত পাঁচদিনে ৮ হাজার ২১৮ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর