কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কুলিয়ারচরে আম পাড়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ঘ, ভাঙচুর, লুট, নৃশংস খুন


 মুহাম্মদ শাহ্ আলম, কুলিয়ারচর | ১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার, ৪:৫৯ | কুলিয়ারচর 


ছোট বাচ্চাদের আম পাড়াকে কেন্দ্র করে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়নের মধ্য লালপুর ও ভৈরব উপজেলার মিরারচর উত্তর পাড়া ওমরা বাড়ি এই দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ, হামলা, বাড়িঘর ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে।

এ সময় লিটন মিয়া নামে এক বিভাটেক চালককে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। এছাড়া নিহতের বড় ছেলে মো. রাকিব (২০) সহ কমপক্ষে ১০ জন আহত এবং উভয়পক্ষের অন্তত ২০টি বাড়িঘরে ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) ফজরের নামাজের পর ভৈরব ও কুলিয়ারচর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা লালপুর ও মিরারচর ওমরা বাড়ির লোকজন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে এ হত্যা, লুটপাট ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটায়।

নিহতের ছেলে মো. রাকিব জানান, আগের দিন শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) পার্শ্ববর্তী তার নানীর বাড়িতে মো. শামীম মিয়ার সাত বছরের ছেলে সাব্বির গাছ থেকে আম পাড়ার জন্য আম গাছে ঢিল ছুঁড়লে, সেই ঢিল গিয়ে মেরছি মিয়ার নাতি রামিম (৫) এর কপালে লাগে।

এতে মেরছি মিয়ার বাড়ির লোকজন ক্ষুব্ধ হয়ে শামীম মিয়াকে মারধরসহ বাড়িঘরে হামলা ও ভাঙচুর করে এবং খুন জখমের হুমকি দেয়।

এ অবস্থায় মেরছি মিয়াদের ভয়ে রাতে শামীম মিয়া ও তার ভাই বাড়ি ছেড়ে পার্শ্ববর্তী মো. লিটন মিয়ার বাড়িতে আশ্রয় নেয়।

পরে মেরছি মিয়া ও তার দলবল রাতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে শনিবার (১৭ এপ্রিল) ফজর নামাজের পর অতর্কিতে লিটন মিয়ার বাড়িতে হামলা চালায়।

এ সময় বিভাটেক চালক লিটন মিয়া তার বিভাটেকটি হামলাকারীদের ভাঙচুর থেকে রক্ষা করতে একটি নিরাপদ স্থানে নিয়ে রেখে বাড়িতে ফিরে আসার পথে হামলাকারীরা তার পথরোধ করে মারধর শুরু করে।

এসময় লিটন মিয়া দৌড়ে পালাতে গেলে শের আলীর বাড়ির আঙিনায় গিয়ে মাটিতে পড়ে যায়।  প্রাণে বাঁচার জন্য হামলাকারীদের কাছে লিটন মিয়া প্রাণ ভিক্ষা চায়।

কিন্তু তাতেও মন গলেনি হামলাকারীদের। তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ঘটনাস্থলেই লিটন মিয়াকে নির্মমভাবে হত্যা করে।

মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর হামলাকারীরা বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

বিকালে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে এবং পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

খবর পেয়ে ভৈরব সার্কেলের এ.এস.পি রেজওয়ান দীপু, কুলিয়ারচর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়াৎ ফেরদৌসী, ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা, কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) একেএম সুলতান মাহমুদ এবং ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

এ বিষয়ে কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) একেএম সুলতান মাহমুদ বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনী ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর