কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে একদিনে হত্যা-দুর্ঘটনায় ৮জন নিহত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার, ৯:১৪ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জ জেলায় ২৪ ঘন্টারও কম সময়ের ব্যবধানে পৃথক হত্যাকাণ্ডে ছয়জন এবং দুটি দুর্ঘটনায় ২ জন মিলিয়ে মোট ৮ জন নিহত হয়েছে। এর মধ্যে জেলার ভৈরবেই চারজন হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছে।

এছাড়া তাড়াইলে এক শিশু ও কুলিয়ারচরে একজন বিভাটেক চালক নৃশংস হত্যাকাণ্ডে নিহত হয়েছে। অন্যদিকে কিশোরগঞ্জ সদরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে এক রাজমিস্ত্রী এবং পাকুন্দিয়ায় অটোরিকশার চাপায় এক শিশু নিহত হয়েছে।

ভৈরবে নিহত চারজনের মধ্যে শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাতে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে মো. ফারুক খান (৩৫) নামে এক ব্যবসায়ী এবং শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল ও দুপুরে দুই দফা সংঘর্ষে শেখ মকবুল (৪০) ও শেখ পাবেল (২৮) নিহত হয়েছে।

এছাড়া শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকালে শরীফ (১৪) নামে অটোচালক এক কিশোরের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

বাকি দুটি হত্যাকাণ্ডের মধ্যে তাড়াইলে রিফাত (১২) নামে এক শিশুকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকালে পাটক্ষেত থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

অন্যদিকে শনিবার (১৭ এপ্রিল) ফজরের নামাজের পর কুলিয়ারচরে দুই পক্ষের সংঘর্ষের সময় নৃশংস হামলায় লিটন মিয়া (৪৫) নামে এক বিভাটেক চালক নিহত হন।

এছাড়া শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকালে কিশোরগঞ্জ শহরের বাইসাইকেল যোগে কাজ করতে যাওয়ার পথে রাস্তায় পড়ে থাকা বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে মো. বাচ্চু মিয়া (৬৫) নামে এক রাজমিস্ত্রী নিহত হয়েছেন।

সকালেই পাকুন্দিয়ায় বাড়ির পাশের সামনের রাস্তায় সবজি ভর্তি এক অটোরিকশা চাপায় রিয়া মণি (৬) নামে এক শিশু নিহত হয়।

পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, আশুগঞ্জ থেকে হেঁটে বাড়ি ফেরার পথে শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাত সাড়ে ৯টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সৈয়দ নজরুল ইসলাম সড়ক সেতুর ভৈরব প্রান্তে পৌর এলাকার চন্ডিবের খান বাড়ির মো. সালাম খানের ছেলে ব্যবসায়ী মো. ফারুক খান ছিনতাইকারীর কবলে পড়েন।

এ সময় ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে তিনি গুরুতর আহত হলে উদ্ধার করে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাতে অটোরিকশা নিয়ে বের হয়ে নিখোঁজ হওয়ার পর শনিবার (১৭ এপ্রিল) বেলা ১১টার দিকে ভৈরব-কিশোরগঞ্জ আঞ্চলিক মহাসড়কের কালিকাপ্রাসাদের গাজীরটেক এলাকা থেকে শরীফের লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত শরীফ সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার কাঞ্চনপুর গ্রামের সুন্দর আলীর ছেলে। সে ভৈরব পৌর শহরের ঘোড়াকান্দা এলাকায় পরিবারের সাথে ভাড়া বাসায় থাকত।

ভৈরব উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের লুন্দিয়া গ্রামে শনিবার (১৭ এপ্রিল) আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই দফা সংর্ঘষে একই বংশের দুইজন নিহত হওয়া ছাড়াও দুই পক্ষেরই অন্তত ৩০ জন আহত হয়। এ সময় শতাধিক ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও লুট করা হয়।

এর মধ্যে সকাল ৯টার দিকে লুন্দিয়া গ্রামের শেখ বাড়ির সাথে লুন্দিয়া সিকদার বাড়ির মাজু মেম্বার গ্রুপের সংর্ঘষ হয়। এতে নিহত হয়েছেন মৃত শেখ মোতালিব মিয়ার ছেলে শেখ মকবুল।

অপরদিকে বেলা ১২টার দিকে লুন্দিয়া শেখ বাড়ির সাথে পাগলার বাড়ির সংর্ঘষ হয়। এতে নিহত হয়েছে শেখ খালেক মিয়ার ছেলে শেখ পাবেল।

ছোট বাচ্চাদের আম পাড়াকে কেন্দ্র করে শনিবার (১৭ এপ্রিল) ফজরের নামাজের পর কুলিয়ারচর উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়নের মধ্য লালপুর ও ভৈরব উপজেলার মিরারচর উত্তর পাড়া ওমরা বাড়ি এই দুই গ্রামের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষ ও হামলায় বিভাটেক চালক লিটন মিয়া নৃশংসভাবে খুন হন।

এছাড়া নিহতের বড় ছেলে মো. রাকিব (২০) সহ কমপক্ষে ১০ জন আহত এবং উভয়পক্ষের অন্তত ২০টি বাড়িঘরে ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) রাতের খাবার খেয়ে বাইরে বেরিয়ে নিখোঁজ হওয়ার পর শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে তাড়াইল উপজেলার তালজাঙ্গা ইউনিয়নের চরতালজাঙ্গা বাদুরতলা গ্রামের পাটক্ষেত শিশু রিফাতের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করা হয়। রিফাত গ্রামের রাজমিস্ত্রী মো. দুলাল মিয়ার ছেলে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর