কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


বাঁশখালীতে নিহত মিঠামইনের রাহাতের পরিবারে কান্না-আহাজারি


 বিজয় কর রতন, মিঠামইন | ১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার, ৯:৪৫ | মিঠামইন 


চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে নিহতদের মধ্যে নিহত মাহমুদুল হক রাহাত (২৪) এর বাড়ি কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে। তার বাড়ি উপজেলার কাটখাল ইউনিয়নের সাহেব নগর গ্রামে।

তার পিতা ফালু মিয়া কাটখাল বাজারের একজন চা বিক্রেতা। রাহাতরা চার ভাই ও তিন বোন ছিলেন। রাহাত চার ভাইয়ের মধ্যে তৃতীয়।

সে এসআলম গ্রুপের মালিকাধীন বাঁশখালীর কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রে চাকরি করত।

বেতনভাতাসহ নানা কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দিলে শনিবার (১৭ এপ্রিল) সকালে বিক্ষোভ শুরু হয়। এই বিক্ষোভে যোগ দেয় রাহাতও। বিক্ষোভ চলাকালে এক পর্যায়ে সংঘর্ষে নিহত হয় রাহাত।

দুপুরে তার মারা যাওয়ার খবর বাড়িতে পৌঁছুলে স্বজনদের কান্না আর আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে এলাকার পরিবেশ।

রাহাতের পিতা ফালু মিয়া জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ কোম্পানীর সাথে শ্রমিকদের ছুটি নিয়ে ঝামেলা চলছিল। স্থানীয় বাজারে চা বিক্রি করে কোনরকমে পরিবারটিকে টেনে নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি।

কিন্তু তার স্বল্প আয়ে বৃহৎ এই পরিবারের খরচ সামলানো দিন দিনই দুঃসহ হয়ে ওঠে। এ পরিস্থিতিতে তার অভাবের সংসারে সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনার আশায় এসএসসি পাশের পর বছর খানেক আগে রাহাত বাঁশখালীর কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্রের চাকরিতে যোগ দিয়েছিল।

কিন্তু শ্রম বিক্রি করে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় চাকরিতে গিয়ে আদরের ছেলে রাহাতকে এভাবে লাশ হতে হবে, তা স্বপ্নেও ভাবেননি ফালু মিয়া।

রাহাতের এমন মৃত্যুর খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, রাহাত অত্যন্ত ভাল ছেলে ছিল। চাকরি করে সে তার বাবাকে সহযোগিতা করতো। কিন্তু সংসারে সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনার আগেই নির্মম বাস্তবতার মুখোমুখি হয়ে পৃথিবী থেকে চলে যেতে হয়েছে তাকে।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর