কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হোসেনপুরে সংরক্ষণাগার না থাকায় আলুতে পচন; ন্যায্য মূল্য না পেয়ে হতাশ কৃষক


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ২৪ এপ্রিল ২০২১, শনিবার, ৫:২৯ | হোসেনপুর 



কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে আলু সংরক্ষণাগার না থাকায় আলুতে পচন ধরেছে। উৎপাদিত আলুর ন্যায্য মূল্য না পেয়ে হতাশাগ্রস্থ কৃষক। এতে এক দিকে কৃষক লোকসানের মুখে পড়েছে, অন্যদিকে তারা আগামীতে আলু চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌর এলাকায় ৪০০ হেক্টর জমিতে প্রায় ৮ হাজার ৬০০ মেট্রিক টন আলু উৎপাদিত হয়। যা লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে ৪৬০ মেট্রিক টন বেশি।

উৎপাদন মৌসুমে আলুর দাম কম থাকায় কৃষক উৎপাদিত আলু কম মূল্যে বিক্রি করতে বাধ্য হয়। স্থানীয় পর্যায়ে কোন কোল্ড স্টোরেজ না থাকায় পাশের উপজেলা পাকুন্দিয়ায় আলুর ভালো উৎপাদন হওয়ায় সেখানকার চাহিদা মেটানোর পর হোসেনপুরের চাষিদের চালু সংরক্ষণের জন্য স্থান পায় না। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও একই চিত্র।

হোসেনপুর উপজেলা ভৌগলিকভাবে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ ও নরসুন্দা নদী বেষ্টিত হওয়ায় আলু চাষের জন্য উপযোগী। তবে স্বাধীনতার ৫০ বছরেও কোন সংরক্ষণাগার না হওয়ায় এখানকার কৃষককে তাদের উৎপাদিত আলু খাবারের বা বীজের জন্য হন্নে হয়ে দৌড়াতে হয় এদিক-ওদিক।

এক সময় দেশি আলু চাষ করে তা দীর্ঘদিন পরও বীজ ও খাবারের জন্য রাখতে পারলেও এখন সেগুলো বিলুপ্ত হওয়ায় নতুন জাত হিসেবে ডায়মন্ড ও এসটারিস আলু চাষ হয়ে থাকে। যেগুলো এক থেকে দেড় মাসের বেশি সময় কোল্ড স্টোরের বাইরে সংরক্ষণ করা যায় না।

সরেজমিনে উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজারে গিয়ে কথা আলু চাষীদের সাথে কথা হয়। তাদের মধ্যে হাজীপুর বাজারে আলু বিক্রি করতে আসা সিদলা ইউনিয়নের পোড়াবাড়িয়া গ্রামের কৃষক আব্দুল কাদির, আব্দুল আজিজ, আব্দুর রাশিদ, সাহেবেরচর নয়াপাড়া গ্রামের কৃষক আশরাফুল জানান, ৪০ কাঠা জমিতে এ বছর আলু চাষ করে কম করে হলেও ৩ লাখ টাকা লস হয়েছে।

কৃষক ইকবাল হোসেন জানান, ৩ ঘন্টা ধরে আলু নিয়ে বসে আছি, কেউ দাম করছে না।

বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) হোসেনপুর বাজারে কথা হয় জামাইল গ্রামের কৃষক গিয়াস উদ্দিন, বরুয়া গ্রামের মমতাজ উদ্দিন, চরজামাইল গ্রামের ইব্রাহিম খলিল সোহাগসহ অন্তত ১০জন কৃষকের সাথে। তারা বলেন, তাদের এখনও কয়েকশ’ মণ আলু অবিক্রিত থাকায় আলুতে পচন ধরছে।

সাহেবের চর গ্রামের কৃষক বাদল মিয়া আক্ষেপ করে বলেন, আগামীতে আর আলু করবো না।

হোসেনপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ ইমরুল কায়েস বলেন, স্থানীয় পর্যায়ে কোল্ড স্টোরেজ এর ব্যবস্থা করতে পারলে পরিবহন খরচ রক্ষার পাশাপাশি কৃষক ন্যায্য মূল্য পাবে। এজন্য উপজেলায় কম করেও হলেও ৫০০ মেট্রিক টন ধারণক্ষমতার একটি কোল্ড স্টোরেজ প্রয়োজন।

হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাবেয়া পারভেজ বলেন, সরকারিভাবে এ উপজেলায় একটি কোল্ড স্টোরেজ স্থাপনের জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূরের কাছে একটি প্রস্তাবনা রাখবো।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর