কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভারত ফেরত পালিয়ে যাওয়া করোনা রোগীদের পাকড়াও


 কিশোরগঞ্জ নিউজ ডেস্ক | ২৬ এপ্রিল ২০২১, সোমবার, ৫:৫১ | সারাদেশ 



অবশেষে স্বস্তি! যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে পালিয়ে যাওয়া ১০ করোনা রোগীকে সোমবার (২৬ এপ্রিল) বিকালে ফিরিয়ে আনা হয়েছে। যশোর জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার মাহমুদুল হাসান বিকেল সাড়ে ৫টায় গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মাহমুদুল হাসান জানান, পালিয়ে যাওয়া ১০ জনের মধ্যে ভারতফেরত সাতজন। তারা ভারত থেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়ে দেশে আসেন। বাকি তিনজন যশোরের।

তাদের প্রত্যেকের সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা সুস্থ আছেন। তাদের শারীরিক উপসর্গ নেই। তবে করোনা নেগেটিভ না হওয়া পর্যন্ত স্বাস্থ্য বিভাগ তাদের দায়িত্ব নিয়েছে।

উল্লেখ্য, যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে ১০ জন করোনা রোগী পালিয়ে যান। তাদের মধ্যে সাতজন ভারতফেরত।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) সকাল থেকে রোববার (২৫ এপ্রিল) দুপুরের মধ্যে তারা পালিয়ে যান। হাসপাতালের নার্স ও কর্মচারীদের অবহেলার কারণে তারা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছেন বলে অভিযোগ ওঠে। এতে করে সম্প্রতি বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাসের ইন্ডিয়ান ভ্যারিয়েন্ট ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার (২৩ এপ্রিল) সকাল ১০টা ৫৭ মিনিটে ভারতফেরত কিছু রোগীকে ভর্তি করা হয়। এরপর রবিবারও (২৪ এপ্রিল) রোগী আসে।

সব মিলিয়ে দু'দিনে ১০ জন করোনা রোগী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের সবাইকে হাসপাতালের তৃতীয় তলায় করোনা ওয়ার্ডে পাঠানো হয়।

হাসপাতালের ভর্তি রেজিস্ট্রারমতে, ভর্তি রোগীরা হলেন- যশোর শহরের বিমান অফিস মোড়ের আবুল কাসেমের স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৫৭), সাতক্ষীরার আশাশুনির জালাল হোসেনের ছেলে মিলন হোসেন (৩২), সাতক্ষীরার কালীগঞ্জের মনতোষ সর্দারের স্ত্রী শেফালি রানী (৪০), যশোর সদর উপজেলার পাঁচবাড়িয়া গ্রামের একরামুল কবীরের স্ত্রী রুমা (৩০), যশোর শহরের খালধার রোডের বিশ্বনাথের স্ত্রী মনিমালা দত্ত (৪৯), রাজবাড়ী রামকান্তপুরের গোলাম রব্বানির মেয়ে নাসিমা আক্তার (৫০), খুলনা পাইকগাছার আহমদ সানার ছেলে আমিরুল সানা (৫২), যশোর শহরের ওয়াপদা গ্যারেজ এলাকার মৃত ভদ্র বিশ্বাসের ছেলে প্রদীপ বিশ্বাস (৩৭), খুলনা সদরের কলিম কৃষ্ণের ছেলে বিবেকানন্দ (৫২) ও খুলনা রূপসা এলাকার শের আলীর ছেলে সোহেল সরদার (১৭)।

তাদের মধ্যে রুমা, ফাতেমা ও মনিমালা দত্ত যশোরের। বাকি সাতজন ভারত ফেরত।

এ ব্যাপারে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ শাখা) মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম বলেন, পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা জানার পর পুলিশ বেনাপোল ইমিগ্রেশন থেকে সাতজনের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে। এরপর স্থানীয় পুলিশের সহায়তায় তাদের ধরা হয়। তাদের হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করা হবে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর