কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিকলীতে সমবয়সীদের মারপিটে আহত কিশোরের মৃত্যু


 নিকলী সংবাদদাতা | ২৮ এপ্রিল ২০২১, বুধবার, ১০:৫০ | নিকলী  



কিশোরগঞ্জের নিকলীতে সমবয়সীদের মারপিটে আহত আসমত আলী (১৪) নামে এক কিশোর চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

নিহত আসমত আলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের ষাইটধার দক্ষিণ হাটি গ্রামের আরজ আলীর ছেলে।

মারা যাওয়ার আগের দিন সোমবার (২৬ এপ্রিল) রাতে আসমত আলীকে গুরুতর আহত করার ঘটনায় তার পিতা আরজ আলী বাদী হয়ে নিকলী থানায় অপু মিয়া, তানজিল মিয়া ও হৃদয় মিয়া এই তিনজনকে অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেছিলেন।

নিকলী থানার ওসি মো. সামছুল আলম সিদ্দিকী বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনার পর ভিকটিমের পরিবার থেকে বিষয়টি পুলিশকে অবগত করা হয়নি। সোমবার (২৬ এপ্রিল) রাতে ভিকটিমের পিতা আরজ আলী বাদী হয়ে মারামারির ঘটনায় অভিযোগ দেয়ার পর রাতেই সেটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) রাতে মামলা দায়েরের পর মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ভিকটিমের মৃত্যু হয়। এখন মামলায় হত্যার ধারা যুক্ত করা হবে।

ওসি মো. সামছুল আলম সিদ্দিকী আরো জানান, ময়নাতদন্ত শেষে ভিকটিমের লাশ দাফন করা হয়েছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ধরতে পুলিশ তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।

পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ১৯ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টার দিকে আসমত আলী কাজ থেকে ফেরার পথে তার সমবয়সী তিন বন্ধু অপু মিয়া, তানজিল মিয়া ও হৃদয় মিয়া তাকে মারপিটে গুরুতর আহত করে।

আসমত আলীকে প্রথমে নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়ার পর অবস্থার অবনতি দেখে বাজিতপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, আসমত আলী, হৃদয় মিয়া, অপু মিয়া ও তানজিল মিয়া চারজনেই রাজমিস্ত্রির সহকারী হিসেবে কাজ করতো। কাজের টাকা নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ তৈরি হয়।

এর জের ধরে হৃদয় মিয়া, অপু মিয়া ও তানজিল মিয়া তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে আসমত আলীকে বেদম মারপিট করে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর