কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুজিব শতবর্ষে মিঠামইনে শত একর পতিত জমিতে ধান ফলালেন রাষ্ট্রপতির সহোদর অধ্যক্ষ আবদুল হক


 বিজয় কর রতন, মিঠামইন | ২৯ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৮:৩০ | এক্সক্লুসিভ 



রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ এঁর সহোদর বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক নূরু কৃষক সেজে মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে একশত একর অনাবাদী পতিত জমিতে এ বছর বোরো ধানের চাষ করেছেন। ফলনও হয়েছে বাম্পার।

দেশে করোনার প্রার্দুভাবের মধ্যেও তিনি কাজের ফাঁকে নিজ জমির খোঁজখবর নিতে প্রতিদিন হাওরে যেতেন। এ সকল জমি মিঠামইনের দক্ষিণে অলওয়েদার সড়কের পাশে কাওর কোণা ও খাগড়ারবান হাওরে।

বৃহস্পতিবার (২৮ এপ্রিল) সকালে এ সকল জমির দ্বিতীয় পর্যায়ে বি আর-২৯ ধান কাটার জন্য কম্বাইন্ড হার্ভেস্টার মেশিন নিয়ে জমিতে ধান কাটা শুরু করেন।

এর আগে দেশীয় শ্রমিক সংকটের কারণে ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও কৃষকলীগের নেতাকর্মীরা বিআর-২৮ ধান কেটে খলায় নিয়ে আসেন।

স্থানীয়রা বলছেন, রাষ্ট্রপতির পরিবারে এই প্রথম কোন সদস্য কৃষক সেজে মুজিব শত বর্ষ উপলক্ষে শত একর জমি চাষ করলেন। এটি একটি বিরল দৃষ্টান্ত।

অন্যদিকে এবছর রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক পরীক্ষামূলকভাবে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের নিয়ে ১৪ একর জমি ভুট্টা চাষ করিয়েছেন। ফলনও ভাল হয়েছে।

হাওরে ধান কাটার সময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাফিউল ইসলাম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুমীর কুমার বৈষ্ণব, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শিক্ষক মো. শাহজাহান মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ফারুক আহাম্মদ সিদ্দিকী, উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মাঈন উদ্দিন খন্দকার, শিক্ষক রাসেল আহমেদ, ছাত্রলীগ নেতা হাসিবুর রহমান, হাদিছ মিয়া প্রমুখসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক নূরু জানান, তিনি মুজিববর্ষ উপলক্ষে ব্যক্তিগতভাবে একশত একর পতিত জমিতে এবছর বোরো ধান আবাদ করেছেন।

তিনি আশা করছেন, প্রায় ১০ হাজার মণ ধান ফলন হবে এই শত একর জমিতে। মিঠামইন কলেজের পাশে বিশাল খলা রয়েছে। ধান মাড়াই ও শুকানোর কাজে ১০ জন শ্রমিক রয়েছে।

একদিকে হাওর থেকে ধান আসছে অন্যদিকে মাড়াই করে রোদে শুকিয়ে গোলায় গুদামজাত করা হচ্ছে। সময় মত এ সকল ধান বিক্রি করবেন।

জানা গেছে, কাটা ধানের মধ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক নূরু প্রায়ই অসহায় লোকদের খলা থেকে ২ মণ/৪মণ করে ধান বিলিয়ে দিচ্ছেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক নূরু জানান, এবছর মুজিববর্ষ উপলক্ষে তিনি শত একর জমি চাষ করেছেন। আগামীতে আরও বেশি করার ইচ্ছা রয়েছে। বাম্পার ফলন হওয়ায় তিনি অত্যন্ত খুশি বলেন জানান হাওরে শিক্ষার প্রসারে অনন্য ভূমিকা রাখা এই শিক্ষানুরাগী মানুষটি।

ধান কাটার সময় বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক নূরু হাওরে থাকা উপস্থিত কৃষকদের বলেন, আপনারা আমার মত পতিত চাষ করে ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি করেন। আমরা সহযোগিতা করবো।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রাফিউল ইসলাম জানান, প্রিন্সিপাল সাহেবের প্রতিটি জমি তিনি পরিদর্শন করেছেন। বাম্পার ফলন হয়েছে। এসকল জমি চাষের সময় তিনি নিজে শ্রমিকদের বিভিন্ন পরামর্শ দিতেন। তিনি কৃষকদের পতিত জমি আবাদ করার উৎসাহ জোগান।

এসময় কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয়ের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, আমার ছোট চাচা মুজিববর্ষ উপলক্ষে একশত একর জমি চাষ করেছেন। ফলন ভাল হয়েছে। আমি ভুট্টা চাষ দিয়ে শুরু করেছি। আগামীতে আমার বাবার জমি আমি চাষ করবো।

তিনি এমনিভাবে কৃষকদের পতিত জমি আবাদ করার পরামর্শ দিয়ে বলেন, দুর্যোগ মোকাবেলা করে ফসল উৎপাদন করতে হবে আমাদের। একটিমাত্র ফসল আমাদের।

আগামীতে মিঠামইনে আরও অধিক পরিমাণে জমি আবাদ হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর