কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হোসেনপুরে ঝুঁকি নিয়ে সেতু পারাপার


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ৩ জুন ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৫:৪৭ | জনদুর্ভোগ 



কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের চর কাটিহারী গ্রামের পুরাতন ব্রহ্মপুত্র শাখা নদের উপর নির্মিত সেতুর নিচ থেকে পানির স্রোতে মাটি সরে গিয়ে এক পাশ দেবে গেছে। বিকল্প না থাকায় ৭টি গ্রামের বাসিন্দাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন ওই সেতু দিয়ে পারাপার হতে হচ্ছে।

এর উপর দিয়েই চলছে অটোরিক্সা ও মোটর গাড়ি। এতে যে কোন মুহুর্তে সেতুটি ধসে পরে হতাহতের আশঙ্কা করছেন স্থানীয় লোকজন।

স্থানীয় লোকজন ও উপজেলা প্রকল্প  বাস্তবায়ন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ২০০১ সালে হাজিপুর-পোড়াবাড়ি বন্যা নিয়ন্ত্রণ বেড়িবাঁধ নির্মাণের সময়ে এ শাখা নদের পানির প্রবাহ বন্ধ হয়ে পড়ে। এরপর ২০০৪-২০০৫ সালে ২৭০ ফুট প্রস্থের নদের এ অংশের মধ্যে শাখা নদের ১৮ ফুট অংশে সেতুটি নির্মাণ করা হয়।

রাস্তাটি পাকা করায় চরকাটিহারী, চর হাজিপুর, হোগলা কান্দি, চরহটর আলগী, চর আলগী, বীরকাটিহারি ও গড়মাছুয়াসহ আশপাশের বাসিন্দাগণ হোসেনপুর ও গফরগাঁও উপজেলার মধ্যে যোগাযোগের সহজ মাধ্যম হয়ে উঠে এ সড়কটি।

এ সেতুর মাধ্যমে চরাঞ্চলের উৎপাদিত সবজি খুব সহজেই কৃষকগণ প্রতিদিন বিক্রির জন্য হোগলাকান্দি বাজারে নিয়ে গিয়ে ন্যায্য মূল্যে বিক্রি করতে পেরে অনেকেই স্বাবলম্বী হতে পেরেছেন।

এখন সেতুটি ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ায় কয়েক হাজার বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

হাজিপুর-পোড়াবাড়ি পানি ব্যবস্থাপনা সমবায় সমিতির সভাপতি আকবর আলী জানান, বর্তমান সরকার নদকে দখলমুক্ত করতে ও নদের পানি ধরে রাখতে পানি উন্নয়ন বোর্ড নদের খনন কাজ শুরু করলে মাছ ধরার জন্য স্থানীয়রা নদে পানি প্রবাহের জন্য সেতুর মাটি কেটে নালার সৃষ্টি করে।

এতে সেতুটির নিচ থেকে মাটি সরে যাওয়ায় সেতুটি ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে কথা হয় স্থানীয় জনপ্রতিনিধি জিনারী ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আমিনুল হক মাখনের সাথে। সেতুর এ দুরাবস্থা দেখে তার মত এ এলাকার আরো অনেক সুবিধাভোগীদের কপালে ভাঁজ পড়েছে।

এ সময় চরকাটিহারি গ্রামের ফরজুল মল্লিক, মো. হেলাল মিয়া, সুরুজ আলী, হোগলাকান্দি গ্রামের গোলাম মস্তুফা, জাফর উদ্দিন, বিরণ রবিদাস, নজরুল মেম্বারের মত অনেকেই জোর দাবি জানিয়ে বলেন, আমাদের দু:খ-কষ্ট লাঘবে কিশোরগঞ্জ সদর-হোসেনপুর আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি এখানে একটি দৃষ্টিনন্দন সেতু নির্মাণ করে দিবেন বলে আশা রাখি।

হোসেনপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাবেয়া পারভেজ জানান, সেতুটির নিচ থেকে মাটি সরে দেবে যাওয়ায় এটিকে টিকিয়ে রাখা সম্ভব নয়। যে জন্য মাননীয় জেলা প্রশাসক, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও এলজিইডির সাথে কথা হয়েছে। তাই যত দ্রুত সম্ভব এখানে নতুন সেতু তৈরির প্রয়োজনীয় প্রদক্ষেপ নেয়া হবে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর