কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


টাকার লেনদেনকে কেন্দ্র করে গাঁজার আসরে নৃশংসভাবে খুন হয় শফিকুল


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৬ জুন ২০২১, রবিবার, ১২:০৪ | বিশেষ সংবাদ 



নিহতের এক বছর পর কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের দেওপুর কাজলাহাটি গ্রামের শফিকুল ইসলাম খান ওরফে শফিকুল হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন করেছে কিশোরগঞ্জ জেলা সিআইডি।

হত্যাকাণ্ডে সরাসরি অংশ নেওয়া মো. ওমর ফারুক (২০) নামে এক ঘাতক সিআইডি’র হাতে আটক হওয়ার পর তাকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে তার দেওয়া স্বীকারোক্তিতে বেরিয়ে এসেছে হত্যার মূল রহস্য।

ঘাতক মো. ওমর ফারুক জানিয়েছে, টাকা-পয়সার লেনদেনকে কেন্দ্র করে বিরোধের জের ধরে গাঁজার আসরে নৃশংসভাবে খুন হয় শফিকুল ইসলাম খান ওরফে শফিকুল। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর ঘাতকেরা লাশ একটি বিলের পানিতে ফেলে দেয়।

বৃহস্পতিবার (৩ জুন) রাতে নারায়ণগঞ্জ সদর এলাকা থেকে ঘাতক মো. ওমর ফারুককে আটক করা হয়। পরে সে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

ঘাতক মো. ওমর ফারুক কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের দেওপুর গ্রামের মো. বাচ্চু মিয়ার ছেলে।

অন্যদিকে নিহত শফিকুল ইসলাম খান ওরফে শফিকুল দেওপুর কাজলাহাটি গ্রামের মো. বরজু খান ওরফে বদল এর ছেলে।

সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা সূত্র জানায়, শফিকুল ইসলাম খান ওরফে শফিকুল ব্যাটারিচালিত রিকশা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো।

গত বছরের ৩০ মে রাত ৯টার দিকে সে তার ব্যাটারিচালিত রিকশা নিয়ে চালানোর উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি।

খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে পরদিন ৩১ মে দিবাগত রাত ১টার দিকে শফিকুলের ব্যাটারিচালিত রিকশাটি তাড়াইলের শিমুলহাটি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ব্যাটারিবিহীন পরিত্যক্ত অবস্থায় পাওয়া যায়।

এর পরের দিন ১ জুন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তাড়াইল উপজেলার দিগদাইড় গ্রামের দিগদাইড় টু বউসারবাজারগামী পাকা রাস্তার উত্তর পাশে আমাইল বিলে শফিকুল ইসলাম খান ওরফে শফিকুল এর মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখমযুক্ত লাশ ভাসমান অবস্থায় পাওয়া যায়।

তার মাথার সামনে, তালুতে ও পিছনে ১০/১১টি ধারালো অস্ত্রের আঘাত ছিল। তাড়াইল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল রিপোর্ট প্রস্তুত করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ওইদিনই (১ জুন, ২০২০) নিহত শফিকুলের পিতা মো. বরজু খান ওরফে বদল বাদী হয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে তাড়াইল থানায় মামলা এজাহার দায়ের করেন।

এজাহারের প্রেক্ষিতে তাড়াইল থানায় মামলা (নং-০১, তারিখ- ০১/০৬/২০২০ খ্রিস্টাব্দ) ধারা-৩০২/২০১/৩৪ পেনাল কোড রুজু হয়।

মামলাটি তদন্তকাজ প্রথমে তাড়াইল থানা পুলিশ শুরু করে। পরবর্তীতে গত বছরের ১ ডিসেম্বর সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করে।

সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলার উপ-পুলিশ পরিদর্শক মো. মহসিন খান মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করে তদন্তকাজ চালু করেন।

সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা মামলাটি তদন্তকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মামলার সন্দিগ্ধ আসামি মো. ওমর ফারুককে বৃহস্পতিবার (৩ জুন) রাতে নারায়ণগঞ্জ সদর এলাকা হইতে গ্রেপ্তার করে।

মামলার ঘটনার বিষয়ে সন্ধিগ্ধ আসামি মো. ওমর ফারুককে জিজ্ঞাসাবাদে সে মামলার ঘটনায় নিজেকে জড়িয়ে অজ্ঞাতনামা আরো তিনজন আসামির নাম ঠিকানা উল্লেখপূর্বক প্রকাশ করে।

পরে মো. ওমর ফারুক স্বেচ্ছায় হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদানে রাজি থাকায় তাকে আদালতে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি রেকর্ড করানো হয়।

স্বীকারোক্তিতে মো. ওমর ফারুক জানায়, শফিকুল ইসলাম এবং অন্যান্য আসামিরা একই সাথে গাঁজাসহ বিভিন্ন মাদকদ্রব্য সেবন করতো।

প্রতিদিনের ন্যায় শফিকুল ইসলামকে আরেক ঘাতক রনু মিয়া হত্যাকাণ্ডের দিন রিকশাসহ বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে তাড়াইল উপজেলার দিগদাইড় গ্রামের আমাইল বিলের পাশে ব্রীজের কাছে গাঁজার আসরে সেবন করতে বসে।

গাঁজা সেবনরত অবস্থায় পূর্বের টাকা-পয়সার লেনদেনকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়। তর্কবিতর্কের এক পর্যায়ে সবাই মিলে শফিকুল ইসলামকে ধরে মাটিতে শুইয়ে গাঁজা কাটার ধারালো বাটাল দিয়া মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে উপর্যুপরি ১০/১১টি গুরুতর আঘাতের মাধ্যমে মৃত্যু নিশ্চিত করে। পরে লাশ বিলের পানিতে ফেলে দেয়।

পরবর্তীতে নিহত শফিকুলের ব্যাটারিচালিত রিকশাটি শিমুলহাটি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে ব্যাটারিবিহীন পরিত্যক্ত অবস্থায় ফেলে রাখে।

এ ঘটনায় জড়িত চারজনের মধ্যে তিনজনকে ইতোমধ্যে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে এবং পলাতক অপর এক আসামিকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর