কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে জোড়াখুনে ১২১ আসামি কারাগারে, ২০ আসামি কিশোরগঞ্জে সিআইডির হাতে গ্রেপ্তার


 স্টাফ রিপোর্টার | ৯ জুন ২০২১, বুধবার, ৯:৪৯ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জের ভৈরবে গত ১৭ এপ্রিল সংঘটিত চাঞ্চল্যকর জোড়া খুনের ঘটনায় দায়ের করা দুটি মামলায় মোট ১২১ জন আসামিকে বুধবার (৯ জুন) কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে মামলার এজাহারনামীয় ২০ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা।

এছাড়া দুটি মামলায় মোট ১০১ জন আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। তাদের মধ্যে একটি মামলায় ৫৭ জন আসামি এবং অপর মামলায় ৪৪ জন আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

বুধবার (৯ জুন) ভোররাত ২টা থেকে সকাল সাড়ে ৬টা পর্য়ন্ত সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা টিম কিশোরগঞ্জ জেলা শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে এজাহারনামীয় ২০ আসামিকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃত ২০ আসামি হচ্ছে, মো. হবি মিয়া (৪৫), মিজানুর রহমান ওরফে মিজান (২২), মো. আজগর আলী (৩৫), মো. ফারুক মিয়া (৪০), মো. উজ্জল মিয়া (৩৮), মো. শওকত মিয়া (৫৫), মো. জমশেদ আলী (৪৩), মো. বাছির মিয়া (৩৩), মো. লিয়াকত আলী (৪৫), মো.  ইদু মিয়া (৬০), মো. রাকিব মিয়া (২২), মো. হীরা মিয়া (৩৫), মো. আব্দুর রশিদ (৫০), মো. খোকন মিয়া  (২৫), মো. খায়রুল ইসলাম (২২), মো. আশিদ মিয়া (৩৫), মো. রতন মিয়া (৪০), মো. নবী হোসেন (২৫), মহজ উদ্দিন ওরফে মফিজ উদ্দিন (৬০) এবং মাসুদ মিয়া (৩৫)।

তাদের সবাই ভৈরব উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের লুন্দিয়া উত্তরপাড়া ও খলাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

তাদের মধ্যে লুন্দিয়া উত্তরপাড়ার মো. হবি মিয়ার পিতা মৃত আব্দুর রাজ্জাক, মিজানুর রহমান ওরফে মিজান এর পিতা মো. হবি মিয়া, মো. আজগর আলীর পিতা মৃত শুকুর মিয়া, খলাপাড়ার মো. ফারুক মিয়ার পিতা মৃত বুধায় ওরফে হাজী বজলুর রহমান, মো. উজ্জল মিয়ার পিতা মৃত নূরুল ইসলাম, মো. শওকত মিয়ার পিতা মৃত মহরম মিয়া, মো. জমশেদ আলীর পিতা মৃত মহরম মিয়া, মো. বাছির মিয়ার পিতা মৃত মহরম মিয়া, মো. লিয়াকত আলীর পিতা মৃত মহরম মিয়া, মো. ইদু মিয়ার পিতা মৃত হোসেন আলী ওরফে হাসান আলী, মো. রাকিব মিয়ার পিতা মৃত ফারুক মিয়া, মো. হীরা মিয়ার পিতা মৃত নূরুল ইসলাম, মো. আব্দুর রশিদ এর পিতা মৃত গাজী মিয়া, মো. খোকন মিয়ার পিতা আব্দুর রশিদ, মো. খায়রুল ইসলাম এর পিতা মো. আব্দুর রশিদ, মো. আশিদ মিয়ার পিতা মৃত গাজী মিয়া, মো. রতন মিয়ার পিতা মো. আবু তাহের, মো. নবী হোসেন এর পিতা মো.  আবু তাহের, মহজ উদ্দিনওরফে মফিজ উদ্দিন এর পিতা মৃত লায়েছ মিয়া এবং লুন্দিয়া গ্রামের মাসুদ মিয়ার পিতা হাজী শাহেজ মিয়া।

গ্রেপ্তারের পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৭ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে ভৈরব উপজেলার আগানগর ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামে এলাকার আধিপত্য বিস্তার ও মামলা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে উভয় পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের হয়। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৩৫/৪০ জন গুরুতর আহত হয়।

একপক্ষের মকবুল হোসেন নামে একজন ঘটনাস্থলে নিহত হওয়ার সংবাদ ছড়িয়ে পড়লে সংঘর্ষের তীব্রতা বৃদ্ধি পায়। দফায় দফায় উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ চলে।

পরে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঘটনাস্থল হতে অনুমান এক কিলোমিটার দূরত্বে উভয়পক্ষের সংঘর্ষে লুন্দিয়া শেখপাড়া গ্রামের শেখ পাভেল ঘটনাস্থলে নিহতসহ উভয়পক্ষের ৪০/৫০ জন গুরুতর আহত হয়।

থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষের পর নিহত পক্ষের লোকজন উত্তেজিত হয়ে প্রতিপক্ষের প্রায় ১০০/১৫০ বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে।

উভয়পক্ষ পরস্পরকে আসামি করে থানায় একাধিক মামলা করে। এর মধ্যে দুইটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় থানায় পৃথক দুইটি মামলা করা হয়।

এর মধ্যে একটি মামলায় (নং-৩১(০৪)২১) এজাহারনামীয় ৯১ জনসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনকে আসামি করা হয় এবং অপর মামলায় (নং-৩২(০৪)২১) এজাহারনামীয় ১১৪ জনসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জনকে আসামি করা হয়।

দাঙ্গাসহ খুন মামলা সিআইডির সিডিউল ভুক্ত হওয়ায় স্ব-উদ্যোগে মামলা দুইটি গত ২৯ এপ্রিল অধিগ্রহণ করে পুলিশ পরিদর্শক সুনীল কুমার দাস তদন্তভার গ্রহণ করে তদন্তকাজ শুরু করেন।

সিআইডি সূত্র জানায়, তদন্তকালে উভয় মামলার ঘটনাস্থল হতে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দা-বল্লম, লোহার রড, কুড়াল ইত্যাদি উদ্ধারপূর্বক জব্দ তালিকা মূলে জব্দ করা হয়। তদন্তকালে শেখ পাভেল (২৮) হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলার এজাহারনামীয় ১০নং আসামি ইয়াহিয়া মেম্বার (৬২) কে গত ৩ মে গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

এরপর দেশীয় অস্ত্র রামদা ও তলোয়ারসহ এজাহার নামীয় ২০নং আসামি দ্বীন ইসলাম ও তার পুত্র সন্ধিগ্ধ আসামি শিপন মিয়াকে গত ২৬ মে গ্রেপ্তার করা হয়।

একই মামলার আসামি মাসুদ মিয়াকে বুধবার (৯ জুন) গ্রেপ্তার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

এছাড়া সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলা টিমের তৎপরতায় বুধবার (৯ জুন) এই মামলার এজাহারনামীয় ৫৭ জন আসামি স্বেচ্ছায় আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

অপরদিকে মকবুল হোসেন (৪০) হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলায় বুধবার (৯ জুন) কিশোরগঞ্জ সদর থানা এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এছাড়া সিআইডি কিশোরগঞ্জ জেলার তৎপরতার কারণে এই মামলার পলাতক ৪৪ জন আসামি বুধবার (৯ জুন) আদালতে আত্মসমর্পণ করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কিশোরগঞ্জ জেলা সিআইডির পুলিশ পরিদর্শক সুনীল কুমার দাস জানান, বুধবার (৯ জুন) দুই মামলায় আদালতে আত্মসমর্পণ করা ১০১ জন আসামি এবং সিআইডির হাতে গ্রেপ্তার হওয়া ২০ জন আসামিসহ মোট ১২১ জন আসামিকে আদালত কারাগারে পাঠিয়েছেন। উভয় মামলা তদন্তাধীন। অবশিষ্ট পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের জোর চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর