কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হোসেনপুরে ইউএনও’র হস্তক্ষেপে এসএসসি ফর্ম ফিলাপের সুযোগ পেলো দরিদ্র তিন শিক্ষার্থী


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ২৩ জুন ২০২১, বুধবার, ৪:০৬ | সম্পাদকের বাছাই  



কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাবেয়া পারভেজ এর হস্তক্ষেপে এসএসসি ফর্ম ফিলাপের সুযোগ পেয়েছে দরিদ্র তিন শিক্ষার্থী। পড়ালেখা বন্ধ হওয়ার উপক্রম থেকে রক্ষা করতে তিন শিক্ষার্থীর পাশে দাঁড়ানোয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে প্রশংসায় ভাসছেন ইউএনও রাবেয়া পারভেজ।

তিন শিক্ষার্থীর একজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, তার বাবা অন্যের জমিতে বর্গা চাষ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। ফর্ম ফিলাপ করার টাকা ছিল না তার বাবার কাছে।

সে একজনের কাছ থেকে ধার-কর্জ করে ২ হাজার ৪০০ টাকা নিয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে ফর্ম ফিলাপ করতে গেলে ওই টাকায় ফর্ম ফিলাপ হবে না বলে ৩ হাজার ৩০০ টাকা নিয়ে আসার কথা বলে তাদেরকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়।

জানা যায়, উপজেলার আবদুল আজিজ উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ব্যবসায় শিক্ষা শাখার তিন শিক্ষার্থী দারিদ্রের কারণে এসএসসি ফর্ম ফিলাপ বাবদ ৩ হাজার ৩০০ টাকা পরিশোধ করতে না পারায় অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে। টাকা দিতে না পারায় ফর্ম ফিলাপে নির্দিষ্ট সময়ও ফুরিয়ে যায়।

হোসেনপুরের ইউএনও রাবেয়া পারভেজ বিষয়টি জানতে পেরে পরে মঙ্গলবার (২২ জুন) ওই তিন শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষা সহায়তার ফান্ড থেকে প্রত্যেককে ২ হাজার ৫০০ টাকা করে সহায়তা প্রদান করেন।

এছাড়া সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে দায়িত্ব নিয়ে তাদের ফর্ম ফিলাপ করার ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেন ইউএনও রাবেয়া পারভেজ।

ফলে তারা বুধবার (২৩ জুন) বিদ্যালয়ে এসএসসি ফর্ম ফিলাপ করতে সক্ষম হয়।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের গত ২১ মার্চ তারিখের স্মারক নং ৩৪১/মাধ্য-পরী/৮৮/১৩১৩ থেকে জানা যায়, বিজ্ঞান শাখায় বোর্ড ফি ১৫০৫ টাকা ও কেন্দ্র ফি বাবদ ৪৬৫ টাকাসহ মোট ১ হাজার ৯৭০ টাকা এবং ব্যবসায় শিক্ষা ও মানবিক শাখায় ১ হাজার ৪১৫টাকা ও কেন্দ্র ফি বাবদ ৪৩৫ টাকাসহ ১ হাজার ৮৫০ টাকা নির্ধারণ করা হয়।

শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আমিরুল ইসলামের সাক্ষরিত চিঠিতে প্রতিষ্ঠান প্রধানসহ স্থানীয় মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসকসহ এ রকম একাধিক কর্মকর্তাদের এর অনুলিপি প্রেরণ করে সর্তক করে চিঠিতে নির্দেশাবলীতে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ এর কারণে কোন ক্রমেই ২০২১ সালের বেতন ও সেশনচার্জ নেওয়া যাবে না।

তিন শিক্ষার্থীর ফর্ম ফিলাপ নিশ্চিত করার বিষয়ে ইউএনও রাবেয়া পারভেজ তাঁর অফিসিয়াল ফেসবুক আইডি ইউএনও হোসেনপুর এ লিখেন, ১০ম শ্রেণির বাণিজ্য বিভাগের তিনজন ছাত্র অর্থাভাবে এসএসসি পরীক্ষার ফরম ফিলাম করতে পারেনি। স্কুল প্রধান কোন ব্যবস্থা নেন নি বরং তাদের বাদ দিয়েই অন্যান্য সকল ছাত্রের ফরম ফিলাম কার্যক্রম সম্পন্ন করে বোর্ডে পাঠিয়ে দিয়েছেন।

ছাত্ররা স্কুলে গিয়ে জানতে পারেন ফরম ফিলাপের নির্ধারিত তারিখ শেষ হয়ে গেছে৷ আর্থিক সংকট ও স্কুল প্রধানের দুর্ব্যবহারের অভিযোগ করেন।

প্রধান শিক্ষককে ডাকা হয় এবং তার দায়িত্ব সম্পর্কে তাকে সচেতন করা হয়েছে। দায়িত্ব নিয়ে ছাত্রদের ফরম ফিলাপ করার ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

যেখানে সরকার শতভাগ শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য উপবৃত্তি, বিনামূল্যে বই বিতরণ,  মিড ডে মিল চালুসহ বিভিন্ন কার্যক্রম চালাচ্ছে সেখানে শুধু মাত্র স্কুল কর্তৃপক্ষের অবহেলা, দায়িত্বহীনতা জন্য আমাদের নিয়মিত ছাত্রগুলো ঝরে পরতে পারে না। এখানে অবহেলার কোন সুযোগ নাই।

আর্থিক বিষয় স্কুল কমিটি/ সভাপতি/ সমাজের দানশীল ব্যক্তি এবং অবশেষে সম্ভব না হলে প্রশাসনের সহযোগিতা নেয়ার সুযোগ আছে। স্কুল কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব তাদের ছাত্রদের যাবতীয় প্রশাসনিক কর্মকাণ্ড সঠিকভাবে যথাসময়ে সম্পন্ন করা।

উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক করা হলো এবং ছাত্রদের শিক্ষা দানের পাশাপাশি তাদের প্রশাসনিক যাবতীয় কর্মকাণ্ডে সহযোগিতা ও দায়িত্ব নিয়ে তা করে দেয়ার অনুরোধ করা হলো।

ফরম ফিলাপের টাকা না থাকায় তিনটি ছাত্র এসএসসি পরীক্ষা দিতে পারবে না- এর চেয়ে দুঃখজনক আর কি হতে পারে!

অবশেষে উপজেলা পরিষদের শিক্ষাবৃত্তি কার্যক্রম হতে তিনজন ছাত্রকে তাদের ফরম ফিলাপের জন্য আর্থিক সহায়তায় চেক আজ তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

অভিযোগের বিষয়ে আবদুল আজিজ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. হুমায়ুন কবির বলেন, ওরা ২৫০০ টাকা করে নিয়ে আসছিল ফরম ফিলাপের জন্য। এর পর আর যোগাযোগ না করায় তাদের ফরম ফিলাপ করা সম্ভব হয়ে উঠে নি।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর