কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ, আরো ৪৭ জন শনাক্ত, সদরেই ৩১১ রোগী


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২৩ জুন ২০২১, বুধবার, ৯:০৫ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ। জেলার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সর্বশেষ বুধবার (২৩ জুন) রাতে প্রকাশিত রিপোর্টেও সংক্রমণের উর্ধ্বগতির ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে। এদিনও করোনার রুদ্রমূর্তি যেন গত বছরের ভয়ঙ্কর চেহারার বার্তা দিচ্ছে।

সর্বশেষ রিপোর্টে জেলায় মোট ৪৭ জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর বিপরীতে করোনাভাইরাস মুক্ত হয়ে জেলায় এদিন সুস্থ হয়েছেন মোট ২০ জন। তবে জেলায় নতুন কোন মৃত্যু নেই।

এ পরিস্থিতিতে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা আরো ২৭ জন বেড়েছে। আগের দিন মঙ্গলবার (২২ জুন) জেলায় বর্তমান আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ৩৮৮ জন। ফলে বুধবার (২৩ জুন) বর্তমান রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে মোট ৪১৫ জন।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ৪৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩৪ জন শনাক্ত হয়েছে।

এছাড়া বাকি ১৩ জনের মধ্যে হোসেনপুর উপজেলায় ১ জন, তাড়াইল উপজেলায় ২ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৩ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ২ জন, ভৈরব উপজেলায় ২ জন এবং ইটনা উপজেলায় ৩ জন শনাক্ত হয়েছে।

ফলে শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে শীর্ষে থাকা কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে।

রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় বর্তমান মোট রোগী ৪১৫ জনের মধ্যে ৩১১ জনই কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায়। আগের দিন এ সংখ্যা ছিল ২৯৪ জন।

এছাড়া জেলায় করোনায় মোট মৃত্যু ৮৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

দুই উপজেলা বর্তমানে করোনাশূন্য থাকায় বাকি ১০ উপজেলা মিলিয়ে বর্তমান রোগীর সংখ্যা ১০৪ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাবে হাসপাতালটির প্রি-আইসোলেশনে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ মঙ্গলবার (২২ জুন) ও বুধবার (২৩ জুন) সংগৃহীত মোট ১৬১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪৪ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এ রিপোর্টে মোট ৩২৯ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল দেওয়া হয়েছে।

বাকি ১৬৮ জনের মধ্যে ৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে। সেখানে মঙ্গলবার (২২ জুন) এই ৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে সবারই কোভিড-১৯ নেগেটিভ এসেছে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল এবং পাকুন্দিয়া, ইটনা ও ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ১০৭ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৩ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ২০ জনের মধ্যে ১৭ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার।

এছাড়া বাকি ৩ জন কুলিয়ারচর উপজেলার।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৬৮ জন যাদের মধ্যে ৯ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৯ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ৪ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৫৩৮৭ জন শনাক্ত, ৪৮৮৫ জন সুস্থ এবং ৮৭ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ৪১৫ জন। তাদের মধ্যে ৩২ জন হাসপাতাল ও ৩৮৩ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

জেলার মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম এ দুই হাওর উপজেলায় বর্তমানে করোনা আক্রান্ত কোন রোগী নেই।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ৪১৫ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ৩১১ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৬ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১১ জন, তাড়াইল উপজেলায় ১২ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৭ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৯ জন, ভৈরব উপজেলায় ১৩ জন, নিকলী উপজেলায় ২ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৯ জন এবং ইটনা উপজেলায় ৩ জন রয়েছেন।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর শনিবার (১৯ জুন) থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৬৮৫ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় ১৮৫ জন এ ভ্যাকসিন নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ২৭৭ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এর মধ্যে গত ২৪ ঘন্টায় ১০ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর