কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কটিয়াদীতে শিশু হত্যার ঘটনায় মামলা, আলামত উদ্ধার, দাফন


 মো. রফিকুল হায়দার টিটু, কটিয়াদী | ৩ জুলাই ২০২১, শনিবার, ১০:৩০ | কটিয়াদী 



কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী সাদিয়া আক্তার টুনি (১০) ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় টুনির পিতা চুন্ন মিয়া বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের আসামি করে কটিয়াদী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

পুলিশ অপরাধীদের চিহ্নিত করতে এলাকার রুবেল (২০), সাব্বির (২২), রুবেল উরুফে বুলেট (২৩), ফজর আলী (৫০), কাঞ্চন (৫২), গোলাপ (৫০) ও জামাল (৫০) কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য শুক্রবার (২ জুলাই) রাতেই থানায় নিয়ে যায়।

এদিকে শনিবার (৩ জুলাই) ময়নাতদন্তের পর পরিবারের নিকট লাশ হস্তান্তর করলে গ্রামের হাজার হাজার নারী পুরুষ সাদিয়া আক্তার টুনিকে শেষবারের মতো এক নজর দেখার জন্য তার বাড়িতে ভিড় করে।

এ সময় সমবেত গ্রামবাসী দ্রুততম সময়ে এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

বিকালে নামাজে জানাযা শেষে লাশ উপজেলার লোহাজুরী ইউনিয়নের দক্ষিণ লোহাজুরী গ্রামের পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়।

লোহাজুরী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি নুরুল ইসলাম বিএসসি ও কটিয়াদী উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মূছা মারুয়া বলেন, প্রভাবশালীর আত্মীয়ই হোক বা যে দলেরই হোক অপরাধীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

উল্লেখ্য, শুক্রবার (২ জুলাই) সকালে মাছ ধরতে সাদিয়া আক্তার টুনি পিতার সাথে নদীতে যায়। কিছুক্ষণ পর বৃষ্টি শুরু হলে মেয়েকে চুন্নু মিয়া বাড়ি চলে যেতে বলেন।

বাড়িতে ফেরার পথে টুনি নিখোঁজ হয়। পরে বেলা ১১টার দিকে পাটক্ষেত থেকে তার হাত-পা বাঁধা, গলায় ওড়না প্যাঁচানো মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

শনিবার (৩ জুলাই) সকালে র‌্যাব, পিবিআই, সিআইডি ও পুলিশের বিশেষ টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

কটিয়াদী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এসএম শাহাদত হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে একজোড়া স্যান্ডেল উদ্ধার করা হয়েছে। ৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আনা হয়েছে। তাদেরকে বিভিন্ন কৌশলে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

আশা করি, দ্রুততম সময়েই অপরাধীদের সনাক্ত করতে সক্ষম হবো।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর