কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নজরকাড়া দেবকাঞ্চন


 লেখা ও ছবি: নূর আলম গন্ধী | ১৩ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ৩:১৮ | রকমারি 



কাঞ্চন ফুলের মাঝে দেবকাঞ্চন রং-রূপ আর সুগন্ধ সব মিলে অতুলনীয় ফুল। আর ফুলের এ ভিন্নতার ফলে একে আলাদা ভাবে চেনা যায়। গাছ দেখে এটিকে আলাদাভাবে চেনা মুশকিল। কারণ কাঞ্চনের সবকটি প্রজাতির গাছ দেখতে প্রায় একই রকম।

দেবকাঞ্চনের আদিনিবাস হিমালয়ের পাদদেশ ও আসামের পাহাড়ি অঞ্চল। তবে চীন, শ্রীলঙ্কা ও মালেশিয়ায় দেবকাঞ্চনের দেখা পাওয়া যায় এবং বাংলাদেশে এর বিস্তার বহুকাল আগের।

পরিবার Caesalpinaceae, উদ্ভিদতাত্ত্বিক নাম Bauhinia purpurea.

দেবকাঞ্চন ছোট আকার-আকৃতির বৃক্ষ। গাছের উচ্চতা গড়ে ৮ থেকে ১০ মিটার হয়ে থাকে। গাছের কাণ্ড খাট। কাণ্ড ও শাখা-প্রশাখা বেশ শক্ত মানের এবং ছড়ানো। তবে মাঝে মধ্যে বড় আকৃতির গাছও চোখে পড়ে।

অর্ধ চিরসবুজ ও পত্রমোচী বৃক্ষ। শীতের শেষে গাছের সমস্ত পাতা ঝরে যায় এবং বসন্তের শেষে গাছে নতুন পাতা গজায়।

এর ফুল ফোটার মৌসুম হেমন্তকাল। এ সময়ে গাছের সমস্ত শাখা-প্রশাখা ফুলে ফুলে ভরে যায়। হেমন্তের শুরুতে ফুল ফোটা শুরু হয় এবং ব্যাপ্তি শীতের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত।

ফুল ফুটন্ত গাছ খুবই নজরকাড়া। ফুল রঙে সাদা বা বেগুনি। ফুলে নমনীয় কোমল পাপড়ি পাঁচটি যা অসমান, লম্বাটে ও মুক্ত। এর ফুল ৬ থেকে ৮ সেন্টিমিটার চওড়া।

ফুলে রয়েছে মিষ্টি সুগন্ধ। ফুলের মাঝের অংশে কাস্তের মতো বাঁকা পরাগ অবস্থিত। বিস্তৃত শাখা-প্রশাখার অগ্রভাগে এক বা একাধিক ফুল ফুটতে দেখা যায়।

গাছের পাতা সবুজ, শিরা-উপশিরা স্পষ্ট। এর পাতার অন্যরকম বৈশিষ্ট একই বোঁটার পাতা মাঝে দু’ভাগে বিভক্ত থাকে। আবার দুটি পাতা জোড়া দিলে একটি অন্যটির সাথে সমানে সমান। পাতার অগ্রভাগ ভোঁতা।

ফুল শেষে গাছে ফল হয়, ফলে বীজ হয়। প্রতি ফলে ১২ থেকে ১৬ টি বীজ থাকে। ফল দেখতে শিমের মতো চ্যাপ্টা, রং প্রথমে সবুজ ও পরিপক্কতা এলে কালচে রং ধারণ করে এবং শুকিয়ে গিয়ে এক সময়ে আপনা আপনিই ফেটে গিয়ে বীজ গুলো চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে।

পরিপক্ক বীজের রং কালচে খয়েরি। গাছ বেশ কষ্ট সহিষ্ণু। বীজ থেকে এর বংশ বিস্তার করা হয়। দেবকাঞ্চনের রয়েছে ভেষজ নানান রকম গুণাগুণ।

উঁচু ভূমি, রৌদ্রউজ্জ্বল পরিবেশ থেকে হাল্কাছায়া যুক্ত স্থান ও প্রায় সব ধরনের মাটিতে এ ফুল গাছ জন্মে।

আমাদের দেশের কোন কোন বসত বাড়িতে বা প্রতিষ্ঠানের বাগানে, বিভিন্ন সড়ক-মহাসড়কের আইল্যান্ড, পার্ক, উদ্যান, বন-জঙ্গল ও পাহাড়ি এলাকায় দেবকাঞ্চন ফুল গাছ চোখে পড়ে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর