কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনা সুরক্ষায় পাকুন্দিয়ায় মসজিদে পুলিশের প্রচারণা


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৬ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ৬:৩৩ | পাকুন্দিয়া  



করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতা বাড়াতে এবং সর্বস্তরের মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে উদ্ধুদ্ধ করতে কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায় মসজিদ ভিত্তিক প্রচারণা অব্যাহত রেখেছে থানা পুলিশ।

ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) এর নির্দেশে কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) এর দিক-নির্দেশনায় উপজেলার বিভিন্ন মসজিদে করোনা সচেতনতায় এ প্রচারণা চালাচ্ছে পাকুন্দিয়া থানা পুলিশ।

মসজিদ ভিত্তিক প্রচারণায় শুক্রবার (১৬ জুলাই) জুমআর নামাজের খুতবার সময় মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে সচেতনতামূলক বক্তব্য রেখেছেন পাকুন্দিয়া থানার ওসি মো. সারোয়ার জাহান, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নাহিদ হাসান সুমন এবং অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তাগণ।

তারা মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে রাখা বক্তব্যে করোনার ভয়াবহ ছোবল থেকে বাঁচতে সবাইকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি সবাইকে মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করা এবং স্বাস্থ্যবিধি ও সরকারি বিধিনিষেধ মেনে চলার অনুরোধ জানিয়েছেন।

পাশাপাশি আসন্ন ঈদুল আযহা পালনের কোলাকুলি না করা এবং স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করার অনুরোধ জানানো হয়।

এছাড়া পশুর হাটে জালনোট চক্রের হাত থেকে সতর্ক থাকা ও সরকারি নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানান পুলিশ কর্মকর্তাগণ।

পাকুন্দিয়ার হোসেন্দী বাজার জামে মসজিদে জুমআর নামাজে অংশগ্রহণ ও সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন পাকুন্দিয়া থানার ওসি মো. সারোয়ার জাহান।

ওসি মো. সারোয়ার জাহান তাঁর বক্তব্যে বলেন, আমরা এক ক্রান্তিকালে দাঁড়িয়ে আছি। করোনা মহামারি সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে। গতকাল বাংলাদেশে ২২৬ জন লোক এই করোনায় মারা গেছেন। আমরা তাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত ও শান্তি কামনা করছি।

ওসি বলেন, করোনাভাইরাস গ্রামে-গঞ্জে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। তাই আপনারা বিনা প্রয়োজনে কেউ ঘর থেকে বের হবেন না।

অযথা হাটে-বাজারে, চায়ের দোকানে আড্ডা দিবেন না। কোন জরুরী কারণে যদি ঘর থেকে বের হওয়ার প্রয়োজন হয় অবশ্যই মাস্ক ব্যবহার করবেন।

বাসায় থাকলে ঘন ঘন হাত ধুবেন ও স্যানিটাইজার ব্যবহার করবেন। একে অপরের সাথে হ্যান্ডশেক ও কোলাকুলি করা থেকে বিরত থাকুন। অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে।

ওসি মো. সারোয়ার জাহান বলেন, সরকারি বিধিনিষেধ মেনে চলতে হবে এবং জ্বর, ঠান্ডা, মাথাব্যথা, কাশি, পাতলা পায়খানা এমন কোন উপসর্গ কারো মাঝে থাকলে অবশ্যই নমুনা পরীক্ষা করাতে হবে ও নিকটস্থ হাসপাতালে যেতে হবে। যতটা সম্ভব পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে।

করোনা মহামারিতে অসহায়, দুস্থ ও কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর অনুরোধ জানিয়ে ওসি মো. সারোয়ার জাহান বলেন, ঈদুল আযহা মানে ত্যাগের ঈদ। সামর্থ্যবান ও বিত্তশালী মানুষরা সমাজের অসহায়, দুস্থ ও কর্মহীন মানুষের এই দুঃসময়ে তাদের পাশে দাঁড়ালে এটিই হবে ঈদুল আযহা উদযাপনের সর্বোৎকৃষ্ট প্রাপ্তি।

তিনি করোনার ভয়াবহ ছোবল থেকে বাঁচতে সবাইকে সচেতন হওয়ার পাশাপাশি মুসল্লিদের এ ব্যাপারে প্রচারণা চালানোর অনুরোধ জানান।

পাকুন্দিয়া বাজার জামে মসজিদে সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন পাকুন্দিয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) নাহিদ হাসান সুমন।

তিনিও তাঁর বক্তব্যে সবাইকে মাস্ক ব্যবহার এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ জানান। এছাড়া সরকারের বিধিনিষেধ মানার মাধ্যমে করোনা সংক্রমণ রোধে সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

এছাড়া থানা এলাকার বিট পুলিশের ১০টি বিটে বিট অফিসারগণ সংশ্লিষ্ট এলাকার মসজিদগুলোতে জুমআর নামাজের খুতবার সময় মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে সচেতনতামূলক বক্তব্য রাখেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর