কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ভয়াবহ করোনা, ৬ পজেটিভসহ ১৫ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১২৪


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১৮ জুলাই ২০২১, রবিবার, ১১:০৮ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠছে। বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে মৃত্যুর সংখ্যা। মৃত্যুর এ মিছিলে প্রতিদিন যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন নাম। সর্বশেষ করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৬ জন এবং উপসর্গ নিয়ে ৯ জন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন।

তাদের মধ্যে একজন অন্য জেলার করোনা পজেটিভ রোগী রয়েছেন। মারা যাওয়া মোট ১৫ জনের মধ্যে অন্য জেলার একজন পজেটিভসহ ৩ জন পজেটিভ ও ৯ জন সন্দেহজনক কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেছেন। এছাড়া বাকি ৩ জন পজেটিভ রোগী নিজ নিজ বাড়িতে মারা গেছেন।

রোববার (১৮ জুলাই) দিবাগত রাতে প্রকাশিত সর্বশেষ রিপোর্টে এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

এদিকে জেলায় নতুন করে ১২৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর বিপরীতে সুস্থ হয়েছেন ৫৯ জন।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ৬০ জন বেড়েছে।

আগের দিন শনিবার (১৭ জুলাই) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ১৪১৬ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ১৪৭৬ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত ১৪ জুলাই পাওয়া ২৩৫ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৮২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এ রিপোর্ট মোট ৪১১ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল দেওয়া হয়েছে।

বাকি ১৭৪ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ৪২ জনের নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে শনিবার (১৭ জুলাই) ৭৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল এবং হোসেনপুর, কুলিয়ারচর, ভৈরব ও ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ১০৩ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৩৬ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী, করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ৬ জনের মধ্যে ২ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার বাসিন্দা, ২ জন ভৈরব উপজেলার বাসিন্দা, ১ জন কুলিয়ারচর উপজেলার বাসিন্দা এবং ১ জন নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার বাসিন্দা।

কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় মারা যাওয়া ২ জনের মধ্যে একজন পুরুষ (৫৫) ও আরেকজন নারী (৫০)।

ভৈরব উপজেলায় মারা যাওয়া ২ জনের মধ্যে একজন পুরুষ (৭৫) ও আরেকজন নারী (৮৫)।

কুলিয়ারচর উপজেলায় মারা যাওয়া ব্যক্তি একজন পুরুষ (৬৫)।

অন্যদিকে জেলার বাইরের নরসিংদী জেলার মনোহরদী উপজেলার মারা যাওয়া ব্যক্তি একজন নারী (৭০)।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ১২৪ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৩৮ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ৮৬ জনের মধ্যে হোসেনপুর উপজেলায় ৭ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ২ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৬ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ২৫ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১০ জন, ভৈরব উপজেলায় ২২ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১০ জন, ইটনা উপজেলায় ৩ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন শনাক্ত হয়েছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ৫৯ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলার সর্বোচ্চ ৩১ জন রয়েছেন।

এছাড়া বাকি ২৮ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ২৬ জন ও কুলিয়ারচর উপজেলার ২ জন রয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৯৪ জন যাদের মধ্যে ৯ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৪১ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ২৩ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

হাসপাতালটিতে ৩ জন কোভিড-১৯ আক্রান্ত এবং ৯ জন সন্দেহজনক কোভিড-১৯ রোগী মারা গেছেন।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৭৫০৮ জন শনাক্ত, ৫৯০৬ জন সুস্থ এবং ১২৬ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ১৪৭৬ জন। তাদের মধ্যে ১০০ জন হাসপাতালে ও ১৩৭৬ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ১৪৭৬ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৬৭০ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৪৬ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৫৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১৪১ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৯২ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৩০ জন, ভৈরব উপজেলায় ১৭০ জন, নিকলী উপজেলায় ১৩ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৫২ জন, ইটনা উপজেলায় ৩০ জন, মিঠামইন উপজেলায় ১৫ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১২৬ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৪৫ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৫ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৮ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৭ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৭ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৬ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৭ জন, নিকলী উপজেলায় ৬ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৮ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ১৮ হাজার ৭৩ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ২৩৭৮ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় কেউ দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেননি।

এ পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৫৮ হাজার ৬১৩ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর