কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


হোসেনপুরে দা, বটি, চাপাতি, ছুরি বানাতে কর্মকারদের ব্যস্ত সময়


 মো. জাকির হোসেন, হোসেনপুর | ২০ জুলাই ২০২১, মঙ্গলবার, ৩:৩৯ | হোসেনপুর 



রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আযহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদ। এই সময়ে দা, বটি, চাপাতি, ছুরি বানাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরের কর্মকাররা। দম ফেলার মতো ফুসরতও নেই যেন তাদের।

এতদিনের লকডাউনের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে শত ব্যস্ততার মধ্য দিয়ে কিছু বাড়তি রোজগারের আশায় তারা মরিয়া। পরিবারের সুখের আশায় সারা রাত জেগে থেকে কাজ করেও তাদের ক্লান্তি নেই। কেননা কোরবানির ঈদেই তাদের কিছু আয় হয়।

প্রযুক্তির অত্যাধুনিক ছোঁয়ার মাঝেও কোরবানির পশু জবাই, চামড়া ছড়ানো ও মাংস কাটতে প্রয়োজন দা, বটি, ছুরি ও চাপাতি। বাপ-দাদার এ পেশায় এখনো হোসেনপুর উপজেলার আড়াইবাড়িয়া ইউনিয়নের তিনশোর মত কর্মকার সরাসরি নিয়োজিত।

তাদের নিখুঁত কর্মের সুনামের জন্য পাশের ময়মনসিংহের গফরগাঁও ও নান্দাইলের লোকজন এবং পাকুন্দিয়ার লোকজন ছুটে আসেন। তাদের পেশাগত আচরণও মুগ্ধ করে সকলকে।

শত পরিশ্রমের মাঝেও হাসি মুখে কথা বলে ক্রেতাদের মন জয় করার কারণে অনেকেই খুশি মনে তাদের কিছু বাড়তি টাকা দিতে দ্বিধাবোধ করেন না।

উপজেলার কামারপাড়ায় গিয়ে কথা হয় কর্মকার মো. রফিকুল ইসলাম, শরিফ মিয়া, দেলোয়ার হোসেন, আশরাফ মিয়াসহ বেশ কয়েকজনের সাথে।

তারা জানান, এমনিতে সারা বছর কাম কাজ অনেকে কমে গেছে। এর মধ্যে কয়দিন পর পর লোহার দাম বেড়ে যায়। এতে তারা বেকায়দায় পড়েন।

ভাল চালান থাকলে আগে থেকে লোহা কিনে রাখতে পারলে ভাল লাভ পাওয়া যেত বলেও বেশ কয়েকজন জানান।

তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বড় ছুরি ৮০০ টাকা, ছোট ছুরি ১৫০/২০০ টাকা, দা ৩০০ টাকা, বটি ৫০০/৬০০ টাকা এবং চাপাতি ৫০০/৬০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া শান দিতে ৫০ টাকা থেকে ১০০ টাকা করে তারা নেন।

পাকুন্দিয়া থেকে আসা রাকিবুল হাসান জানান, গরু জবাইয়ের জন্য তিনি ৮০০ টাকা দিয়ে একটি বড় ছুরি কিনছেন।

গফরগাঁও এর পাঁচবাগ থেকে নবী হোসেন চামড়া ছড়ানোর জন্য ২০০ টাকা করে দাম দিয়ে দুইটি ছুরি কিনছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর