কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ভৈরবে বিনোদন কেন্দ্রগুলো লোকারণ্য, স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত


 আফসার হোসেন তূর্জা, ভৈরব | ২৩ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ১২:০১ | ভৈরব 



চলমান করোনা মহামারীতে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে ঈদুল আজহার আনন্দ উপভোগ করতে কিশোরগঞ্জের ভৈরবের বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রগুলো হাজারো মানুষের ভিড়ে লোকারণ্য হয়ে উঠেছে। বিশেষ করে মেঘনা পাড়ের ত্রি-সেতু এলাকায় এই ভিড় বেশি দেখা গেছে।

ঈদের দিন বুধবার (২১ জুলাই) থেকে ঈদের পরেরদিন বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) বিকাল পর্যন্ত ভৈরবের মেঘনা নদীর পাড় ত্রি-সেতু এলাকা, মানিকদী কালী নদীর উপর নির্মিত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান সেতু, গোছামারা স্টীল ব্রীজ, সাদেকপুর ইউনিয়নের মেন্দীপুরে হাজার হাজার মানুষ ঘুরতে এসেছেন।

এসব স্থানে গেলে বোঝার কোনো উপায় নেই যে, দেশে করোনার মতো প্রাণঘাতী মহামারি বিরাজ করছে।

সকাল থেকেই এসব স্থানে লোকজনের উপস্থিতি দেখা যায়। আর বিকেল হলে এই লোক সমাগম বহুগুণ বেড়ে যায়।

ঈদের দিন মানুষের উপস্থিতি কিছুটা কম থাকলেও পরেরদিন বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) থেকে এসব স্থানে মানুষের পদচারণা বহুগুণ বেড়ে গেছে।

করোনাভাইরাসের মহামারির মধ্যেও পরিবার পরিজন নিয়ে বেরিয়ে পড়ছেন সকলেই। তরুণ-তরুণীদের পাশাপাশি শিশুসহ বিভিন্ন বয়সের মানুষের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে এসব স্থানে। স্বাস্থ্যবিধি পালনে তাদের মধ্যে কোনো আগ্রহ দেখা যায় নি।

এছাড়া মেঘনার বুকে দ্রুত বেগে এক পাশ থেকে আরেক পাশে ছুটে চলছে স্পিডবোট ও ইঞ্জিনচালিত নৌকা। হৈ-হুল্লোড়ে মেতে উঠছেন সবাই।

ছোট বড়, শিশু কিশোর, তরুণ-তরুণী এমনকি বৃদ্ধদেরও মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে মেঘনার পাড়। বিভিন্ন এলাকা থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে বেড়াতে আসছেন ভ্রমণকারীরা।

করোনাকালীন সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব ও মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশনা থাকলেও ঘুরতে আসা মানুষজন কোনো কিছুই যেন মানছেন না। অধিকাংশ মানুষের মুখে নেই মাস্ক ।

লকডাউনের শিথিলতার সুযোগে এমনটি হচ্ছে বলে মনে করছেন অনেকেই।

ঈদের দিন বুধবার (২১ জুলাই) বিকাল ও বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) সকাল থেকে বিকেলে ভৈরবের বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে এমন দৃশ্য দেখা গেছে।

কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এই চিত্র বুধবার (২১ জুলাই) থেকে শুরু হয়েছে। অবশ্য এর আগেও প্রতিদিন কম-বেশি ভ্রমণ পিপাসুরা মেঘনা নদীর পাড়, রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান সেতু, গোছামারা স্টীল ব্রীজ ও মেন্দীপুর এলাকায় ভিড় করছেন।

তবে ঈদের দিন থেকে উপস্থিতি ব্যাপকভাবে বেড়েছে। হাজারো মানুষের সমাগম হচ্ছে এসব এলাকায়। কেউ মোটর সাইকেল, কেউ প্রাইভেটকার আবার কেউ কেউ ইজিবাইকে করে ঘুরতে আসছেন এসব পর্যটক কেন্দ্রগুলোতে।

একই সাথে মেঘনা পাড়ে বসেছে বিভিন্ন ভাসমান দোকান। নানা রকম পণ্য দিয়ে সাজানো হয়েছে দোকানগুলো।

বিভিন্ন খেলনা, বাঁশি, বেলুন ও খাবারের দোকানের পাশাপাশি সেখানে নাগর দোলা, চরকাসহ বিভিন্ন বিনোদন সামগ্রীতে গাদাগাদি করে চড়ছে শত শত আগত নারী-পুরুষ ও শিশু। তাদের বেশির ভাগের মুখে মাস্ক নেই।

মেঘনা পাড়ে ঘুরতে আসা এক ভ্রমণকারী বলেন, দেশের সব বিনোদন কেন্দ্রগুলো সরকার বন্ধ করায় ঈদের আনন্দে মেঘনার পাড়ে হাজার হাজার মানুষের সমাগম হয়েছে। ভৈরব-আশুগঞ্জ সড়ক সেতু ও দুটি রেলসেতুও বাড়তি আকর্ষণের জোগান দেয় ভ্রমণকারীদের মনে। সেতুর উপর দাড়িয়ে নিচে বহমান মেঘনার ঢেউ যেন ঈদের আনন্দকে আরো বাড়িয়ে দেয়।

প্রতিদিনই কম-বেশি দর্শনার্থী বিনোদনের জন্য এখানে আসেন। তবে বছরের বিশেষ দিনে মানুষের পদচারণায় মুখরিত হয় এ মেঘনা নদীর পাড়।

জানা গেছে, প্রতিবছর ঈদ আসলে ভৈরবের বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে হাজার হাজার মানুষের সমাগম ঘটে। ভৈরব উপজেলা ছাড়াও পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে এখানে মানুষ ঘুরতে আসেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর