কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনার ভয়াল থাবা, একদিনে ৫ জনের মৃত্যু, ১৩২ জনের শনাক্ত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২৮ জুলাই ২০২১, বুধবার, ১০:৩৯ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটেই চলেছে। সর্বশেষ বুধবার (২৮ জুলাই) রাতে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় নতুন করে ১৩২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) ১২২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সর্বশেষ এ রিপোর্টে মোট ৪৭৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৩২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এর বিপরীতে এদিন জেলায় মোট ৮৬ জন সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৫ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

সর্বশেষ মারা যাওয়া ৫ জনের মধ্যে বাজিতপুর উপজেলার ২ জন, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ১ জন, কটিয়াদী উপজেলার ১ জন এবং কুলিয়ারচর উপজেলার ১ জন রয়েছেন।

তাদের মধ্যে চারজন পুরুষ এবং একজন নারী।

করোনায় মারা যাওয়া বাজিতপুর উপজেলার বাসিন্দা দুইজনই পুরুষ। তাদের বয়স যথাক্রমে ৮০ বছর ও ৪০ বছর।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার একজন নারী (৬৮), কটিয়াদী উপজেলার একজন পুরুষ (৭০) ও কুলিয়ারচর উপজেলার ১ জন পুরুষ (৮০)।

পাঁচজনই কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) মারা গেছেন।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ৪১ জন বেড়েছে।

আগের দিন মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ২০৭৬ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ২১১৭ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত শনিবার (২৪ জুলাই), রোববার (২৫ জুলাই), মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) ও বুধবার (২৮ জুলাই) পাওয়া ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৭২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

মোট ৪৭৫ জনের নমুনার মধ্যে বাকি ২৮৭ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ৬০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) ১০৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল এবং হোসেনপুর, করিমগঞ্জ, পাকুন্দিয়া, কুলিয়ারচর, ভৈরব, নিকলী, বাজিতপুর ও ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ১৮০ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৪৮ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ১৩২ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় সর্বোচ্চ ৩১ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ১০১ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৬ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৯ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৬ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১২ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ২২ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৪ জন, নিকলী উপজেলায় ৪ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ২৫ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ২ জন শনাক্ত হয়েছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ৮৬ জনের মধ্যে ৫৩ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার।

এছাড়া বাকি ৩৩ জন তাড়াইল উপজেলায় সুস্থ হয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৭৯ জন যাদের মধ্যে ৬ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৩৮ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ২৫ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

হাসপাতালটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৮৭১৪ জন শনাক্ত, ৬৪৫০ জন সুস্থ এবং ১৪৭ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ২১১৭ জন। তাদের মধ্যে ৮২ জন হাসপাতালে ও ২০৩৫ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ২১১৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৮৭০ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ১৫২ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৪৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩০ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২০৮ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩০৭ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৫৯ জন, ভৈরব উপজেলায় ২২৩ জন, নিকলী উপজেলায় ৩৩ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১১৯ জন, ইটনা উপজেলায় ৩২ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২৪ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১৬ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১৪৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫২ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৬ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১০ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৭ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৮ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১২ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৩৫ হাজার ৬৭৫ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৩৪৮৩ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

এছাড়া সোমবার (২৬ জুলাই) থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৬৮২ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ১০০ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

এ পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৮৭ হাজার ৬২৬ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৫৭০৬ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর