কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনার রুদ্রমূর্তি, আরো ৩ জনের মৃত্যু, ১৫৯ জনের শনাক্ত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার, ১২:২৬ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির অবনতি ঘটেই চলেছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) রাতে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় নতুন করে ১৫৯ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন বুধবার (২৮ জুলাই) ১৩২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সর্বশেষ এ রিপোর্টে মোট ৬১৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৫৯ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এর বিপরীতে এদিন জেলায় মোট ৫৬ জন সুস্থ হয়েছেন। এছাড়া জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

সর্বশেষ মারা যাওয়া ৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার ১ জন, হোসেনপুর উপজেলার ১ জন ও কটিয়াদী উপজেলার ১ জন রয়েছেন।

করোনায় মারা যাওয়া তিনজনই পুরুষ।

তাদের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার একজন পুরুষ (৭৫), হোসেনপুর উপজেলার একজন পুরুষ (৬৯) ও কটিয়াদী উপজেলার একজন পুরুষ (৪৩) রয়েছেন।

৩ জনই কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ১০০ জন বেড়েছে।

আগের দিন বুধবার (২৮ জুলাই) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ২১১৭ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ২২১৭ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত রোববার (২৫ জুলাই), সোমবার (২৬ জুলাই), মঙ্গলবার (২৭ জুলাই), বুধবার (২৮ জুলাই) ও বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) পাওয়া ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৭৬ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

মোট ৬১৬ জনের নমুনার মধ্যে বাকি ৪২৮ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ৮৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে বুধবার (২৮ জুলাই) ১৪৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১৩ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল এবং হোসেনপুর, করিমগঞ্জ, তাড়াইল, পাকুন্দিয়া, কটিয়াদী, কুলিয়ারচর, ভৈরব, বাজিতপুর, ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ২৮৫ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৭০ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ১৫৯ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় সর্বোচ্চ ৬২ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ৯৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ২৪ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৮ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৪ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১১ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১২ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৭ জন, নিকলী উপজেলায় ১ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৯ জন, মিঠামইন উপজেলায় ৫ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১৬ জন শনাক্ত হয়েছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ৫৬ জনের মধ্যে ৩৬ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার।

এছাড়া বাকি ২০ জন কুলিয়ারচর উপজেলায় সুস্থ হয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৮৮ জন যাদের মধ্যে ৯ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ৪৩ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ২৪ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

হাসপাতালটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৮৮৭৩ জন শনাক্ত, ৬৫০৬ জন সুস্থ এবং ১৫০ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ২২১৭ জন। তাদের মধ্যে ৭৯ জন হাসপাতালে ও ২১৩৮ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ২২১৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৮৫৭ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ১৫৯ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৪৪ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩৪ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২১৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩১৮ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৪৬ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৮৫ জন, নিকলী উপজেলায় ৩৪ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১২৮ জন, ইটনা উপজেলায় ৩২ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২৯ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৩২ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১৫০ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৩ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৭ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৯ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৭ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৮ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১২ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৩৯ হাজার ১৯৭ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৩৫২২ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

এছাড়া সোমবার (২৬ জুলাই) থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৭৪৪ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৬২ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

এ পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৯০ হাজার ৫৩ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ২৪২৭ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর