কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে করোনার দাপট, নতুন ১৫৮ জনের শনাক্ত, ২ জনের মৃত্যু


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ৩ আগস্ট ২০২১, মঙ্গলবার, ১১:১৫ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জ জেলায় করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতি উদ্বেগজনক আকার ধারণ করেছে। সর্বশেষ মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) রাতে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় নতুন করে ১৫৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আগের দিন সোমবার (২ আগস্ট) ১৮৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল।

সর্বশেষ এ রিপোর্টে মোট ৬৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এতে মোট ১৫৮ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে। এর বিপরীতে এদিন জেলায় মোট ৪৬ জন সুস্থ হয়েছেন।

এছাড়া করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ কেড়ে নিয়েছে আরো দুইটি তাজা প্রাণ।

জেলায় করোনায় সর্বশেষ মারা যাওয়া দুইজনই কিশোরগঞ্জের কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন এবং দুইজনই পুরুষ।

তাদের মধ্যে একজন ভৈরব উপজেলার (৬৩) এবং একজন কটিয়াদী উপজেলার (৮০)।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ১১০ জন বেড়েছে।

আগের দিন সোমবার (২ আগস্ট) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ২৬৭৩ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ২৭৮৩ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত ১৭ জুলাই, ২৪ জুলাই, ২৬ জুলাই, ২৮ জুলাই, ২৯ জুলাই, শনিবার (৩১ জুলাই), রোববার (১ আগস্ট) ও মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) পাওয়া ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৪০ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

মোট ৬৯৭ জনের নমুনার মধ্যে বাকি ৪০৯ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ১১৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে সোমবার (২ আগস্ট) ১১৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ১২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল, কিশোরগঞ্জ বক্ষব্যাধি ক্লিনিক এবং হোসেনপুর, পাকুন্দিয়া, কটিয়াদী, ভৈরব, নিকলী, বাজিতপুর ও ইটনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ৩৯২ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ১০৬ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ১৫৮ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৪ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ১০৪ জনের মধ্যে ভৈরব উপজেলায় ৩৩ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৫ জন, তাড়াইল উপজেলায় ১ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২০ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৪ জন, নিকলী উপজেলায় ২ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ২৫ জন, ইটনা উপজেলায় ২ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ১ জন শনাক্ত হয়েছেন।

নতুন সুস্থ হওয়া ৪৬ জনের মধ্যে ৬ জন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার।

এছাড়া বাকি ৪০ জনের মধ্যে ১৬ জন পাকুন্দিয়া উপজেলার, ২১ জন কটিয়াদী উপজেলার, ২ জন কুলিয়ারচর উপজেলার এবং ১ জন ইটনা উপজেলার সুস্থ হয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৯৫ জন যাদের মধ্যে ১০ জন আইসিইউতে এবং ১৫ জন এইচডিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ২৯ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ২৬ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

হাসপাতালটিতে করোনায় আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৯৭৬৮ জন শনাক্ত, ৬৮২২ জন সুস্থ এবং ১৬৩ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ২৭৮৩ জন। তাদের মধ্যে ৮৪ জন হাসপাতালে ও ২৬৯৯ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ২৭৮৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৮৮৪ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ২০৭ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৫৮ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৪৩ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ২৪৫ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৪২১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৬৩ জন, ভৈরব উপজেলায় ৫২৬ জন, নিকলী উপজেলায় ৪১ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৮৯ জন, ইটনা উপজেলায় ৩০ জন, মিঠামইন উপজেলায় ৩২ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৪৪ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১৬৩ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৫৯ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৮ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৯ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১০ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৩ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৭ জন, ভৈরব উপজেলায় ৩০ জন, নিকলী উপজেলায় ৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ১৩ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ৫৫ হাজার ৩৫০ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৪২৪৩ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

এছাড়া গত ২৬ জুলাই থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেওয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ১০১৬ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ১০০ জন এ ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন।

এ পর্যন্ত মোট ২ লাখ ১৭ হাজার ৭৮৬ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৫২৯৫ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর