কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ফ্যাশনেবল বোরকার জন্য নিখুঁত বোরকা হাউজ


 স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১, মঙ্গলবার, ১১:৫৬ | রকমারি 



দিন দিন নারীদের আগ্রহ বাড়ছে ফ্যাশনেবল বোরকায়। এখন দেশে অন্য কাপড়ের মতো বোরকা একটি অন্যতম ফ্যাশনে পরিণত হচ্ছে। সেলোয়ার কামিজের আদলে প্রতিনিয়ত বাজারে আসেছে হরেক ডিজাইনের বোরকা।

এই সেক্টরকে কেন্দ্র করে ঢাকার কামরাঙ্গীর চরে গড়ে ওঠেছে বোরকা তৈরির বহু কারখানা। আর রাজধানীর সদরঘাট, পাটুয়াটুলী, ওয়াইজঘাট, নবাববাড়ীতে গড়ে উঠেছে শত শত শোরুম।

এসব মার্কেটে শোভা পাচ্ছে হাজার রকমের বোরকা। খিমার, আফগান, আবায়া, গ্রাউন নারীদের পছন্দের শীর্ষে। গরমে প্রিন্টের বোরকা আর শীতে চেরী কাপড়ের খিমারের জুড়ি নেই।

কামরাঙ্গীর চরের বড়গ্রামে শতাধিক বোরকার কারখানা রয়েছে। এর একটি নিখুঁত বোরকা হাউজ।

এ কারখানায় রাত দিন সমানতালে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের বোরকা। কারো সঙ্গে কারো কথা বলার সময় নেই।

কারখানার বেশিরভাগ কর্মীই নারী। সবাই কাজে মশগুল। কেউ কাপড় কাটছেন। আবার কেউ সেলাই কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। দক্ষতা অনুযায়ী সবার কাজ ভাগ করা। যিনি যে কাজের জন্য নিয়োজিত, তিনি শুধু সেই কাজই করেন।

এদের একজন শম্পা। বোরকা সেলাই করা তার কাজ। তিনি বলেন, আগে যে কারখানায় কাজ করতাম, সেখানে দিনে চার পাঁচটা বোরকা বানাতাম। কম করলে মালিক রাগারাগি করতেন। কিন্তু এই কারখানায় পুরো উল্টো। তাড়াহুড়ো করা নিষেধ।

বোরকার সেলাই করতে হয় নিখুঁতভাবে। সুতার কাজ আঁকাবাঁকা হওয়া যাবে না। প্রতিটি বোরকা শোরুমে  ঢোকানোর আগে চেক করা হয় কয়েক দফা। কোনো বোরকায় সামন্য ত্রুটিও ধরা পড়লে, সেটি বাদ। মালিকের অর্ডার একদিনে দুটোর বেশি বোরকা বানানো যাবে না।

নিখুঁত বোরকা হাউজে প্রতিদিনই  তৈরি হচ্ছে নিত্য নতুন বোরকা। কমপ্লিট হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চলে যায় বোরকার বিখ্যাত পাইকারি মার্কেট পাটুয়াটুলীর মুন কমপ্লেক্সে। এই মার্কেটে অবস্থিত মায়ের দোয়া বোরকা মেলার শোরুমে। নিচতলার ৩৬ নম্বর দোকান।

এখান থেকে দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলার খুচরা বিক্রেতারা পাইকারি দরে ক্রয় করেন। প্রতিটি বোরকা সাজানো হয় শোরুমের থরে থরে। নতুন ডিজাইনের কোনো বোরকা সাত দিনের বেশি স্টকে থাকে না।

কথা হয় তরুণ উদ্যোক্তা নিখুঁত ব্র্যান্ডের কর্ণধার ইউসুফ মোল্লার সঙ্গে। তিনি বলেন, আমাদের এই শোরুম থেকে নিখুঁত ব্র্যান্ডের প্রতিটি বোরকা চলে যায় দেশের সব জেলা-উপজেলায়। আমরা সাধারণত পাইকারি বিক্রি করে থাকি। তবে খুচরা বিক্রি করার জন্য এখনো কোনো শোরুম না থাকায় এখান থেকে খুচরাও বিক্রি করি।

বোরকার কাপড় ক্রয়ের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করি। যেই সেই কাপড় আমরা অ্যালাউ করি না। বাজারে বিভিন্ন ধরণের কাপড় রয়েছে। কাপড়ের মান অনুযায়ী বোরকার মূল্য নির্ধারিত হয়। কাপড়ের কোয়ালিটি কমপ্রোমাইজ করলে দাম কমে যাওয়াটা স্বাভাবিক।

তিনি আরো বলেন,  আমার ইচ্ছা ৬৪ জেলায় ৬৪টি নিখুঁত ব্র্যান্ডের শোরুম করব। আর এসব শোরুমের দায়িত্ব দেয়া হবে স্ব স্ব জেলার তরুণদেরকে। এক্ষেত্রে তাদের থাকতে হবে প্রচণ্ড আগ্রহ ও কাজ করার মানসিকতা। দুই তিন বছরের মধ্যেই তিনি একজন সফল ব্যবসায়ী হিসেবে সমাদৃত হবেন।

www.nikutburka.blogspot

০১৮৩৬২৭৭৩৬৩/০১৮৭৭৩৮৮০৫২


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর