কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


‘মাজহারুন-নূর সম্মাননা’ ও বিকাশ মজুমদার


 ড. মাহফুজ পারভেজ | ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ১২:৩০ | বিশেষ নিবন্ধ 



ব্রিটিশবিরোধী সংগ্রামী, ভাষাসৈনিক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক কিশোরগঞ্জের বরিষ্ঠ চিকিৎসক ডা. এ.এ. মাজহারুল হক ও সমাজসেবী নূরজাহান বেগম প্রতিষ্ঠিত কিশোরগঞ্জের সমাজ-সংস্কৃতি-সাহিত্য বিষয়ক সমীক্ষাধর্মী মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা যখন আমি ২০১৫ সালে প্রবর্তন করি, তখন লিখিত আকারে প্রথম যে দুটি সমর্থনপুষ্ট প্রশংসা বাণী আমার হস্তগত হয়, তার একটির রচয়িতা ও প্রেরক ছিলেন সদ্য-প্রয়াত রাজনীতিবিদ-আইনজীবী অ্যাডভোকেট বিকাশ মজুমদার।

উল্লেখ্য, ‘মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা’র সূচনালগ্ন থেকেই জড়িত আছেন আমার বন্ধু, সংসদ সদস্য প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। নিবিড়ভাবে সংশ্লিষ্ট আছেন স্থানীয় বুদ্ধিজীবী ও সুশীল সমাজের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গ যেমন, অ্যাডভোকেট নাসিরউদ্দিন ফারুকী, অ্যাডভোকেট ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, অ্যাডভোকেট শাহ আজিজুল হক, মুক্তিযোদ্ধা-কমান্ডার আসাদউল্লাহ, শাহ ইসকান্দার আলী স্বপন, সাংবাদিক মোস্তফা কামাল, আনোয়ার হোসেন বাচ্চু ও আশরাফুল ইসলাম, শিক্ষক বদরুল হুদা সোহেল ও লুৎফুন নেসা চিনু, ডা. গোলাম হোসেন প্রমুখ।

‘মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা’র সাংগঠিক কাঠামো ও তৎপরতায় যুক্ত না থেকেও অ্যাডভোকেট বিকাশ মজুমদার আমাদের কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত ছিলেন, যা তিনি লিখিত আকারে প্রদানও করেছিলেন।

একই সময় আরেকজন লিখিত মতামত প্রদান করেন। তিনি কিশোরগঞ্জ শহরের বিশিষ্ট গ্রন্থপ্রেমী ও নিবিষ্ট পাঠক, রূপা মেডিকেল হলের দীলিপ কুমার বসাক।

১ম মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৫ ‘আলোর পথের যাত্রী: শিক্ষাবিদ-সাহিত্যিক প্রাণেশকুমার চৌধুরী’ অনুষ্ঠিত হওয়ার পর পরই তারা অভিমতমূলক চিঠি দুটি আমাকে প্রেরণ করেন এবং পরবর্তীতে ২য় মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৬ ‘দীপ্তিমান  শিক্ষকদম্পতি: অধ্যক্ষ মুহঃ নূরুল ইসলাম/খালেদা ইসলাম বড়আপা’ শীর্ষক সম্মাননা পুস্তিকায় দুটি চিঠিই পরিশিষ্টে সংযুক্ত হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ‘আলোর পথের যাত্রী: শিক্ষাবিদ-সাহিত্যিক প্রাণেশকুমার চৌধুরী’ শিরোনামে উদ্বোধনী ১ম সম্মাননা বক্তৃতাটি ১৫ মে, ২০১৫ শুক্রবার কিশোরগঞ্জ জেলা পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে ড. মাহফুজ পারভেজ কর্তৃক প্রদত্ত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সাংসদ প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক। সভাপতিত্ব করেন কমান্ডার, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, কিশোরগঞ্জ জেলা ইউনিট কমান্ড ও ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা মো. আসাদ উল্লাহ। আলোচনায় অংশ নেন কিশোরগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি, পি.পি. শাহ আজিজুল হক, আইনজীবী-রাজনীতিবিদ ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, আইনজীবি-সংস্কৃতিসেবী নাসিরউদ্দিন ফারুকী, অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল হক খান রতন প্রমুখ।

ব্রিটিশবিরোধী সংগ্রামী, ভাষাসৈনিক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক, কিশোরগঞ্জের বরিষ্ঠ চিকিৎসক ডা. এ.এ. মাজহারুল হক ও সমাজসেবী নূরজাহান বেগম প্রতিষ্ঠিত কিশোরগঞ্জের সমাজ-সংস্কৃতি-সাহিত্য বিষয়ক সমীক্ষাধর্মী ১ম মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৫ ‘আলোর পথের যাত্রী: শিক্ষাবিদ-সাহিত্যিক প্রাণেশকুমার চৌধুরী’ সম্পর্কে পাঠ-প্রতিক্রিয়া ও অভিব্যক্তি দুটি পাঠ করলে তাদের গভীর মননশীলতা ও পর্যবেক্ষণের প্রখরতা সম্পর্কে আঁচ করা সম্ভব হবে।

(এক)

প্রিয় ড. মাহফুজ পারভেজ,

সম্মাননা-বক্তা ও নির্বাহী পরিচালক, মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন

প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম শ্বিবিদ্যালয়।

অনুজ ভ্রাতৃপ্রতীম বিবেচনায় তোমাকে তুমি বলে সম্বোধন করছি, আশা করি মনোক্ষুণ্ন হবে না। আমার অতি প্রিয় ও শ্রদ্ধেয় শিক্ষক প্রফেসর প্রাণেশকুমার চৌধুরীর জীবন ও কর্ম নিয়ে তোমার প্রদত্ত ১ম মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৫, যা ‘আলোর পথের যাত্রী’ নামে মুদ্রিত হয়েছে, তা পাঠ করে অভিভূত ও মুগ্ধ হলাম। তাই ধন্যবাদের যান্ত্রিকতা পরিহার করে তোমাকে আমার আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি। আমার শিক্ষাগুরু শিক্ষাবিদ-সাহিত্যিক প্রফেসর প্রাণেশকুমার চৌধুরী যে একজন যথার্থই ‘আলোর পথের যাত্রী’, তা তুমি অত্যন্ত সুন্দর, সাবলীল, সুখপাঠ্য বাংলায় উপস্থাপন করতে পরিপূর্ণভাবে সক্ষম হয়েছ।

তুমি নিশ্চয় অবগত আছ যে, প্রবন্ধ-সাহিত্যে কিশোরগঞ্জের অত্যুজ্জ্বল গৌরব গাথা ও ঐতিহ্য রয়েছে। কিশোরগঞ্জের কৃতী সন্তান ‘মঙ্গল কাব্যের ইতিহাস’ রচয়িতা ড. আশুতোষ ভট্টাচার্য এ বিষয়ে জগত-জোড়া খ্যাতি ও সম্মানের অধিকারী। এক বিরাট জেনারেশন গ্যাপের অতিক্রমণে আমি তোমাকে তাঁর যোগ্য উত্তরসুরী ভেবে পুলকিত হচ্ছি।

প্রাণেশ স্যার সম্পর্কে তোমার যে মূল্যায়নটি আমাকে সবচেয়ে বেশি আকৃষ্ট করেছে, সেটা তোমার লেখা থেকে উদ্ধৃতি দিচ্ছি:

“প্রফেসর প্রাণেশকুমার চৌধুরী ক্ল্যাসিক্যাল আদর্শ শিক্ষকের একজন, যারা সংখ্যায় ক্রমশই কমে আসছেন। সমাজের আলোকায়নের পথে এটি অবশ্যই দুঃসংবাদ। আলোর পথের যাত্রী কমে গেলে আলোকিত সমাজ পাওয়া সত্যিই কঠিন। সর্ব-সাম্প্রতিক সমাজ বাস্তবতায় এ কথাটি মর্মে মর্মে উপলব্ধি করা যাচ্ছে।”

আমার মতে, তোমার পূর্ণ বক্তব্যের এটাই মূল ‘কেন্দ্রবিন্দু’ বা ‘থিম অব দ্য প্রেজেন্টেশন’।

তদুপরি, গুরুদয়াল কলেজের ভূতপূর্ব অধ্যাপকবৃন্দের স্মৃুতি তুমি যেভাবে রোমন্থন করেছ, তা পাঠ করে আমাদের মত প্রাক্তন ছাত্ররা আবেগাপ্লুত স্মৃতিচারণে মগ্ন না হয়ে পারছি না। এ ধরনের আরো অনেক শুভ প্রচেষ্টার দ্বারা আমাদের ঋদ্ধ করো, এ কামনাই করি।

পরিশেষে আজীবন শিক্ষাব্রতী, জ্ঞানতাপস, পাণ্ডিত্যের আলোকবর্তিকা বহনকারীদের অগ্রপথিক, সমাজের আলোকায়নে নিবেদিতপ্রাণ, মহান ব্যক্তিত্বের মিছিলের শিবরাত্রির সলতে, সবে ধন নীলমণি, আমার পরমপ্রিয় প্রাণেশ স্যারের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘ জীবন কামনা করছি। তোমার মত সুলেখকের প্রতি রইল আমার অনিঃশেষ প্রীতি ও শুভেচ্ছা।

দীলিপ কুমার বসাক

স্টেশন রোড, কিশোরগঞ্জ।

(দুই)

প্রিয় ড. মাহফুজ পারভেজ,

সম্মাননা-বক্তা ও নির্বাহী পরিচালক, মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন

প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম শ্বিবিদ্যালয়।

আমাদের প্রাণেশ স্যার। পুরো নাম প্রাণেশ কুমার চৌধুরী, সংক্ষেপে পি.কে.সি। অর্ধশতাব্দী পূর্বে স্যারের সাথে ছাত্র-শিক্ষক হিসাবে পরিচয়। কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল কলেজের ইংরেজির অধ্যাপক ছিলেন। তিনি সার্থক শিক্ষাবিদ ও সুসাহিত্যিক এবং বহুমুখী জ্ঞানসমৃদ্ধ ব্যক্তিত্ব। সমাজ ও রাষ্ট্রের অনেক উঁচুতে এই স্যারের বহু ছাত্রের অবস্থান। আমার সৌভাগ্য তিনি আমারও শিক্ষাগুরু। প্রাণেশ স্যারকে নিয়ে একটি প্রবন্ধ লিখেছেন তাঁর প্রাক্তন ছাত্র কিশোরগঞ্জের মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক ড. মাহফুজ পারভেজ, বর্তমানে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক। প্রাণেশ স্যারকে নিয়ে লেখা ‘আলোর পথের যাত্রী’ পড়লাম। এটা স্যারের জীবনালেখ্য এবং শিক্ষকের প্রতি লেখকের আন্তরিক শ্রদ্ধাভেজা নিবেদন। এই লেখায় স্যার সম্পর্কে কোনো অতিরঞ্জন নাই, অতিকথন নাই, শুধুই বিশুদ্ধ-বাস্তব উপস্থাপনা। সুলিখিত এই চর্চায় পি.কে.সি স্যারের শিক্ষাব্রতী জীবন যে কলাকৈবল্যবাদী নয়, বরং বিজ্ঞানমনস্ক সাহিত্যচর্চায় ও শিক্ষায় প্রগতিবাদিতারই উপমা-একথা প্রতিভাত।

ড. মাহফুজ পারভেজের সম্মাননা বক্তৃতায় কিশোরগঞ্জের তাঁর ছাত্রজীবনে গুরুদয়াল কলেজের শ্রদ্ধেয় শিক্ষকমন্ডলীর কথাও বাদ যায়নি। কীর্তিমান লেখকের ‘আলোর পথের যাত্রী’ শ্রদ্ধাভাজন প্রাণেশ স্যারের জীবনের বহুমাত্রিক সানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ। আন্তরিক ধন্যবাদ লেখককে।

আমাদের স্যার দীর্ঘজীবী হোন, আর লেখকের দ্যুতি ছড়িয়ে পড়ুক সর্বত্র, আঁধারের কোণায় কোণায়।

বিকাশ মজুমদার

এডভোকেট, খড়মপট্টি, কিশোরগঞ্জ।

আমাদের চারপাশের এক ভয়াবহ রকমের কৃপণ, পরশ্রীকাতর, সঙ্কীণ সমাজব্যবস্থা ক্ষুদ্র ও ঊনমানুষে ভরপুর। সেখানে সত্যস্বীকৃতি প্রদানের সাহস ও প্রশংসা করার মতো উদার ও বৃহৎ চিত্ত কয়জনের আছে, তা আমরা বিলক্ষণ জানি। ফলে চিঠি দুটি পেয়ে আমি পলকিত হলেও চমকিত হয়েছিলাম এই ভেবে যে, সমাজের শুভবোধ ও সত্যনিষ্ঠা একেবারেই লুপ্ত হয় নি।

বলা বাহুল্য, এমন বহুজনের মৌখিক ও লিখিত ভাষ্য আমাকে সম্মাননা বক্তৃতা প্রদানে প্রচণ্ডভাবে উৎসাহিত ও প্রণোদিত করেছে। যার ফলে ২০১৫ সাল থেকে নিরবিচ্ছিন্নভাবেভাবে কিশোরগঞ্জের সমাজ-সংস্কৃতি-সাহিত্য বিষয়ক সমীক্ষাধর্মী মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা প্রদানে আমি সমর্থ হয়েছি এবং নিম্নলিখিত সম্মাননা বক্তৃতা সম্পন্ন করেছি:

১ম মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৫ ‘আলোর পথের যাত্রী: সাহিত্যিক-শিক্ষাবিদ প্রাণেশকুমার চৌধুরী’, ২য় মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৬ ‘দীপ্তিমান শিক্ষকদম্পতি: অধ্যক্ষ মুহঃ নূরুল ইসলাম/খালেদা ইসলাম বড়আপা’, ৩য় মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৭ ‘প্রজ্ঞার দ্যুতি ও আভিজাত্যেও প্রতীক: প্রফেসর রফিকুর রহমান চৌধুরী’, ৪র্থ মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৮ ‘শাহ মাহতাব আলী: ঋদ্ধ মননের প্রাগ্রসর ভূমিপুত্র শতবর্ষী ব্যক্তিত’, ৫ম মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০১৯ ‘স্বাস্থ্যসেবা-শিক্ষায় পথিকৃৎ চিকিৎসক-দম্পতি: প্রফেসর ডা. আনম নৌশাদ খান ও প্রফেসর ডা. সুফিয়া খাতুন’ ৬ষ্ঠ মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন সম্মাননা বক্তৃতা ২০২০ ‘কিশোরগঞ্জের আইন পেশার নান্দনিক বিন্যাস: নাসিরউদ্দিন ফারুকী, ভূপেন্দ্র ভৌমিক দোলন, শাহ আজিজুল হক’।

কিশোরগঞ্জ শহরের জাতক ও ভূমিপুত্র অ্যাডভোকেট বিকাশ মজুমদার আশৈশব আমাদের পরিচিত। তবে, তার আগে তার বোনদের সঙ্গে আমি পরিচিত ছিলাম কিশোরগঞ্জ আদর্শ শিশু বিদ্যালয়ে পাঠকালে, যেখানে তার এক বোন আমার শিক্ষক ছিলেন। ছোট বয়স থেকেই আমার মানসপটে লম্বা ও সুঠাম দেহী বিকাশ মজুমদারকে দেখেছি ছাত্র ইউনিয়ন ও মস্কোপন্থী ন্যাপের সভা, সমাবেশ, মিছিলে। স্বাধীনতার পর পরই তিনি ন্যাপের সম্পাদক ছিলেন এবং তার প্রজন্মের নেতা-কর্মীদের মধ্যে অগ্রসর অবস্থানের অধিকারীও ছিলেন।

একজন সম্পন্ন স্থানীয় মানুষ ও যুবক বয়সেই একজন নেতা হিসেবে উত্থিত হলেও পরিণত বয়সে তিনি যে অবস্থানে যাওয়ার কথা, সেখানে যেতে পারেন নি। তার অনুজ ও জুনিয়র অনেকেই রাজনৈতিক ও পেশাগত দিক থেকে উচ্চাসনে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। সম্ভবত স্বাস্থ্যগত ও অন্যবিধ কারণে, বিশেষত বৈশ্বিক রাজনৈতিক পালাবদলের জন্য তিনি তার রাজনৈতিক ও পেশাগত গতিকে অব্যাহত রাখতে পারেন নি, যার অধিকতর মূল্যায়ন ও পর্যালোচনা তার সঙ্গী ও অনুসারীদের পক্ষে তথ্যনিষ্ঠ ও বস্তুনিষ্ট ভাবে করা সম্ভব হবে বলে আমি মনে করি।

তথাপি অ্যাডভোকেট বিকাশ মজুমদার রণাঙ্গণের একজন মুক্তিযোদ্ধা রূপে গণতন্ত্র, প্রগতির মন্ত্রে একাত্তরের চেতনায় আজীবন উদ্বুদ্ধ ছিলেন। রাজনৈতিক অংশগ্রহণের পাশাপাশি তিনি সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় কার্যক্রমেও যথাসম্ভব জড়িত ছিলেন। একজন মিষ্টভাষী ও সজ্জন ব্যক্তি রূপে সমাজে পরিচিত ছিলেন তিনি। পেশা, রাজনীতি, সমাজ ও ধর্মীয় পরিমণ্ডলে নিজের যথাসাধ্য তৎপরতায় তিনি সচলতার মধ্যে দিয়েই অতিবাহিত করেছেন। তার মৃত্যুতে কিশোরগঞ্জের সংগ্রামী-উজ্জ্বল-প্রজন্মের অন্যতম এক প্রতিনিধির বিদায় বার্তা ধ্বনিত হয়েছে, যা আমাদের শোকাহত ও ব্যথিত করে। আমরা তার প্রতি অকুণ্ঠ শ্রদ্ধা ও পরিবারবর্গের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই।

[ড. মাহফুজ পারভেজ, প্রফেসর, রাজনীতি বিজ্ঞান বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়; নির্বাহী পরিচালক, মাজহারুন-নূর ফাউন্ডেশন; অ্যাসোসিয়েট এডিটর বার্তা২৪.কম; উপদেষ্টা সম্পাদক, কিশোরগঞ্জ নিউজ]


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর