কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে ফ্যামিলি টাইসের গ্রামীণ নারী দিবস পালন

কৃষিকাজে গ্রামীণ নারীদের অবদান স্বীকার করে সরকারি সুযোগ সুবিধা ও বরাদ্দ রাখার দাবি



 স্টাফ রিপোর্টার | ১৯ অক্টোবর ২০২১, মঙ্গলবার, ৭:১৯ | নারী 



পরিবারের সকল কাজের পরেও গ্রামীণ নারীরা কৃষিতে পুরুষের সাথে সমান তালে কাজ করে যাচ্ছে। অথচ তারা অবহেলিত, তাদের অবদান স্বীকৃত নয়।  অর্থনৈতিক ভাবে কৃষিতে গ্রামীণ নারীদের অবদান স্বীকার করে তাদের জন্য সরকারি সুযোগ সুবিধা বরাদ্দ রাখার দাবি জানিয়েছে ‘ফ্যামিলি টাইস ফর উইমেন ডেভেলপমেন্ট’।

নারীদের উন্নয়নে কাজ করা বেসরকারি এই সংস্থার আয়োজনে আন্তর্জাতিক গ্রামীণ নারী দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এই দাবি জানানো হয়।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সকালে কিশোরগঞ্জের ইটনা উপজেলা সদরে খাদ্য লড়াইয়ে নারী শীর্ষক এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

ফ্যামিলি টাইসের নির্বাহী পরিচালক খুজিস্থা বেগম জোনাকীর সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন ইটনা উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অভিজিৎ সরকার।

বিশেষ অতিথি হিসিবে বক্তব্য দেন ইটনা সদর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মোছা. জেসমিন আক্তার আম্বিয়া।

সভায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৫০জন নারী অংশ নেন। যারা সরাসরি কৃষিকাজের সাথে যুক্ত। তারা সভায় তাদের মতামত তুলে ধরেন।

আলোচনা সভায় গ্রামীণ নারী দিবস নিয়ে ধারণাপত্র তুলে ধরেন খুজিস্থা বেগম জোনাকী।

তিনি বলেন, পরিবারের সকল কাজ করেও মাঠের কৃষিকাজ, গরু মহিষ পালন, ছাগল ভেড়া পালন, হাঁস মুরগি পালনের মতো কাজে প্রধান ভূমিকা রাখলেও গ্রামীণ নারীরা  বেশি বৈষম্য ও নির্যাতনের শিকার হয়। গ্রামীণ নারীরা অবহেলিত, তাদের অবদান স্বীকৃত নয়।

জোনাকী তার বক্তব্যে  অর্থনৈতিক ভাবে গ্রামীণ কৃষিতে নারীর অবদান স্বীকার করে সরকারি সুযোগ সুবিধা বরাদ্দ রাখার দাবি করেন।

কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অভিজিৎ সরকার বলেন, কৃষি কাজে গ্রামীণ নারীদের অবদান অস্বীকার করার কোনো উপায় নেই। গ্রামীণ নারীদের ছাড়া কৃষিকাজ মূলত অচল। তাই তাদের অধিকার ও অবদান সম্পর্কে আমাদের সচেতন হতে হবে।

নারীনেত্রী মোছা. জেসমিন আক্তার আম্বিয়া বলেন, নারীদের সক্ষমতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে লাভ নেই। এটা এইদেশে প্রমাণিত। কারণ প্রধানমন্ত্রী, বিরোধীদলের নেত্রীসহ মন্ত্রিপরিষদে অনেক নারী মন্ত্রী আছেন।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশে ২০০০ সাল থেকে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী ও উন্নয়ন সংস্থা (এনজিও) সম্পূর্ণ নিজেদের অর্থায়নে গ্রামীণ নারী দিবস উদযাপন করে আসছে।  প্রতি বছরের মতো এবারও সারাদেশে বিভিন্ন আয়োজন এবং গ্রামীণ নারীদের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদান রাখার জন্য সম্মাননা প্রদানসহ নানা কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করা হয়েছে।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর