কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


জনপ্রতিনিধিদের আরো আন্তরিকতার সাথে কাজ করার আহ্বান জানালেন রাষ্ট্রপতি



 স্টাফ রিপোর্টার | ১৩ নভেম্বর ২০২১, শনিবার, ১১:৫৫ | বিশেষ সংবাদ 



দেশ ও জনগণের কল্যাণে আরো আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে জনপ্রতিনিধিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। শনিবার (১৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় কিশোরগঞ্জের অষ্টগ্রামে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে রাষ্ট্রপতি এ আহ্বান জানান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, জনপ্রিয়তা হারানোর ভয়ে মন্দ কোনো কাজে বাধা না দিলে তাতে জনপ্রিয়তা বাড়ে না বরং কমে। স্থানীয় সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে স্থানীয়ভাবে বিনিয়োগ বাড়ানোর তাগিদ দেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নের পাশাপাশি এর রক্ষণাবেক্ষণ ও সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

হাওরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য রক্ষার ওপর জোর দিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, পর্যটকরা যাতে যত্রতত্র ময়লা আবর্জনা না ফেলে সে বিষয়ে সকলকে সজাগ থাকতে হবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন- কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, রাষ্ট্রপতি কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবেদীন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট মো. জিল্লুর রহমান, কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), অষ্টগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক হায়দারী বাচ্চু, অষ্টগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শহীদুল ইসলাম জেমস প্রমুখ।

এর আগে সফরের দ্বিতীয় দিন শনিবার (১৩ নভেম্বর) বিকাল সাড়ে ৩টায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ নিজবাড়ি থেকে সড়কপথে অষ্টগ্রাম উপজেলার উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। পথিমধ্যে রাষ্ট্রপতি অষ্টগ্রামের জিরো পয়েন্টে নেমে সেখানে অলওয়েদার সড়কের ভাতশালা সেতু পরিদর্শন করেন।

পরে সেখান থেকে তিনি ডাকবাংলোয় পৌঁছে গার্ড অব অনার গ্রহণ করেন। সেখানে তিনি কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেন।

পরে রাষ্ট্রপতি পূর্ব অষ্টগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয় পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি স্থানীয় উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের অগ্রগতি জানাসহ এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের আরো বেশি কার্যকরী ভূমিকা পালনে দিক-নির্দেশনা দেন।

পরে তিনি পূর্ব অষ্টগ্রাম ইউপি কার্যালয় সংলগ্ন ‘আবদুল হামিদ চত্বর’ পরিদর্শন করেন।

এ সময় রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রকৌশলী রেজওয়ান আহম্মেদ তৌফিক, কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ শামীম আলম, পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), সামরিক-বেসমারিক উর্ধ্বতন কর্মকর্তা ছাড়াও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

এরপর রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সড়কপথে অষ্টগ্রাম উপজেলা সদরের ডাকবাংলোয় যান। পরে সন্ধ্যার পর মতবিনিময় সভায় মিলিত হন।

মতবিনিময় শেষে নিজবাড়িতে রাত্রিযাপনের উদ্দেশ্যে তিনি সড়কপথে মিঠামইনে ফিরে কামালপুর গ্রামের বাড়িতে যান।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ৭ দিনের কিশোরগঞ্জ সফরের তৃতীয় দিন রোববার (১৪ নভেম্বর) বেলা ১১টায় মিঠামইন সেনানিবাসের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিদর্শন করবেন এবং সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতির বাবার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত মিলাদ মাহফিলে অংশ নিবেন।

পরে তিনি মিঠামইনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে মতবিনিময় করবেন।

সেখান থেকে নিজবাড়িতে রাত্রিযাপন শেষে পরদিন সোমবার (১৫ নভেম্বর) দুপুর আড়াইটায় তিনি ইটনা উপজেলায় যাবেন। সেখানে উন্নয়নমূলক কাজ পরিদর্শন শেষে সন্ধ্যায় ইটনায় রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে মতবিনিময় করবেন।

পরে তিনি মিঠামইনে নিজবাড়িতে ফিরে যাত্রিযাপন শেষে পরদিন মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) বিকেল ৩টায় মিঠামইন থেকে হেলিকপ্টারযোগে কিশোরগঞ্জ সদরে পৌঁছবেন।

ওইদিন তিনি শহরের খড়মপট্টিস্থ নিজবাসায় রাত্রিযাপন শেষে পরদিন ১৭ নবেম্বর সন্ধ্যায় তিনি জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে মতবিনিময় করবেন।

সেখান থেকে নিজবাসায় রাত্রিযাপন শেষে পরদিন ১৮ নভেম্বর দুপুরে রাষ্ট্রপতি হেলিকপ্টারযোগে ঢাকায় ফিরে যাবেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর