কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


২৬ মার্চের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ


 জাহাঙ্গীর কিরণ, ঢাকা থেকে | ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, রবিবার, ৯:৩৩ | জাতীয় 


মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানিয়েছেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রণয়নের লক্ষ্যে যাচাই-বাছাই করে তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। আসছে ২৬ মার্চের মধ্যে মুক্তিযোদ্ধাদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে।

রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে সংসদ সদস্য মীর মোস্তাক আহমেদ রবির এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী এ তথ্য জানান।

মন্ত্রী জানান, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা প্রণয়নের লক্ষ্যে সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময়ে যাচাই বাছাই করে তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। ঐসব তালিকা পর্যালোচনা করে বিশেষ করে ভারতীয় তালিকা, বেসামরিক গেজেট, শহিদ বেসামরিক গেজেট, সশস্ত্র বাহিনী শহিদ গেজেট, শহিদ বিজিবি গেজেট, যুদ্ধাহত গেজেট, খেতাবপ্রাপ্ত গেজেট,সেনাবাহিনী গেজেট, বিমানবাহিনী গেজেট, নৌবাহিনী গেজেট, নৌ কমান্ডো গেজেট, বিজিবি গেজেট, পুলিশ বাহিনী গেজেট, আনসার বাহিনী গেজেট, স্বাধীন বাংলা বেতার শব্দ সৈনিক গেজেট,  বীরঙ্গনা গেজেট, স্বাধীন বাংলা ফুটবল দল গেজেট, ন্যাপ কমিউনিস্ট পার্টি ছাত্র ইউনিয়ন বিশেষ গেরিলা বাহিনী গেজেট, লাল মুক্তিবার্তা, লাল মুক্তিবার্তা স্মরণীয় যারা বরণীয় যারা, মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতীয় তালিকা (সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনী), ভারতীয় তারিকা (পদ্মা), ভারতীয় তালিকা (মেঘনা), যুদ্ধাহত (বর্ডারগার্ড বাংলাদেশ) গেজেট, মুক্তিযোদ্ধাদের ভারতীয় তালিকা (সেক্টর), বিশ্রামগঞ্জ হাসপাতালে নিয়োজিত/ দায়িত্বপালনকারী মুক্তিযোদ্ধা  গেজেট, যুদ্ধাহত সেনা গেজেট তালিকা পর্যালোচনা করে ২০১৯ সালের ২৬ মার্চের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করা হবে।

এমপি শামীম ওসমানের এক সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মোজাম্মেল হক জানান, এখনো আমরা রাজাকার, আলবদর ও আলসামশদের তালিকা সঠিক ভাবে চূড়ান্ত করতে পারি নি। কারণ হিসেবে তিনি জানান, ২০০১ সালে বিএনপি জামাতের আমলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তালিকাটি সংরক্ষিত ছিল। কিন্তু খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে জামাত বিএনপি এ তালিকা সরিয়ে ফেলে। আমরা সেগুলো আর খুজে না পেয়ে নতুন করে প্রতিটি উপজেলা থেকে তালিকা চেয়ে পাঠাই। অনেকে দিয়েছেন, আবার অনেক উপজেলা থেকে রাজাকার, আলবদর ও আলসামশদের তালিকা এখনো আসেনি। সেকারণে তালিকা চূড়ান্ত করতে দেরি হচ্ছে। মন্ত্রী জানান, আমরা  আলবদর, রাজাকার ও  আলসামশদের তালিকা তৈরি করে তা প্রকাশ করার চেষ্টা চলছে ।

মেজর (অব.) রফিকুল ইসলামের (বীর উত্তম) এক প্রশ্নের জবাবে মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য স্বীকৃতি স্বরুপ বিদেশী বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠনকে সম্মাননা জানিয়েছে বাংলাদেশ; যার সংখ্যা ৩৩৯ জন বিদেশী ব্যক্তি/ সংগঠন রয়েছে। এর মধ্যে ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী, সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখাজী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীসহ ভারতের ২২৭ জন রয়েছেন। এছাড়া ভারতসহ ২১টি দেশের মোট ৩২৯ জন বিদেশী ব্যক্তি এবং ১০টি সংগঠনকে সম্মাননা জানানো হয়েছে। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধে যেসকল বিদেশী নাগরিক অবদান রেখেছিল পর্যায়ক্রমে এমন ১ হাজার ৭০০ জনকে স্বীকৃতিসহ সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হবে বলে জানান মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী।

আ ক ম মোজাম্মেল হক জানান, মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখায় ২০১১ সালে ভারতের প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধীকে বাংলাদেশ স্বাধীনতা সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়। এছাড়া ৫ম পর্যায়ে ২০১৩ সালের ৪ মার্চ মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা প্রদান করা হয় ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জীকে ও ২০১৫ সালের ৭ জুন সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ীকে এ সম্মাননা দেয়া হয়েছে। সম্মাননা প্রদানকারীদের মধ্যে শীর্ষে ভারতের ২১৭ জন ব্যক্তি এবং ১০টি প্রতিষ্ঠান, এরপরই রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ২৬ জন, তৃতীয় স্থানে রয়েছে পাকিস্তানের ১৭জন ব্যক্তি, যাদের সম্মাননা  স্মারক প্রদান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী জানান, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অবদান রাখার  বিদেশী নাগরিককে যে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে তার জন্য কারো কাছ থেকে কোন  আবেদন চাওয়া হয়নি। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, মুকি্যাুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধাদের সমন্বয়ে গঠিত কমিটির মাধ্যমে বিদেশী এসব বন্ধুদের ও প্রতিষ্ঠানকে চিহ্নিত করা হয়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর