কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


করোনার মতো ভাইরাসের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে


 মোশারফ হোসেন | ১০ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৪:৪৭ | মত-দ্বিমত 


অসহায় এবং দুর্বল মানুষগুলোর পিঠ যখন দেয়ালে ঠেকে যায়, তখন তারাও প্রাচীরসম প্রতিরোধ গড়ে তুলতে বাধ্য হয়। নিপীড়িত জীবন যখন নিয়তি, ধুকে ধুকে মৃত্যু যখন পরিণতি, তখন নিপীড়কের বিরুদ্ধে সর্বশক্তি প্রয়োগ ছাড়া, প্রতিশোধ নেওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় থাকে না।

যে কারণে তেলাপোকাকে ভয় পাওয়া আমার মতো দুর্বল চিত্তের মানুষের মনেও কখনো কখনো সুপারম্যান জেগে ওঠে। সে সবকিছু দুমড়ে-মুচড়ে দিতে চায়। এ ছাড়া উপায়ই বা কী! উন্নয়ন-কাজে রডের বদলে বাঁশ দেওয়ার ছবি পত্রিকায় দেখছি, কোটি টাকায় নির্মিত সেতু বা সড়ক ৬ মাসের ব্যবধানেই ধসে পড়ছে, যে কোনো সেবা পেতে অবৈধ লেনদেন করতে হচ্ছে, দেশের সাধারণের টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে, স্বাস্থ্যসেবা চাওয়া আজ যেন অন্যায়!

কিন্তু আমি তো নিরীহ, শক্তিহীন; ক্ষমতা আমার নেই। ফলে মনে ক্রোধ জন্মালেও আমার আর সুপারম্যান হয়ে ওঠা হয় না। চেয়ে চেয়ে দেখি। না-পারি সইতে, না-পারি কইতে, না-পারি প্রতিবাদ করতে। ফলে বিচার শেষ পর্যন্ত আমাকে স্রষ্টার কাছেই চাইতে হয়। এটুকু বিশ্বাস নিশ্চিত আছে- দুনিয়ার আদালতে বিচার না পেলেও, আল্লাহর আদালতে সব অপরাধীর বিচার হবেই। তিনিই প্রকৃত ন্যায় বিচারক।

তবে দুনিয়ার আদালতের মতো তিনি অপরাধীকে হয়তো তাৎক্ষণিক শাস্তি দেন না। শোধরানোর সময় ও সুযোগ দেন। যদি পাপাচারী নিজেকে সংশোধন করে, স্রষ্টা তাকে ক্ষমা করেও দিতে পারেন। আর যদি তার অপকর্ম চলতেই থাকে, তখন তিনি তাকে ধ্বংস করে দেন। তবে তার বিচার বোঝার সাধ্য আমাদের মতো ক্ষুদ্র মানুষের নেই। যে কারণে আমরা বলি- আল্লাহ, তুমি সব দেখো, সব জানো, কত লোকের বিচার করো, অমুকের বিচার কেনো করো না? হয়তো তার বিচার হবে পরকালের আদালতে।

এদিকে ইহকালের আদালতে বিচার হচ্ছে না দেখে সেই দুর্নীতিবাজ, দুষ্কৃতিকারী কিন্তু অপকর্ম করে যেতেই থাকে। তারা পরকালও ভুলে যায়। নিজেকে পরিবর্তনের, শোধরানোর কোনো চেষ্টা করে না। এভাবে দিনের পর দিন তারা নিজের ভোগের জন্য, নিজের অনৈতিক অর্জনের জন্য মানুষ, প্রাণী ও প্রকৃতিকে শোষণ করে, অত্যাচার করে। তার কারণে শুধু মানুষ নয়, পৃথিবীর প্রাণও হয়ে ওঠে ওষ্ঠাগত। যে কারণে প্রকৃতিও এক সময় ক্রুদ্ধ হয়ে ওঠে।

যে পানির অপর নাম জীবন, সে পানি আজ দূষিত। টাকা দিয়ে পানি কিনে খেতে হয়। শহরে মাটির গভীরে এখন আর সুপেয় পানি পাওয়া যায় না। কলকারখানার বর্জ্য আর কৃষিতে ব্যবহৃত বিষাক্ত রাসায়নিকের কারণে পানি হারিয়েছে স্বকীয়তা। যে বাতাস টেনে মানুষ বাঁচে, সে বাতাস আজ সীসায় বিষাক্ত।

আমাদের অন্নাহারের জন্য যে মাটি দিনের পর দিন নিজের শক্তি-যৌবন ক্ষয় করে, বুক ভেদ করে দাঁড়ানো ধানের চারাটি সযত্নে বড় করে তুলেছে সেই মাটিও আজ দূষণের শিকার। ঊর্বরতা হারিয়ে সে হাহাকার করছে। সেই হাহাকার একমাত্র কৃষক বুঝতে পারে। যুগ যুগ ধরে মানুষের ছুঁড়ে ফেলা পলিথিন আর প্লাস্টিক ভেদ করে শ্বাস নিতে পারছে না মাটি।

শুধু কি মাটি? নদীর পানি, গতিপথ সব বদলে গেছে। কে বদলে দিয়েছে? মানুষ। এই অমানবিক মানুষ শুধু নিজেদের ভালো চেয়েছে। এ কারণে প্রকৃতির উপর জুলুম করতেও সে পিছপা হয়নি। বরং প্রতিরোধের আশঙ্কা নেই জেনে সে আরো বেশি নির্মম হয়েছে।

পুকুর এবং নদীর পানিতে বিষ দিয়েও মানুষ আজ মাছ শিকার করে। ভাবা যায়! মানুষের কারণেই বন্যপ্রাণী আজ বিলুপ্তির পথে। খাদ্যের খোঁজে ক্ষুধার্ত বন্যপ্রাণী লোকালয়ে এসে মানুষের হাতে মারা যাচ্ছে। কারণ বন উজাড় করে ফেলেছে একদল বনখেকো মানুষ। ফলে আশ্রয় হারাচ্ছে বনের অন্য প্রাণীরা। প্রাণীকুল এবং প্রকৃতির প্রতি এমন অমানবিকতা, দায়িত্বহীনতার অজস্র নজির রয়েছে, যা মানুষই করেছে। কিন্তু এতো যত্ন এবং ভালোবাসা দিয়ে স্রষ্টার সৃষ্টিকে ধ্বংসের অধিকার তিনি নিশ্চয়ই মানুষকে দেননি।

একটি সত্য আমাদের ভুলে গেলে চলবে না- যাকে আমরা স্রষ্টা বলে মানি, তিনি সবার স্রষ্টা। তিনি মানুষ যেমন সৃষ্টি করেছেন, মাটি, পানি, বাতাস, পশুপাখি, বৃক্ষরাজি- সবই তার সৃষ্টি। মানুষ যেমন স্রষ্টার কাছেই দু'হাত তুলে মনের কথা বলে, কষ্টের জন্য অশ্রু বিসর্জন দেয়, অন্যায়ের বিচারপ্রার্থী হয়; এই বোবা মাটি, পানি, বাতাস, পশুপাখি, বৃক্ষরাজিও স্রষ্টার ইবাদত করে। তারাও এই স্রষ্টার কাছেই বিচারপ্রার্থী হয়। মানুষের জন্য দুনিয়ার আদালত আছে, কিন্তু পৃথিবীর এই বোবা সৃষ্টিগুলোর স্রষ্টাই শেষ ভরসা। তাই এদের জন্য স্রষ্টার দায়টাও বোধহয় একটু  বেশি।

আজ করোনায় সমগ্র মানবজাতি কোণঠাসা। বিশ্বজুড়ে মহামারি। এর কি কোনো দায় মানুষের নেই? প্রকৃতি আজ কেন ফুঁসে উঠেছে? প্রকৃতি কেন প্রতিশোধ নিতে চাইছে? প্রকৃতিই কি করোনাভাইরাসের স্রষ্টা? এই প্রশ্নের উত্তর জানতে হবে। খুঁজে বের করতে হবে। পৃথিবীর অন্যসব প্রাণ, প্রাণী আর উপাদানকে উপেক্ষা করে নিজেদের ভোগ-বিলাস, বেঁচে থাকাকেই যদি আমরা একমাত্র আরাধ্য মনে করি, তাহলে আগামীতে আমাদের আরো চড়া মূল্য দিতে হবে।

আরেকটি সত্য আমাদের মানতে হবে- এ পৃথিবী শুধু আজকের নয়, আগামীরও। এ পৃথিবী আমার একার নয়, পৃথিবী আমাদের। এ পৃথিবী অনাগত আরও বহু প্রজন্মের। আপনার এই মাটি, বায়ুতে যতটুকু অধিকার, বনের হরিণ শাবকটিরও ততটুকুই অধিকার। এই বোধ মানুষের মধ্যে জাগ্রত হলে তবেই মঙ্গল। না-হলে করোনার মতো আরো ঘাতক ভাইরাসের জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে।

# মোশারফ হোসেন, ব্যবস্থাপক, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, পাকুন্দিয়া, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর