কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


রাষ্ট্রপতির অনুজ প্রয়াত আবদুল হাই ছিলেন স্বল্প ও মিষ্টিভাষী মানবদরদী ব্যতিক্রমী মানুষ


 কুদ্দুস আফ্রাদ | ১৭ জুলাই ২০২০, শুক্রবার, ৪:০৫ | মত-দ্বিমত 


মহামান্য রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের অনুজ ও তাঁর সহকারী একান্ত সচিব। আমাদের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠজন। ব্যক্তিগতভাবে আমার অগ্রজতুল্য বড়ভাই, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হক সরকারি কলেজ এর প্রাক্তণ সহকারী অধ্যাপক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হাই গত রাতে প্রয়াত হয়েছেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। তিনি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল, ঢাকায় চিকিৎসাধীন ছিলেন।

আমাদের কাছে মৃত্যুর এই দুঃসংবাদ ছিল বিনা মেঘে বজ্রপাতের মত। ভেবেছিলাম তিনি অন্যদের মতই চিকিৎসা শেষে ভাল হয়ে ফিরে আসবেন। আমরা তাঁর কাছ থেকে চিকিৎসালের দুর্দিনের খবর শুনবো।

কিন্ত, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে ঘুম ভাঙ্গে অনুজ বন্ধু সাংবাদিক শফিউল আলম দোলনের ফোনে। তারপর, একে একে অনেকের সঙ্গেই গোটা রাতজুড়ে ফোনে আলাপ হল।

কত অসংখ্য স্মৃতি তাঁকে নিয়ে.....। জাতীয় সংসদের প্রচার ও জনসংযোগ বিভাগের কর্মকর্তা থেকে শুরু করে স্পিকারের এপিএস-১। ঢাকায় এবং ঢাকার বাইরে আনেক জায়গায় আমরা ঘুরে বেড়িয়েছি।

বলতে গেলে, রাষ্ট্রপতির পরিবারের অনেকের সঙ্গেই আমার ব্যক্তিগত সখ্যতা অনেক গভীরে। এ পরিবারের সব সদস্য্ই খুবই সহজ-সরল এবং মানুষের জন্য তারা প্রত্যেকেই নিবেদিত প্রাণ।

মানুষের প্রতি ভালবাসার সকলের এই কমন গুণের বাইরে- রাষ্ট্রপতির ভাই-বোনদের মধ্যে প্রয়াত আবদুল হাই-ই ছিলেন কিছুটা ভিন্ন স্বভাবের। প্রথমত তিনি ছিলেন ভীষণ লাজুক। হৈ-চৈ কম পছন্দ করতেন। নিভৃত ও স্বল্পভাষী ছিলেন। ঠোটের কোণে সব সময়ই লেগে থাকতো হাসির জীবন্ত রেখা।

সত্যি কথা বলতে, এতো ভালো মানুষ এ জীবনে আমি অন্তত খুব খুব কমই দেখেছি। সহজ সরল, পরোপকারী ও নির্ভেজাল একজন মানুষের এভাবে বিদায় নেওয়া খুবই বেদনার। খুবই মর্মান্তিক। তাঁর প্রয়াণে আমরা ভীষণভাবে শোকাহত।

হে ঈশ্বর, হে বিধাতা, হে আল্লাহ রাহমানুর রাহীম তুমি জাতিকে রক্ষা করো।

# কুদ্দুস আফ্রাদ, সভাপতি, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর