কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শতভাগ স্কাউটিং: প্রেক্ষিত কিশোরগঞ্জ


 মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান | ২২ নভেম্বর ২০২০, রবিবার, ৩:৪৯ | মত-দ্বিমত 


আনন্দের মধ্য দিয়ে শিক্ষাদানের আন্দোলনই হচ্ছে স্কাউটিং। যার মধ্যে লুকিয়ে আছে অপার আনন্দ; আর এই আনন্দের স্বাদ নিতে হলে যোগদান করতে হবে স্কাউটিং নামক এ আন্দোলনে। স্কাউটিং একজন ছেলে বা মেয়েকে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে সাহায্য করে এবং ব্যক্তি, দেশ তথা মানুষের সার্বিক উন্নয়নে অবদান রাখতে ভূমিকা রাখে।

ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর একজন অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল স্যার রবার্ট স্টিফেন্সন স্মিথ লর্ড ব্যাডেন পাওয়েল অফ গিলয়েল সংক্ষেপে বিপি ১৯০৭ সালে ইংল্যান্ডের ব্রাউন সি দ্বীপে মাত্র ২০ জন কিশোরকে নিয়ে “সেবা”র মূলমন্ত্রে অনুপ্রাণিত হয়ে এই আন্দোলন শুরু করেন। যা বর্তমানে সামাজিক আন্দোলন হিসেবে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। আজ পৃথিবীর ১৬৯ টি দেশে ৪ কোটিরও বেশী স্কাউটার রয়েছে যারা নিরলসভাবে সেবার মানসিকতা নিয়ে কাজ করছে।

বিশ্বে স্কাউটের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। আমাদের বাংলাদেশে বর্তমানে ১৭ লক্ষাধিক স্কাউট রয়েছে। বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মানসম্পন্ন স্কাউটিং এর জন্য দেশের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একটি ছেলে দল ও একটি মেয়ে দল (ইউনিট) করার নির্দেশনা প্রদান করেছেন।

তাছাড়া বাংলাদেশ স্কাউটস এর ন্যাশনাল স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান অনুযায়ী আগামী ২০২১ সালে স্কাউটিং এর মানোন্নয়ন ও স্কাউটের সংখ্যা ২১ লক্ষে উন্নীত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

স্কাউটিং এমন একটি অরাজনৈতিক, স্বেচ্ছাসেবী ও শিক্ষামূলক আন্দোলন যা জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্য উন্মুক্ত। এর মূল নীতি হচ্ছে-

১। স্রষ্টার প্রতি কর্তব্য- (Duty to God ) (আধ্যাত্বিক দিক)

২। অপরের প্রতি কর্তব্য- (Duty to others) (সামাজিক দিক)

৩। নিজের প্রতি কর্তব্য- (Duty to self) (ব্যক্তিগত দিক)

স্কাউটিং আন্দোলন সকলের জন্য উন্মুক্ত হলেও সুষ্ঠু পরিচালনার জন্য বাংলাদেশে স্কাউটিং ৩টি শাখায় বিভক্ত-

১। কাব স্কাউটঃ যারা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ে বা যাদের বয়স ৬ বছরের বেশি কিন্তু ১১ বছরের কম।

২। স্কাউটঃ যারা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে পড়ে বা যাদের বয়স ১১ বছর বা তার চেয়ে বেশি কিন্তু ১৭ বছরের কম।

৩। রোভারঃ যারা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে অথবা যাদের বয়স ১৭ বা তার চেয়ে বেশি কিন্তু ২৫ বছরের কম। রেলওয়ে, নৌ, বিমান ও অনুরূপ প্রতিষ্ঠানে চাকুরিজীবীদের জন্য বয়স ৩০ বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য।

কাব স্কাউট প্রতিজ্ঞাঃ আমি প্রতিজ্ঞা করছি যে, -আল্লাহ ও আমার দেশের প্রতি কর্তব্য পালন করতে,

-প্রতিদিন কারও না কারও উপকার করতে,

-কাব স্কাউট আইন মেনে চলতে আমি আমার যথাসাধ্য চেষ্টা করব। (নিজ ধর্মীয় বিশ্বাস অনুসারে সৃষ্টিকর্তার নাম উচ্চারণ করা যাবে)

কাব আইনঃ ১। বড়দের কথা মেনে চলা

২। নিজেদের খেয়ালে কিছু না করা

স্কাউট / রোভার প্রতিজ্ঞাঃ

আমি আমার আত্ম মর্যাদার উপর নির্ভর করে প্রতিজ্ঞা করছি যে

-আল্লাহ ও আমার দেশের প্রতি কর্তব্য পালন করতে, - সর্বদা অপরকে সাহায্য করতে,  - স্কাউট আইন মেনে চলতে আমি আমার যথাসাধ্য চেষ্টা করব।

স্কাউট আইন ৭টিঃ ১। স্কাউট আত্মমর্যাদায় বিশ্বাসী ২। স্কাউট সকলের বন্ধু ৩। স্কাউট বিনয়ী ও অনুগত ৪।স্কাউট জীবের প্রতি সদয় ৫। স্কাউট সদা প্রফুল্ল ৬। স্কাউট মিতব্যয়ী ৭। স্কাউট চিন্তা, কথা ও কাজে নির্মল।

মটো বা মূলমন্ত্রঃ

কাবঃ যথাসাধ্য চেষ্টা করা (Do your best)

স্কাউটঃ সদা প্রস্তুত (Be prepared)

রোভার স্কাউটঃ সেবা (Service)

অর্থাৎ সেবার জন্য সদা প্রস্তুত থাকতে যথাসাধ্য চেষ্টা করা (Do your best to be prepared for service)

স্কাউটিং ও কিশোরগঞ্জঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা ও বাংলাদেশ স্কাউটস এর স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যান অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ জেলা স্কাউটস লক্ষ্য অর্জনে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে সামনের দিকে। কিশোরগঞ্জ জেলা স্কাউটস ও জেলা রোভারের সম্মানিত সভাপতি ও সুযোগ্য জেলা প্রশাসক জনাব মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরীর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ও নির্দেশনায় কিশোরগঞ্জ জেলাকে মুজিব বর্ষের মধ্যেই একটি মানসম্পন্ন ও শতভাগ স্কাউট জেলায় রুপান্তর তথা ঘোষণার জোর কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা বাংলাদেশ তথা বিশ্বের সকল কার্যক্রম স্থবির করে দিলেও করোনা সচেতনতা তৈরিতে জেলা স্কাউটস ও জেলা রোভার সক্রিয় ভূমিকা পালন করে। করোনাকালে সশরীরে স্কাউট কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও অনলাইনে বিভিন্ন ইউনিট তাদের ট্রুপ মিটিং/ প্যাক মিটিং বাস্তবায়ন করেছে।

বাংলাদেশের প্রথম অনলাইন এডভান্সড কোর্স আয়োজন করা হয়েছে কিশোরগঞ্জ জেলা স্কাউটস এর আয়োজনে। তাছাড়া অনলাইনে ওরিয়েন্টেশন এবং বেসিক কোর্সের পাশাপাশি সশরীরে স্কিল কোর্সেরও আয়োজন করা হয় কিশোরগঞ্জ জেলা স্কাউটস এর আয়োজনে।

এই জেলাকে শতভাগ স্কাউট জেলা করার জন্য ইতোমধ্যে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছে। বেসিক কোর্সের পর ইউনিট লিডাররা যাতে দল রেজিস্ট্রেশন করতে পারে সে বিষয়ে সহায়তা ও মনিটরিং অব্যাহত রয়েছে।

তাছাড়া ২০১৯ সালে জেলা হতে ৩জন শাপলা কাব, ৩জন প্রেসিডেন্ট স্কাউটস এওয়ার্ডের জন্য জাতীয় পর্যায়ের জন্য মনোনীত হয় এবং ২০২০ সালে ২৬ জন শাপলা কাব, ২৪ জন প্রেসিডেন্ট স্কাউটস এওয়ার্ডের জন্য অঞ্চল পর্যায় হতে জাতীয় পর্যায়ে উত্তীর্ণ হয়েছে। ৩জন রোভার প্রেসিডেন্ট রোভার স্কাউট এওয়ার্ড অর্জনের লক্ষে পায়ে হেটে ১৫০ কিমি পরিভ্রমন্সহ তাদের লগবই সম্পন্ন করেছে।

সর্বোপরি কিশোরগঞ্জ জেলা স্কাউটস ও জেলা রোভারের কার্যক্রম বেগবান হয়েছে মানসম্পন্ন স্কাউট তৈরিতে; যার প্রতিফলন হবে শতভাগ স্কাউট জেলা ঘোষণা এবং বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে।

# মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) কিশোরগঞ্জ ও কমিশনার, বাংলাদেশ স্কাউটস কিশোরগঞ্জ জেলা।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর