কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


একজন আফজাল হোসেন: জনসম্পৃক্ততা ও জনপ্রিয়তার নব ধারা!


 ম. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া | ১১ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১০:০০ | মত-দ্বিমত 


রাজনীতি ও রাজনীতিবিদ দুটি অতি প্রাচীন শব্দ। সভ্যতা বিকশিত হওয়ার সাথে সাথেই এ দুটি শব্দের ব্যবহার ও প্রয়োজনীয়তা বেড়েই চলেছে। যুগে যুগে, কালে কালে এ শব্দ দুটির অর্থ, সংজ্ঞা ও পরিধি ক্রমেই ব্যাপক থেকে ব্যাপকতর হচ্ছে। রাজনীতি হলো রাষ্ট্রীয় কার্যক্রম অত্যন্ত দক্ষতা ও যোগ্যতার সাথে সুচারুরূপে সম্পন্ন করার কলা-কৌশল ও নীতি প্রণয়ণ সংক্রান্ত বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি।

এই বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি রাজনৈতিক মঞ্চে মঞ্চস্থ করার মূল ব্যক্তি একজন রাজনীতিবিদ। যার আদর্শিক ধারার স্বপ্ন বলয়ে শুধু কর্মী নয়, তাঁর হৃদয় জুড়ে লতার মতো বিস্তৃত থাকে সাধারণ জনগণ। যেখানে মূল রাজনীতির বলয় গড়ে উঠে এক শ্রেণির সুবিধাভোগী-মৌসুমে সরবরাহ কপট মানুষ দ্বারা নয়; তৃণমূলের কৃষক-শ্রমিক, খেটে খাওয়ার মানুষ, জেলে-কামার-তাঁতী-মুচি-প্রতিবন্ধী আর বঞ্চনার সারথী সমাজের অধিকারহীন মানুষগুলোর জীবন-জীবিকার অগ্রগামী চিন্তা চেতনার বলয়ে। কথা দিয়ে কথা রাখার প্রগাঢ় দায়বদ্ধতা, সমাজ সেবার উন্নত মননশীলতা এবং জনগণের টাকায় নিজ পকেটে নয় বরং নিজের পকেটের টাকা জনগণের কল্যাণে ব্যয় করার মতো দুরন্ত সাহসিকতা।

এই আর্দশিক ধারার রাজনীতিবিদের মধ্যে তৃণমূলের একজন সাধারণ রাজনীতিবিদ হয়েও দেশে তথা কিশোরগঞ্জ জেলায় খ্যাতি ছড়িয়েছেন জনবান্ধব সংসদ সদস্য মো. আফজাল হোসেন। তিনি জয় করে নিয়েছেন তাঁর নির্বাচনী এলাকা (বাজিতপুর-নিকলী)-র সাধারণ মানুষের মন। দখল করে নিয়েছেন আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার মনো-কোঠরে একজন স্বজনরূপে।

তাইতো বলা হয়ে থাকে, রাজনীতির শিক্ষালয়ে একাডেমিক ডক্টরেট, ব্যারিস্টার, উকিল-মোক্তার-ডাক্তার হয়েও ব্যর্থ হতে পারেন; যদি তাঁর জনসম্পৃক্ততা না থাকে, জনগণ তাকে কাছের মনে না করেন। একজন উত্তম রাজনীতিবিদের সর্বোচ্চ সার্টিফিকেট কোন একাডেমিক প্রতিষ্ঠান নয়; প্রদান করে সাধারণ জনগণ। এ পৃথিবী বদলে দেওয়ার পেছনে পুঁথিগত বিদ্যা কতটুকু প্রয়াজন সে বির্তকে যাব না। শুধু এতোটুকু বলতে পারি পৃথিবীকে বদলে দেওয়ার পেছনে শুধু শিক্ষাগত যোগ্যতা নয়, প্রয়োজন বদলে দেওয়া মানুষটির উদ্দেশ্য, প্রতিশ্রুতি আর মনোবৃত্তি কতটুকু জনবান্ধব তার উপর।

আমেরিকার জননন্দিত প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন এর তেমন কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না। তারপরও বিশ্বখ্যাত। সক্রেটিস, প্লেটো ও এরিস্টোটল, কাজী নজরুল ইসলামের কোনো প্রাতিষ্ঠানিক সনদপত্র ছিল না। কিন্তু তাদের দেখানো পথেই সভ্যতা বিকশিত হয়েছে এবং তাদের দেখানো শিক্ষাই আমরা আত্মস্থ করছি।

তাই একজন প্রকৃত রাজনীতিবিদও হবেন শুধু একাডেমিক  সনদে নয়; সাধারণ জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য আমৃত্যু লড়াই করার মধ্য দিয়ে একটি সার্টিফিকেট। যেমনটি করেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিজের ও তার পরিবারে স্বজনদের জীবনের বিনিময়ে। সমস্ত লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে ওঠে তিনি এ জাতির কল্যাণে বলেছিলেন, “আমি প্রধানমন্ত্রিত্ব চাই না, আমি এদেশের মানুষের মুক্তি চাই”। তাঁর এই সাহসী রক্ত ধারায় সিক্ত আজকের প্রবল জনসম্পৃক্ত-জনবান্ধব সাংসদ মো. আফজাল হোসেন।

মো. আফজাল হোসেন ১৯৬৪ সালে ৯ জানুয়ারি হাওর অঞ্চলের ‘সিংহদ্বার’ খ্যাত কিশোরগঞ্জ জেলার বাজিতপুর উপজেলার দিলালপুর ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতার মরহুম আলহাজ্ব আবু বকর সিদ্দিক এবং মাতার নাম মোছা. রেজিয়া খাতুন। পারিবারিক জীবনে তাঁর চার মেয়ে ও এক ছেলে।

কৈশোর বয়স হতে আলহাজ্ব আফজাল হোসেন স্বাধীনতার মহান স্থপতি-জাতির পিতা-বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আর্দশ্যের ধারায় সিক্ত এবং তাঁর চিন্তা ও মননে অবিরাম অনুরিত-বিকশিত মুজিবীয় চেতনা। পেশাগত জীবনে একজন সফল ব্যবসায়ী। তিনি দেশের পাদুকা জগতের স্বনামখ্যাত ব্র্যান্ড আফজাল সুজ এর কর্ণধার। তবে পেশাগত জীবনে একজন সফল ব্যবসায়ী হলেও কর্ম ও একাগ্রতার বিরাট অংশ দখল হয়ে আছে রাজনীতি ও নিজ নির্বাচনী এলাকার সাধারণ জনগণের ভাগ্য পরিবর্তনের মহান ব্রত।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী-জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার সাহসী সৈনিক হিসেবে ২০০৮ সালে প্রথম আওয়ামী লীগ হতে তাঁকে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মনোনয়ন দেন এবং তিনি বাজিতপুর-নিকলী আসন হতে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন। ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের মঞ্জুর আহমেদ বাচ্চু মিয়া এমপি হবার পর তাঁর হাত ধরেই দীর্ঘ ৩৫ বছর পর ২০০৮ সালে এ আসনটি পুনরুদ্ধার হয়। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনেও তিনিই পুনরায় এমপি নির্বাচিত হন। এর-ই ধারাবাহিকতায় আগামী জাতীয় নির্বাচনেও তিনি তৃতীয় বারের মতো বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ হতে মনোনয়ন পাবার ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী।

মানুষের সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক। আর এ সম্পর্ক যদি আর্থিক না হয়ে আত্মিক হয়, তবে তা অর্থবহ হয়ে ওঠে। আরেকটি বিষয় হলো, প্রকৃত অর্থে মানুষ, সমাজ ও রাষ্ট্রের উন্নয়নে একজন রাজনৈতিক কর্মী সম্পৃক্ত হতে পারছেন কিনা, নাকি জনবিচ্ছিন্ন হয়ে আত্মোন্নয়নে নিজেকে ও অন্যকে প্রভাবিত করছেন?

সাম্প্রতিককালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন। সেটি হলো, জনবিচ্ছিন্ন কাউকেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়া হবে না। আফজাল হোসেনর রাজনীতির মূল দর্শন হলো জনসম্পৃক্ততা, জনবিচ্ছিন্নতা নয়। তবে তা মৌসুমভিত্তিক জনসম্পৃক্ততা নয়, নিরবচ্ছিন্ন সম্পৃক্ততা।

অনেক ত্যাগ আর আন্দোলনের মাধ্যমে কর্মী ও জনগণ ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে একজনকে জনপ্রতিনিধি বানায়। যিনি জনপ্রতিনিধি হন, নির্বাচনের আগে কর্মী ও জনগণের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততার দৃঢ় বন্ধন থাকলেও সময় যতই গড়ায়, এ বন্ধন ততই শিথিল হয়ে পড়ে। নির্বাচনের সময় বা আগে একজন রাজনীতিবিদ জনপ্রতিনিধি হওয়ার জন্য কর্মী ও মানুষের কাছে যান। তাদের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা ও উন্নয়নের সহযাত্রী হিসেবে কাজ করেন; কিন্তু নির্বাচনের পর তার ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন ঘটে। জনগণের নেতা হয়ে যান জনবিচ্ছিন্ন একজন নেতা। এলাকার সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ থাকে না। আবার এলাকার ত্যাগী কর্মী ও সাধারণ জনগণ যখন তার কাছে কোনো নির্দেশনা অথবা অন্য কোনো ধরনের সমস্যা নিয়ে ঢাকায় আসে, তখন কর্মী ও সাধারণ জনগণকে পর্যাপ্ত সময় দেয়ার মতো মানসিকতা জনপ্রতিনিধির মধ্যে থাকে না। ফলে জনগণ ও কর্মীর সঙ্গে জনপ্রতিনিধির দূরত্ব তৈরি হয়।

একজন আফজাল হোসেন এই বৃত্তাবদ্ধ ধারণার বাইরের একজন মানুষ। শত কাজের মাঝেও তাঁর সবচেয়ে প্রিয় কাজ এলাকার জনগণ-দলের নেতা-কর্মীদের সাথে সময় ব্যয় করা।

আরেকটি বিষয় এখানে উল্লেখযোগ্য। তা হলো স্থানীয় এমপির প্রভাবে এলাকায় প্রভাবশালী একটি মহল গড়ে ওঠে। যাদের মূল উদ্দেশ্য হলো, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, দখলবাজি, জনগণ ও ত্যাগী কর্মীদের বিভিন্নভাবে শোষণ ও বঞ্চনার শিকারে পরিণত করা। এখানে জনবিচ্ছিন্ন স্থানীয় এমপি দৃশ্যমান ও অদৃশ্যমান দুই ধরনের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন। আপাতদৃষ্টিতে জনপ্রতিনিধি রাজধানীতে বসে নিজেকে ভালো দেখানোর চেষ্টা করেন, কিন্তু তার নির্বাচনী এলাকার অদৃশ্যমান অশুভ শক্তিকে এমনভাবে নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবহার করেন, যা জনগণ ও ত্যাগী কর্মীরা বুঝতে পারলেও পেশীশক্তি ও অর্থশক্তির ভয়ে নীরব থাকেন। আবার অনেক সময় কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য দলের মধ্যে অন্তদ্বর্ন্দ্ব সৃষ্টি করেন। পেশী শক্তির প্রশ্রয়ে কোন স্বার্থন্বের্ষী মহল আফজাল হোসেন নিজ এলাকায় কোন দিন গড়ে তোলেননি। এ ধারণাও তাঁর চিন্তার বাইরে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কোন কোন পেশী শক্তি দ্বারা স্থানীয় জনপ্রতিনিধির নিজস্ব বলয় গড়ে তোলা বিষয়টি অনুধাবন করে এ প্রসঙ্গে বলেছেন, ৩০০ আসনের জরিপ রিপোর্ট ও প্রকৃত চিত্র তাঁর কাছে আছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত প্রধানমন্ত্রীর কাছে রক্ষিত জনসম্পৃক্ততার জরীপে আফজাল হোসেন এমপি প্রথম সারির একজন। তাঁর রাজনৈতিক জীবনে ‘সাহসিকতার সাথে সত্যের উচ্চারণ’ তা যদি দলীয় কিংবা নিজের স্বার্থের পরিপন্থীও হয়। ক্ষমতার দাপটে কাউকে অযথা হয়রানি না করা তাঁর প্রত্যহ অঙ্গীকার; সে যদি ভিন্ন মত কিংবা পথেরও হয়। অর্থ কিংবা রাজনৈতিক ক্ষমতা যে মানুষটিকে কখনও ভুল পথে পরিচালিত করেনি বরং সর্বদা সাধারণ জনগণ বিশেষ করে নিরন্ন, অসহায় কিংবা অবহেলিত প্রতিবন্ধী মানুষ সকলকেই একই নারীর টানে, একই শ্রদ্ধায়-সম্মানে কিংবা স্নেহসুলভ আচরণে ধন্য করেছেন।

ব্যক্তি আফজাল তাঁর নিজস্ব অর্থ হতে এলাকার গরীব-দুঃখী, অসহায়, প্রতিবন্ধী মানুষের কল্যাণে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করেছেন। অকাতরে তিনি দান করেছেন নিজ নির্বাচনী এলাকায় বিশেষ করে শিক্ষার উন্নয়নে। বাজিতপুর-নিকলীর এমন কোন মাদ্রাসা, মসজিদ, মন্দির, স্কুল, কলেজ ও প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য বিশেষায়িত স্কুল নেই যেখানে তিনি সরকারি অনুদানের পাশাপাশি নিজস্বভাবে অনুদান প্রদান করেন নি।

এমপি মো. আফজাল হোসেন তাঁর ১০ বছরের সাংসদ থাকাকালীন কিশোরগঞ্জ জেলার (বাজিতপুর-নিকলী) নিকলীতে ৬০০ কোটি ও বাজিতপুরে এক হাজার ২০০ কোটি টাকার উন্নয়নমূলক কাজ করেছেন। বর্তমানে তাঁর হাতে রয়েছে কয়েকশ কোটি টাকার উন্নয়নমূলক কাজ। এই শিক্ষানুরাগী আগামী দিনে এলাকায় একটি ইকোনোমিক জোন ও আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করার স্বপ্ন দেখছেন।

সকল মৌসুমভিত্তিক অপশক্তি পরাজিত হউক তাঁর জনসম্পৃক্ততা ও বাজিতপুর-নিকলী উপজেলার নেতা-কর্মী এবং সাধারণ জনগণের কাছে জনবান্ধব নব কল্যাণ ধারার জনপ্রতিনিধির তুমুল জনপ্রিয়তার কাছে সকল মিথ্যাচার।

ম.মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া
কলামিস্ট ও প্রতিষ্ঠাতা, মৃত্তিকা প্রতিবন্ধী ফাউন্ডেশন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর


















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmail .com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ