কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


শহিদ দিবস থেকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস


 মোঃ শাহাদত হোসেন | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, বৃহস্পতিবার, ১২:০৮ | মত-দ্বিমত 


অমর একুশে ফেব্রুয়ারি আমাদের জাতীয় জীবনের গৌরবোজ্জ্বল দিন। ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি (৮ ফাল্গুন ১৩৫৮ বঙ্গাব্দ) ভাষার অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে পাকিস্তানি পুলিশের গুলিতে প্রাণ দিয়েছিলেন রফিক, বরকত, সালাম ও জব্বারসহ আরো অনেকেই। তারপর থেকেই দিনটি শহিদ দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। আর তাদের আত্মত্যাগও বিফলে যায়নি।

১৯৫৪ সালের প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্ট জয়লাভ করলে ৯ মে অনুষ্ঠিত গণপরিষদের অধিবেশনে বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়। এরপর ১৯৫৬ সালের সংবিধানের ২১৪ নম্বর অনুচ্ছেদে বাংলা ভাষা পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি পায়।

মূলত বাংলা ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়েই আমাদের স্বাধীনতার বীজ রোপিত হয়েছিল।

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে ২১ ফেব্রুয়ারি শহীদ দিবস ও জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। আর স্বাধীনতার পর থেকে দিনটি শুধু বাংলাদেশে নয়, বিশ্বের যেসব অঞ্চলে বাংলাদেশি আছে সেসব দেশের সেসব অঞ্চলে সীমিত পরিসরে হলেও ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’ গানে গানে দিনটি পালিত হয়ে আসছে। ক্রমেই ২১ ফেব্রুয়ারি বাঙালিদের কাছে শোকের দিন, ভালোবাসর দিন, গর্বের দিন, গৌরবের দিন হিসেবে নিজের অস্তিত্ব জানান দিতে থাকে।

বাঙালি আবেগপ্রবণ জাতি। বীরের জাতি। দেশপ্রেমিক জাতি। তাই সে যে দেশেই থাকুক না কেন- দেশের প্রতি, দেশের মানুষের প্রতি, দেশের শিল্প-সংস্কৃতির প্রতি রয়েছে তার গভীর মমত্ববোধ, অন্তহীন ভালোবাসা। এই মমতা ও ভালোবাসার টানেই ২১ ফেব্রুয়ারিকে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে ছড়িয়ে দিতে উদ্যোগী হন কানাডা প্রবাসী বাঙালি রফিকুল ইসলাম ও আব্দুস সালাম। ১৯৯৮ সালের ৯ জানুয়ারি কানাডার ভ্যানকুভার শহরে বসবাসরত রফিকুল ইসলাম ১৯৫২ সালের ভাষা শহিদদের অবদানের কথা উল্লেখ করে ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার জন্যে নিউইয়র্কে জাতিসংঘের মহাসচিব বরাবর চিঠি লিখেন।

এটি ছিল একেবারেই ব্যক্তিগত উদ্যোগ। সেসময় জাতিসংঘ মহাসচিবের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত ছিলেন হাসান ফেরদৌস। তিনি এমন প্রস্তাবে উৎসাহিত হন এবং রফিকুল ইসলামকে অনুরোধ করেন, তিনি যেন আন্তর্জাতিক কোন সংগঠেনের মাধ্যমে এ প্রস্তাব প্রেরণ করেন।

সেই পরামর্শ মোতাবেক রফিকুল ইসলাম তার সহযোদ্ধা আব্দুস সালামকে নিয়ে A Group of Mother Language of the World নামে একটি সংগঠন গড়ে তুলেন। এতে বাংলা, ইংরেজি, ফিলিপিনো, ক্যান্টানিজ, কা-চি, জার্মান ও হিন্দি ভাষার লোকজন অন্তর্ভুক্ত ছিলো। এরপর এ সংগঠনের পক্ষে অ্যালবার্ট ভিনজন, কারমেন ক্রিস্টোবাল, জ্যাসন মোরিন, সুসান হজিন্স, ড. কেলভিন চাও, নাজনীন ইসলাম, রেনাটে মার্টিনস, করুণা জোসি, রফিকুল ইসলাম ও আব্দাস সালাম ১৯৯৮ সালের ২৯ মার্চ একই দাবীতে জাতিসংঘের মহাসচিবের কাছে প্রাতিষ্ঠানিক পত্র প্রেরণ করেন।

প্রাতিষ্ঠানিক পত্র পেয়ে জাতিসংঘের মহাসচিবের অফিস থেকে চিঠি দিয়ে পত্র প্রেরকদের জানানো হয়, এ বিষয়ে প্যারিসে অবস্থিত জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংগঠন ইউনেস্কোর সাথে যোগাযোগ করতে হবে। হাসান ফেরদৌস তাদেরকে ইউনেস্কোর ভাষা বিভাগের জোশেফ পডের সাথে দেখা করতে পরামর্শ দেন।

১৯৯৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে রফিকুল ইসলাম ও আব্দুস সালাম প্যারিসে জোসেফ পডের সাথে সাক্ষাৎ করলে তিনি তাদেরকে একই বিভাগের আন্না মারিয়ার সাথে যোগযোগ করতে বলেন। আন্না মারিয়া তাদের কথা মন দিয়ে শোনেন এবং ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণার দাবীর সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন। তবে বিষয়টি ইউনেস্কোর পরিচালনা পরিষদের কোন সদস্য রাষ্ট্রের (যথা- বাংলাদেশ, ভারত, কানাডা, ফিনল্যান্ড, হাঙ্গেরি) মাধ্যমে উপস্থাপনের পরামর্শ দেন। তবে এ প্রস্তাব পৌঁছতে হবে ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে।

সময় খুবই কম। কিন্তু রফিকুল ইসলাম ও আব্দাস সালাম হাল ছাড়েন নি। তাঁরা দ্রুত বাংলাদেশের শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাথে যোগাযোগ করেন এবং ইতিবাচক সাড়া পান। এসময় বাংলাদেশের শিক্ষামন্ত্রী ছিলেন এ এস এইচ কে সাদেক। বিষয়টি রাষ্ট্রের জন্যে গর্বের বিষয় মনে করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন চেয়ে দ্রুত নোট পাঠায়। এসময় বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। ইতিবাচক কাজে সাহসী ভূমিকা নিতে তিনি সিদ্ধহস্ত। তাই সময়স্বল্পতার বিষয়টি অনুধাবন করে বাঙালি জাতির গৌরব বৃদ্ধিকল্পে নথি অনুমোদনের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া ছাড়াই প্রস্তাবটি গ্রহণ করে তাতে স্বাক্ষর করেন এবং ফ্যাক্সযোগে তা পাঠিয়ে দেন ইউনেস্কোর সদর দপ্তরে। ৯ সেপ্টেম্বর অফিসের সময়সীমা শেষ হওয়ার একঘন্টা আগে ফ্যাক্সবার্তা ইউনেস্কোর সদর দপ্তরে পৌঁছায়।

দু’ বছর পর পর ইউনেস্কোর সাধারণ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৯৯ সালের নভেম্বরে ছিল ইউনেস্কোর ৩০তম সাধারণ সম্মেলন এবং ১৫৭তম অধিবেশন। শিক্ষামন্ত্রী এ এস এইচ কে সাদেকের কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের মূল প্রস্তাবক হয় বাংলাদেশের সাথে সৌদি আরবও। আর এ প্রস্তাবের সমর্থক ছিল আইভরি কোস্ট, ইতালি, ইন্দোনেশিয়া, ইরান, কমোরোস, ডোমেনিকান রিপাবলিক, পাকিস্তান, ওমান, পাপুয়া নিউগিনি, ফিলিপাইন, বাহামাস, বেনিন, বেলারুশ, গাম্বিয়া, ভারত, ভানুয়াতু, মাইক্রোনেশিয়া, রুশ ফেডারেশন, লিথুয়ানিয়া, মিশর, শ্রীলংকা, সিরিয়া ও হন্ডুরাস।

১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর। এক ঐতিহাসিক দিন। ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের প্রস্তাব উত্থাপিত হলো সভার প্রথমেই। ১৮৮টি দেশ এতে সমর্থন জানালো। কোন দেশই এর বিরোধিতা করলো না। সর্বসম্মতিক্রমে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে গৃহীত হলো। এর ফলে ২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে দিবসটি জাতিসংঘের সদস্য দেশসমূহ যথাযোগ্য মর্যাদায় পালন করছে। আর ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে ২১ ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেয় জাতিসংঘ।

(লেখক মোঃ শাহাদত হোসেন, সহকারী অধ্যাপক, ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগ, গুরুদয়াল সরকারি কলেজ, কিশোরগঞ্জ। Email: sahadot.hossain@gmail.com)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর