কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


অহংকারের ঋজুতায় ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ্


 জাহাঙ্গীর আলম জাহান | ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ৮:৩২ | ইতিহাস-ঐতিহ্য 


আজকের প্রেক্ষাপটে দেশের ভৌগোলিক পরিসীমায় কিশোরগঞ্জ একটি গুরুত্বপূর্ণ জনপদ। তবে এ-কথা সত্য যে, কিশোরগঞ্জ নামে এই জনপদ গড়ে ওঠার ইতিহাস খুব প্রাচীন নয়। মধ্যযুগের শেষ দিকে এ অঞ্চলে নিকলী, বাজিতপুর, হোসেনপুর ও জঙ্গলবাড়ি নামক স্থানের অস্তিত্ব সুপ্রমাণিত।

বাংলার প্রাচীন মানচিত্রটি অঙ্কিত হয়েছিল জেমস রেনেলের হাতে। তাঁর Rennell’s Bengal Atlas 1783 ১৭৮৩ পর্যালোচনা করে কিশোরগঞ্জ নামক কোনো জনপদের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। রেনেলের মানচিত্রই প্রমাণ করে যে, অষ্টাদশ শতকের শেষভাগে এসেও কিশোরগঞ্জ নামক জনপদটি উল্লেখযোগ্য স্থানের মর্যাদায় উন্নীত হতে পারেনি।

১৮৪৫ খ্রিষ্টাব্দে ময়মনসিংহের তৎকালীন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট শাসনকার্য পরিচালনার সুবিধার্থে জেলার পূর্ব ও পশ্চিম দিকে দুটি পৃথক মহকুমা স্থাপনের প্রস্তাব করেছিলেন। সেই প্রস্তাবে শেরপুর, সিরাজগঞ্জ, হাজিপুর ও পিংনা থানা নিয়ে জামালপুর মহকুমা এবং নিকলী, বাজিতপুর, ফতেহ্পুর (বর্তমান কেন্দুয়া) ও মাদারগঞ্জ থানা নিয়ে হোসেনপুর বা নিকলী মহকুমা স্থাপনের প্রস্তাব করা হয়।

জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের এই প্রস্তাব থেকে এটাই স্পষ্ট যে, তখনও কিশোরগঞ্জ নামক এই জনপদটি গুরুত্বহীন ও অনুল্লেখ্য হিসেবেই বিবেচিত ছিল। অথবা ১৮৪৫ সনেও কিশোরগঞ্জ নামক কোনো জনপদ আদৌ সৃষ্টি হয়নি।

১৮৬০ সালে কিশোরগঞ্জ নামক থানাসহ নতুন মহকুমা স্থাপিত হয়। মহকুমা সৃষ্টির মধ্য দিয়েই প্রকৃত অর্থে ‘কিশোরগঞ্জ’ নামক জনপদের প্রচার ও প্রসার বৃদ্ধি পেতে থাকে। মহকুমা প্রতিষ্ঠার ১২৪ বছর পর ১৯৮৪ সালের ১ ফেব্রুয়ারি কিশোরগঞ্জ একটি পৃথক প্রশাসনিক জেলা হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।

কিশোরগঞ্জ নামক জনপদটি খুব প্রাচীন না হলেও এ অঞ্চলের অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থান প্রাচীনতার ঐতিহ্যে সমুজ্জ্বল। সে-রকম একটি উল্লেখযোগ্য স্থান আজকের শোলাকিয়া। কিশোরগঞ্জ মৌজার ৬.৬১ একর ভূমিতে প্রতিষ্ঠিত এশিয়ার বৃহত্তম ঈদের জামাত এ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। শোলাকিয়া ঈদগাহটি দেশে-বিদেশে ব্যাপক পরিচিতি লাভ করেছে।

টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে এ মাঠের ঈদ-জামাত সরাসরি সম্প্রচারিত হওয়ার কারণে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বিদেশিদের কাছেও শোলাকিয়া একটি গুরুত্বপূর্ণ জনপদের মর্যাদায় উন্নীত হয়। শোলাকিয়ার ঐতিহাসিক তাৎপর্য ও প্রেক্ষিত পর্যালোচনা করে এর অতীত ও বর্তমানের চালচিত্র কিছুটা খতিয়ে দেখা যাক।

মোঘল আমলে বার ভূঁইয়ার মধ্যে অন্যতম ছিলেন দেওয়ান ঈশা খাঁ। আনুমানিক ১৫৮০ খ্রিষ্টাব্দে জঙ্গলবাড়ির কোচ রাজা লক্ষণ হাজরাকে বিতাড়িত করে ঈশা খাঁ এ অঞ্চলকে তার শাসনের অর্ন্তভূক্ত করেন। পরবর্তী সময়ে আজকের শোলাকিয়া নামক স্থানে ঈশা খাঁ’র নামানুসারে ঈশাগঞ্জ নামে একটি হাট প্রতিষ্ঠিত হয়। পুরনো দলিল-দস্তাবেজে ইছাগঞ্জ বা ইচ্ছাগঞ্জ নামে এই এলাকার পরিচয় পাওয়া যায়। শোলাকিয়া ঈদগাহ্ সংলগ্ন গরুর হাটটি এখনও ইছাগঞ্জ নামে ব্যাপকভাবে পরিচিত। অনুমান করা অসঙ্গত হবে না যে, ঈশাগঞ্জ শব্দটিই সময়ের বিবর্তনে স্থানীয় উচ্চারণের কারণে ইছাগঞ্জে পরিণত হয়েছে।

১৯৫০ সালে হয়বতনগরের বিশিষ্ট জমিদার দেওয়ান মান্নানদাদ খান শোলাকিয়া ঈদগাহের জন্য ওয়াক্ফ দলিলের মাধ্যমে ভূমি প্রদান করেন। সেই দলিলে উল্লেখ করা হয়েছে যে, শোলাকিয়া মাঠে দুইশ’ বছর আগে থেকে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ওয়াক্ফ দলিলের এই তথ্য অনুযায়ী ১৭৫০ সাল থেকে শোলাকিয়া মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হওয়ার সত্যতা পাওয়া যায়। সে হিসেবে বর্তমানে শোলাকিয়া ঈদগাহের বয়স ২৬৯ বছর অতিক্রান্ত হচ্ছে।

ইছাগঞ্জ বা ইচ্ছাগঞ্জ নামক এলাকাটি কীভাবে শোলাকিয়া নাম লাভ করলো এ নিয়ে বিভিন্নমুখী তথ্যের উপস্থিতি পাওয়া যায়। প্রচলিত জনশ্রুতিগুলো নিচে উল্লেখ করা হলো।

প্রথম জনশ্রুতিটি এ-রকম, দীর্ঘকাল আগে (কারো কারো মতে ১৮২৮ সালে) এ ঈদগাহের জামাতে একসঙ্গে এক লক্ষ পঁচিশ হাজার বা সোয়ালাখ মুসুল্লি ঈদের নামাজ আদায় করেছিলেন বলে এলাকাটি সোয়ালাখ থেকে সোয়ালাখিয়া এবং অতঃপর শোলাকিয়া নাম পরিগ্রহ করে।

দ্বিতীয় জনশ্রুতি মতে, কিশোরগঞ্জের বুক চিরে প্রবাহিত আজকের মৃতপ্রায় নরসুন্দা নদীটি এক সময় খুবই সুগভীর ও বেগবতী ছিল। মোঘল আমলে এই নদীর পাশে বর্তমান শোলাকিয়ার কাছাকাছি স্থানে গড়ে উঠেছিল একটি নৌবন্দর; যেখানে বড় বড় বাণিজ্যতরী এসে নোঙর করতো। সেকালের কোনো এক সময় এই বন্দরে ১৬টি লবণ বোঝাই ফরাসি নৌযান নোঙর করেছিল। বন্দর কর্তৃপক্ষ লবণ বোঝাই ফরাসি নৌযান থেকে মোটা অংকের শুল্ক আদায় করেছিল বলে ‘শুল্ক’ শব্দটি বিবর্তিত হয়ে শোলাকিয়া হয়েছে বলে ধারণা প্রচলিত রয়েছে।

প্রায় একই রকম আরও একটি জনশ্রুতিও প্রচলিত পাওয়া যায়। কোম্পানি আমলে নরসুন্দা নদী-বন্দরের পাশে ফরাসি বণিকদের লবণ ও শুকনো মাছের দুটো আড়ত ছিল বলে অনেকের ধারণা। আড়তের জন্য বাইরে থেকে লবণ আমদানির প্রয়োজন পড়তো। আবার এই বন্দর দিয়ে বাইরে শুকনো মাছও রপ্তানি করা হতো। আমদানি-রপ্তানির কারণে কোম্পানিকে বিশেষ শুল্ক পরিশোধ করতে হতো। এই শুল্ক আদায়ের কারণেও স্থানটি ‘শুল্ক’ থেকে শোলাকিয়ায় পরিণত হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন।

চতুর্থ জনশ্রুতি মতে, মোঘল আমলে এখানে রাজস্ব আদায়ের জন্য একটি ডিহি বা অফিস অবস্থিত ছিল। সেই ডিহির অধীনে পরগণার রাজস্ব ছিল সোয়ালাখ টাকা। রাজস্বের সোয়ালাখ শব্দটিই স্থানীয় উচ্চারণ বিবর্তনে সোয়ালাখ>সোয়ালাখিয়া>শোলাকিয়া হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন।

উল্লিখিত চারটি জনশ্রুতি বা ধারণার মধ্যে প্রথমোক্ত জনশ্রুতিটিই জনমনে সমধিক গ্রহণযোগ্য হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে। অর্থাৎ কোনো এক ঈদের জামাতে একসাথে এ মাঠে সোয়ালাখ মুসুল্লি নামাজ আদায় করেছিলেন বলেই এলাকাটি সোয়ালাখ থেকে শোলাকিয়া নামে পরিচিত হয়ে গেছে বলে বিশ্বাস প্রতিষ্ঠিত পাওয়া যায়।

শোলাকিয়া ঈদগাহের খ্যাতি আজ দেশের সীমানা পেরিয়ে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। এই খ্যাতিকে বিশ্বমাত্রিকতায় নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে গণমাধ্যমের ভূমিকাই বিশেষভাবে প্রণিধানযোগ্য। প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় শোলাকিয়া ঈদগাহ্ নিয়ে প্রচুর সংবাদ পরিবেশিত হওয়ায় ঈদগাহের খ্যাতি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ে।

১৯৯৩ সালে ঈদগাহ্ পরিচালনা কমিটির সভাপতি হিসেবে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মো. ফজলুল হক সর্বপ্রথম বিটিভি’র মাধ্যমে শোলাকিয়া ঈদ-জামাতের খবর প্রচারের উদ্যোগ গ্রহণ করেন। সেই থেকে প্রতি বছর এই ঈদ-জামাতের সচিত্র সংবাদ বিটিভিতে প্রচার পেতে থাকে। পরবর্তী সময়ে বেসরকারি টিভি চ্যানেলের যাত্রা সূচিত হওয়ার পর প্রায় প্রতিটি চ্যানেলেই শোলাকিয়া ঈদ-জামাতের কভারেজ দেওয়া শুরু হয়।

বেসরকারি টিভি চ্যানেল এনটিভি সর্বপ্রথম ঈদের জামাত সরাসরি সম্প্রচার করে। গত ক’বছর যাবৎ সরাসরি সম্প্রচারের দায়িত্বটি পালন করছে দেশের শীর্ষস্থানীয় টিভি প্রতিষ্ঠান চ্যানেল-আই। এখন টেলিভিশনের পর্দায় সারাবিশ্বের কোটি কোটি দর্শক শোলাকিয়া ঈদগাহের জামাত সরাসরি অবলোকনের সুযোগ পাচ্ছেন। এতে করে এই মাঠের খ্যাতি পূর্বের তুলনায় আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে প্রতি বছরই ঈদের জামাতে দেশ-বিদেশের মুসুল্লির সংখ্যাও বেড়ে চলেছে।

একশ্রেণির মানুষ মনে করেন যে, শোলাকিয়ায় পরপর তিনটি জামাতে অংশ নিলে এক হজ্বের সওয়াব হাসিল হয়। যদিও বিশিষ্ট মুসলিম ধর্মবেত্তাগণ এই ধারণাকে অবাস্তব হিসেবে নাকচ করে দেন।

শোলাকিয়া ঈদগাহের অভ্যন্তরে মুসুল্লিদের মোট কাতার সংখ্যা হয় ২৬৫টি। প্রতি কাতারে ৫ শত মুসুল্লি নামাজে অংশ নেন। এতে করে ঈদগাহের ভেতরে মুসুল্লির সংখ্যা দাঁড়ায় ১,৩২,৫০০ জন। তবে ঈদুল ফিতরের দিনে শোলাকিয়ার ঈদ-জামাত শুধু মাঠের অভ্যন্তরেই সীমাবদ্ধ থাকে না। মাঠ উপচিয়ে আশপাশের খোলা জমি, ঘরের ছাদ, নদীর পাড় এবং রাস্তায়ও মুসুল্লিদের অগণিত কাতার সৃষ্টি হয়। ফলে প্রতি ঈদ-জামাতে ৩ থেকে সাড়ে ৩ লক্ষ মুসুল্লি এ মাঠে নামাজ আদায় করেন বলে ধারণা করা হয়।

ঈদের ২/৩ দিন আগে থেকেই দূর-দূরান্তের মুসুল্লিরা এখানে জড়ো হতে শুরু করেন। ঈদকে সামনে রেখে কিশোরগঞ্জে সৃষ্টি হয় এক বিশাল জনসমুদ্র। মুসুল্লিদের দেখভাল করার জন্য ঈদগাহ্ পরিচালনা কমিটির সদস্যগণ এবং স্কাউটের উদ্যমী তরুণেরা দিনরাত দায়িত্ব পালন করেন। মুসুল্লিদের থাকা-খাওয়াসহ যাবতীয় তদারকি ঈদগাহ্ পরিচালনা কমিটির তত্ত্বাবধানেই সম্পন্ন হয়ে থাকে।

জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত ঈদগাহ্ পরিচালনা কমিটি রমযান শুরুর আগে থেকেই ঈদ-জামাতের ব্যবস্থাপনা নিয়ে তৎপর হয়ে ওঠে। আইন-শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার বিভাগের তৎপরতাও থাকে অন্য যে-কোনো সময়ের তুলনায় অধিক নিবিড় ও কঠোর। বর্তমান সময়ে এই নিরাপত্তা পরিকল্পনায় যুক্ত হয়েছে বিজিবি।

জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, জেলা পরিষদ, গণপূর্ত, জনস্বাস্থ্য, পৌরসভা, পিডিবি, স্কাউট ও ফায়ার সার্ভিসসহ সকল বিভাগের সমন্বিত ভূমিকায় প্রতি বছর যথাযোগ্য মর্যাদার সাথে ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহে শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খল পরিবেশে পবিত্র ঈদের জামাত সুসম্পন্ন হয়। বর্তমানে সর্ববৃহৎ এই ঈদের জামাতে ইমামতির দায়িত্ব পালন করছেন প্রখ্যাত আলেম ও ইসলামি চিন্তাবিদ মওলানা ফরিদ উদ্দিন মাসঊদ।

শোলাকিয়া ঈদগাহ্ কিশোরগঞ্জের একটি ঐতিহাসিক স্থাপনা। এর রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়নে সরকার সব সময়ই আন্তরিক। সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ও ঈদগাহ্ পরিচালনা কমিটির আন্তরিক তত্ত্বাবধানে শোলাকিয়া ঈদগাহের সার্বিক উন্নয়নে আরও গতিশীলতা ফিরে আসবে বলে জেলাবাসী প্রত্যাশা করে। জেলার ইতিহাস-ঐতিহ্যের অন্যতম পাদপীঠ শোলাকিয়া ঈদগাহ্ কিশোরগঞ্জবাসীর গৌরব ও অহঙ্কারের ঋজুতাকে দিনদিন আরও উচ্চকিত করছে।

আগামীর বিষয়: কিশোরগঞ্জের গণকবর ও বধ্যভূমি

(জাহাঙ্গীর আলম জাহান, ছড়াকার, প্রাবন্ধিক, ইতিহাস-মুক্তিযুদ্ধ ও লোকসংস্কৃতির গবেষক, প্রকাশিত গ্রন্থের সংখ্যা ৪১টি।)




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর