কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


দুর্নীতিবাজদের তথ্য সংগ্রহের জন্য ২৪ ঘন্টা হটলাইন চালুর দাবি


 তানিয়া সুলতানা হ্যাপি | ৩০ অক্টোবর ২০১৯, বুধবার, ৫:০১ | মত-দ্বিমত 


গবেষণাধর্মী প্রতিষ্ঠান রিসার্চ ইন্টারন্যাশনাল চলমান ক্যাসিনো বিরোধী অভিযান সর্ম্পকে জনমত জরিপ চালায়। জানা যায় দেশের ৯৭ শতাংশ মানুষই এতে সন্তুষ্ট। ৫৮ শতাংশ মানুষ মনে করেন, অবৈধ ক্যাসিনো বাণিজ্যের সঙ্গে বিভিন্ন সময় ক্ষমতাসীন দলের কিছু নেতা সরাসরি জড়িত থাকেন। আর ৯৯ শতাংশ অংশগ্রহণকারীই মনে করেন, শেখ হাসিনাই দেশকে সন্ত্রাস ও দুর্নীতিমুক্ত করতে পারবেন।

৮৮ শতাংশ মানুষ বলেছেন, এই অভিযানের মাধ্যমে সরকার ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। ১৮ শতাংশ মনে করেন, মোটামুটি দুর্নীতিমুক্ত হবে। এক শতাংশ মনে করেন, পারবেন না। ৪ শতাংশ বলেছেন, অভিযানে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। ৮ শতাংশ বলেছেন, এই অভিযানের কোনো প্রভাব পড়বে না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে বদ্ধপরিকর। তিনি চান আগামী প্রজন্ম বিশ্বের দরবারে মাথা উচু করে করে বলবে বাংলাদেশে কোথাও কোন দুর্নীতি হয় না।

আমরা আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি, কিন্তু আমরা দেখেছি কী অসীম দূরদর্শিতা ও সাহসিকতায় শেখ হাসিনা দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের মাধ্যমে বাংলাদেশকে দুর্নীতিমু্ক্ত বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তুলতে সংগ্রাম করছেন। দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ অভিযানকে সফল করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা ও দুদকের প্রচেষ্টাকে অভিনন্দন জানিয়ে বাংলাদেশের সকল সচেতন নাগরিকদের সরব হওয়া উচিত।

যে যার অবস্থান থেকে, পাশে যে দুর্নীতি করছে, তার তথ্য জনসম্মুখে তুলে ধরুন, সামাজিকভাবে তাকে বয়কট করুন, আইনশৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তথ্য দিন। দুদকে তথ্য দিন।

আজকাল কোন একটা ইস্যু পাইলেই দেখি ফেসবুক গরম হয়ে ওঠে। কিন্তু দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ নিয়ে নিউজফিডে কোন পোস্ট খুব বেশি চোখে পড়ে না। আপনারা দুর্নীতি বিরোধী অভিযান সফল করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যগুলো শেয়ার করুন। কিছু লিখুন। আপনার বক্তব্য তুলে ধরুন। শেখ হাসিনার দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে আমি পাশে আছি আপনিও পাশে থাকুন। দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করুন।

ইতিমধ্যেই দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক খান বলেছেন, দুদক এখন আর দন্তহীন বাঘ নয়। দুদক এখন একটি শক্তিশালী স্বাধীন প্রতিষ্ঠান। দুদকের কামড় দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। দুদকের আঁচড় লাগলেও অনেকে সহ্য করতে পারে না।

তিনি বলেন, দুদক ১০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করার প্রক্রিয়া শুরু করেছে। এই তালিকা আরও দীর্ঘ হবে, বৃদ্ধি পাবে।

তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে দুষ্ট লোকের সংখ্যা খুব বেশি নয়। ৪৯২টি উপজেলা রয়েছে। প্রতি উপজেলায় যদি ১০ জন করে দুষ্ট লোককে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা যায় তাহলে দেশ থেকে দুর্নীতি-অনিয়ম অনেকটা কমে যাবে।

আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল বাংলাদেশ। দুর্নীতি বিরোধী অভিযানে সারাদেশে থেকে জরুরি তথ্য পেতে এবং সাধারণ সচেতন জনগণকে সম্পৃক্ত করতে ২৪ ঘন্টা হটলাইন চালু রাখা হোক।

যদিও দুদকের একটি হটলাইন রয়েছে, সেটি অনেকেই জানেন না, হটলাইন নম্বরটি গণমাধ্যমে প্রচার করতে হবে বেশি বেশি করে। যাতে সচেতন জনগণ তথ্য দিতে পারেন। নির্দিষ্ট সময়ের জন্য হলে সেটি তথ্য সংগ্রহের জন্য যথেষ্ট নয়, তথ্য সংগ্রহের জন্য ২৪ ঘন্টা হটলাইন চালু রাখলে সচেতন জনগণের সুবিধা হবে।

তাই যদি ২৪ ঘন্টা হটলাইন চালু করা হয় তবে খুব সহজে দুর্নীতিবাজদের তথ্য সংগ্রহ করা যাবে। তারা মোবাইল থেকে ফোন করে সহজেই তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে পারবে দুদককে।

লেখকঃ তানিয়া সুলতানা হ্যাপি সহ তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক বাংলাদেশ যুব মহিলা লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর