kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ঝুঁকিতে হাওরের খাদ্যনিরাপত্তা



 বিশেষ প্রতিনিধি | ৭ জানুয়ারি ২০১৮, রবিবার, ৩:১৯ | হাওর 


হাওর বৈচিত্রময় ভূ-প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্যে অনন্য এক স্বতন্ত্র সত্তা। এমন বিচিত্র প্রকৃতি ও জীবনধারা বাংলাদেশের আর কোথাও দেখা যায় না। শুকনো মৌসুমে দিগন্তবিস্তৃত মাঠের পর মাঠ জুড়ে সবুজের সমারোহ আর অতিথি পাখির মেলা। বর্ষায় চারদিক থৈ থৈ করা পানি। যেন সৌন্দর্যের বিপুল পসরা সাজিয়ে বসে আছে হাওরের প্রকৃতি। জীবন ও প্রকৃতির এমন বৈচিত্রের সহজাত চিত্র হাওরাঞ্চলের।

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সাত জেলা সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার ৭ লাখ ৮৪ হাজার হেক্টর জলাভূমিতে ৪২৩টি হাওর নিয়ে এই হাওরাঞ্চল গঠিত। বাংলাদেশের মোট উৎপাদিত ধানের এক-পঞ্চমাংশ আসে এই হাওরাঞ্চল থেকে। এখানে রয়েছে প্রাকৃতিক মাছের বিশাল ভাণ্ডার। এছাড়া হাওরের রয়েছে বিপুল পর্যটন সম্ভাবনা।

৪২৩টি হাওর নিয়ে গঠিত হাওরাঞ্চলের ১২২টি হাওর কিশোরগঞ্জ জেলায় অবস্থিত। জেলার সম্পূর্ণ হাওর অধ্যুষিত উপজেলাগুলো হচ্ছে- ইটনা, অষ্টগ্রাম, মিঠামইন ও নিকলী। এছাড়া করিমগঞ্জ, কটিয়াদী, বাজিতপুর, তাড়াইল, ভৈরব ও কুলিয়ারচর উপজেলার অংশবিশেষ হাওর এলাকায় অবস্থিত। এখানকার সব জমি এক ফসলি হলেও খুবই উর্বর। ফলে প্রতিবারই হাওরে বাম্পার বোরো উৎপাদিত হয়।

হাওর অধ্যুষিত এই জেলায় গড়ে প্রতিবছর ১ লক্ষ ৭৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়। আবাদী এই জমি থেকে প্রায় ৭ লক্ষ মেট্রিক টন চাউল উৎপন্ন হয়। অথচ কিশোরগঞ্জ জেলার মোট খাদ্য চাহিদা পাঁচ লক্ষ মেট্রিক টন চাউল। ফলে আউশ, আমন ছাড়া কেবল বোরো থেকেই জেলার মোট খাদ্য চাহিদার থেকে প্রায় ২ লক্ষ মেট্রিক টন বেশি চাউল আসে।

এছাড়া এখানকার হাওর-বিলে পাওয়া যায় অন্তত ১৫০ প্রজাতির দেশী জাত। মাছ ধরাটা পূর্বে একটি সম্প্রদায়ভূক্ত পেশা থাকলেও এলাকার সাধারণ কৃষকও বর্ষার বেকার সময়ে মাছ ধরা পেশায় যুক্ত হয়। ঘোলা মাছের খনি হিসেবে পরিচিত এখানকার হাওর ও জলাভূমিগুলোর মাছ দেশের বিভিন্ন জেলা ছাড়াও দেশের বাইরে রপ্তানি হয়। এভাবে কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলে উৎপাদিত বোরো ধান ও মাছ দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে বিরাট অবদান রেখে আসছে। ফলে খাদ্য নিরাপত্তা কাঠানোয় এই এলাকার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে।

দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে হাওরের এমন গুরুত্বপূর্ণ অবদান থাকার পরও জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব, কৃষি জমিতে মাত্রাতিরিক্ত সার ও কীটনাশক ব্যবহার, ইঞ্জিনচালিত যানবাহনের দূষণ, অবাধে মৎস্য নিধন, অপরিকল্পিত উন্নয়ন কর্মকা- প্রভৃতি নানা কারণে হাওরের পরিবেশ ও প্রতিবেশ এখন বিপন্ন। ফলে নাব্যতা হারাচ্ছে হাওরাঞ্চলের নদ-নদী। ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে হাওরের জলজ প্রাণি ও উদ্ভিদের আবাসস্থল। এতে হাওরের জীববৈচিত্রও পড়েছে হুমকির মুখে। এরপরও এখানকার হাওর ও জলাভূমিগুলোর বিপন্নপ্রায় পরিবেশ এবং প্রতিবেশের উন্নয়নে দীর্ঘদিনেও কোন ধরনের পদপে গ্রহণ করা হয়নি। ফলে প্রায় প্রতি বছর আগাম বন্যা কিংবা সেচের মৌসুমে পানির অভাব হাওরের বিস্তীর্ণ এলাকার ফসল উৎপাদনকে মারাত্মকভাবে ব্যাহত করছে।

একফসলি এই এলাকার একমাত্র ফসলটি ঠিক ভাবে ঘরে তুলতে না পারায় এবং উৎপাদিত ধানের ন্যায্য মূল্য না পাওয়ায় হাওরের কৃষককে প্রতি বছরই লোকসান গুণতে হয়। এ পরিস্থিতিতে গত বোরো মৌসুমে চৈত্রের আগাম বন্যায় ফসলহানি কৃষকের মেরুদণ্ড ভেঙ্গে দিয়েছে। একমাত্র বোরো ফসল হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছেন হাওরের কৃষক। অথচ সংসারের খোরাকি, ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া, হাট-বাজার এমনকি বিয়েশাদিসহ উৎসব-পার্বণের সব খরচ নির্বাহ করা হতো এই বোরো ধান বিক্রির টাকা দিয়ে। খেয়ে-পরে বেঁচে থাকার একমাত্র অবলম্বন বোরো ধান হারিয়ে কৃষকের মাঝে এখনো বিষাদের ছায়া।

জেলা প্রশাসনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, কিশোরগঞ্জের ১১টি উপজেলায় মোট ১ লাখ ৫০ হাজার ৫৩৬ হেক্টর জমিতে গত মৌসুমে বোরো আবাদ করা হয়েছিল। এর মধ্যে ৬১ হাজার ২০৭ হেক্টর জমি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই কারণে প্রায় ২ লাখ ১৬ হাজার ৬১ মেট্রিক চাল উৎপাদনে ক্ষতি হয়েছে, যার আর্থিক মূল্য ৮৬৪ কোটি ২৪ লাখ ২৮ হাজার ৪শ’ টাকা। জেলায় মোট ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকের সংখ্যা ১ লাখ ৫২ হাজার ৪৮১ জন।

তবে মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, জেলার সবকটিই হাওরের ফসলই আগাম বন্যায় আক্রান্ত হয়। সর্বনাশা এই আগাম বন্যায় অন্তত দুই লাখ কৃষক সর্বশান্ত হয়ে পড়েন। ধান হারিয়ে সংকটাপন্ন হাওরবাসী বর্ষার পানিতে মাছ ধরে কোন রকমে জীবিকা নির্বাহ করতে চেয়েছিলেন। এ জন্যে তারা বিভিন্ন মাধ্যমে ভাসান পানিতে মাছ ধরার সুযোগ দেয়ার দাবিও জানিয়েছিলেন। কিন্তু ইজারাদার নামে ওয়াটারলর্ডদের চোখ রাঙানি আর অত্যাচার নির্যাতনের মুখে জালও ছাড়তে হয়েছে তাদের। এছাড়া হাওর এলাকায় গড়ে ওঠেনি কোন শিল্প-কারখানা। ফলে হাওরাঞ্চলে প্রকট দারিদ্রের মধ্য দিয়ে মানুষ দুর্বিষহ জীবনযাপন করলেও জীবনধারণের জন্য মিলেনি কোন কাজ। বাধ্য হয়ে তাদের প্রিয় গৃহকোণ ছেড়ে শ্রম বিক্রি করতে নিজেকে পণ্য হিসেবে দাঁড় করাতে হয়েছে রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গার শ্রমিকের হাটে।

অকাল বন্যা, বর্ষার ভাঙন, মৌসুমী বেকারত্ব এবং দারিদ্রের নির্মম কষাঘাতে জর্জরিত হাওরবাসীর জীবন। অন্যতম খাদ্য উৎপাদক হয়েও হাওরবাসীর খাদ্য নিরাপত্তা রয়েছে চরম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায়। জীবিকার তাগিদে বাধ্য হয়ে হাওরের মানুষ দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ছেন। কাজের খোঁজে রাজধানী ঢাকা শহরের নূরের চালা, কচুতে, ধামালকোট, ইব্রাহীমপুর, কাফরুল, মীরপুর, গাজীপুরের সালনা, বোর্ডবাজার, কোনাবাড়ী, নারায়নগঞ্জের ফতুল্লা, পাগলা, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা, আশুগঞ্জ, সিলেটের ভোলাগঞ্জ, চট্টগ্রামসহ দেশের নানা প্রান্তের উদ্বাস্তু মানুষের মিছিলে তারাই এখন সংখ্যাগরিষ্ঠ। বেসরকারি একটি সংগঠনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আগাম বন্যা, ভাঙনসহ নানা প্রতিকূলতার কারণে গত ২০ বছরে হাওরের নিজগ্রাম ছেড়ে দেশের বিভিন্ন জায়গার বাসিন্দা হয়েছেন অন্তত ২ লাখ মানুষ।

আদমশুমারির পরিসংখ্যানেও এই তথ্যকে সমর্থন করে। ২০১১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী, মিঠামইন উপজেলার জনসংখ্যা ১ লাখ ২৬ হাজার ৬৯৭ জন যা ২০০১ সালের জনসংখ্যা থেকে ৯৫০ জন কম। ২০০১ সালের আদমশুমারি অনুযায়ী সেখানে জনসংখ্যা ছিল ১ লাখ ২৭ হাজার ৬৪৭ জন। ইটনা উপজেলায় ২০০১ সালে জনসংখ্যা ছিল ১ লাখ ৫৭ হাজার ৮৫২ জন, ২০১১ সালে তা বেড়ে দাঁড়ায় ১ লাখ ৭০ হাজার ৪২৪ জনে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির বার্ষিক হার .৮১ শতাংশ। অষ্টগ্রাম উপজেলায় ২০০১ সালে জনসংখ্যা ছিল ১ লাখ ৫২ হাজার ৩৪ জন যা ২০১১ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ১ লাখ ৫৮ হাজার ৩৬৫ জনে। জনসংখ্যা বৃদ্ধির বার্ষিক হার .৪৬ শতাংশ। অথচ হাওরের এই তিন উপজেলার জন্মহার জেলার যে কোন উপজেলার তুলনায় অনেকাংশে বেশি।

হাওরের মানুষ একমাত্র বোরো ফসলের উপর নির্ভরশীল। এর মধ্যে ক্ষুদ্র ও মাঝারি কৃষকের সংখ্যাই বেশি। এই ক্ষুদ্র ও মাঝারি কৃষকদের মূলত ধার দেনা ও মহাজনের কাছ থেকে সুদের ওপর ঋণ নিয়ে জমি চাষ করতে হয়। ধান তোলার সাথে সাথেই তাদেরকে ঋণের টাকা পরিশোধ করতে হয়। এ বছর ধান হারিয়ে তারা অবর্ণনীয় দুরবস্থার মধ্যে পড়েছেন। অনেকে মহাজনের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

এর মাঝেই শুরু হয়েছে বোরো মৌসুম। কিন্তু এবারের কৃষি মৌসুমের শুরুতেই কৃষক পড়েছেন নতুন সংকটে। হাওর থেকে বর্ষার পানি এখনো সরেনি। জলাবদ্ধতার কারণে চলতি মৌসুমে বোরো আবাদ নিয়ে বিপাকে পড়েছেন কৃষক। সময়মতো বীজতলা তৈরি করতে না পারায় কৃষক এখন হতাশ। হাজার হাজার একর ফসলি জমি পতিত থাকার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ পরিস্থিতিতে হাওর অধ্যুষিত উপজেলাগুলোয় বোরো আবাদ হুমকির মুখে পড়েছে। বিগত আগাম বন্যায় একমাত্র ফসল হারিয়ে সর্বশান্ত হাওরপাড়ের কৃষকের ঘুরে দাঁড়ানোর সংগ্রামের শুরুতেই হাওরের জলাবদ্ধতার পানিতে বড় ধাক্কা খাচ্ছেন কৃষক। ফলে একের পর এক সংকটে কাবু হাওরবাসী।

বিগত আগাম বন্যায় ফসলহানির পর নতুন কৃষি মৌসুম শুরুর মধ্যবর্তী সময়ে দুঃসহ বেকারত্ব আর দারিদ্রতার মাঝে উন্মুক্ত জলাশয়ে মাছ ধরার অধিকার থেকেও বঞ্চিত হন হাওরবাসী। জাল নিয়ে হাওর কিংবা জলাশয়ে মাছ ধরতে গেলে তাদের উপর নেমে আসে নির্যাতন। মুক্ত জলাশয়ে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে গত ৯ নভেম্বর মিঠামইন উপজেলার চারিগ্রামে তিন সহোদরসহ ‘ফাইভ মার্ডার’ এর মতো নৃশংস ঘটনা ঘটে। এর মাত্র এক সপ্তাহ আগে ২ নভেম্বর নিকলী উপজেলার দামপাড়ায় ইজারাদারের লোকজনের গুলিতে এক স্কুলছাত্রসহ ছয়জন কৃষক আহত হয়। সর্বশেষ ৪ ডিসেম্বর রাতে অষ্টগ্রাম উপজেলার আব্দুল্লাহপুরের চারিয়ার বিলে মাছ ধরতে গিয়ে ইজারাদারের লোকজনের হাতে জাহাঙ্গীর মিয়া (৩৫) নামের এক জেলে নিহত ও তিনজন গুরুতর আহত হন। এভাবে বছরের পর বছর ধরে জেলে আর কৃষকের রক্তে লাল হচ্ছে হাওরের পানি। প্রভাবশালীদের এমন দখলদারিত্বের কারণে বিপন্ন হাওরবাসী ছাড়াও জেলার অর্ধ লক্ষাধিক জেলে পরিবারের জীবন-জীবিকা পড়েছে হুমকির মুখে। ফলে মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছেন জলমহালের নিয়ন্ত্রণ হারানো লাখো মানুষ।

স্থানীয়রা জানান, কৃষি বিভাগ জমির সর্বোচ্চ ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব দিলেও হাওরের চার উপজেলা ইটনা, অষ্টগ্রাম, মিঠামইন ও নিকলীতে বহু জমি এখনও চাষের আওতায় আসে নি। বেশি নিচু, ডোবা প্রকৃতির এবং জলাবদ্ধতাসহ বিভিন্ন কারণে এসব জমি চাষাবাদ করা সম্ভব হয় না। তাই ধীরে ধীরে এসব জমিকেও চাষাবাদের উপযোগী করা গেলে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার খাদ্য চাহিদা পুরণে তা অনেক সহায়ক হবে বলে স্থানীয় কৃষকেরা জানান।

সংশ্লিষ্টদের মতে, আগাম বন্যা হাওরের এক নম্বর সমস্যা। এ থেকে উত্তরণের জন্য প্রথমত, হাওর এলাকার নদী ও এর শাখা-প্রশাখা খনন করতে হবে। দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের এ বৃহত্তর হাওরাঞ্চলের ৪০ হাজার বিল-ঝিল ও পুকুর-ডোবা যেগুলো ভরাট হয়ে গেছে কিংবা ভরাট করে ফেলা হয়েছে, সেগুলোও খনন করতে হবে। এর মাধ্যমে প্রাকৃতিক জলাধার সৃষ্টি হবে, যার ফলে বন্যা প্রলম্বিত হবে।

দ্বিতীয়ত, স্বল্পজীবী ধানের জাত উদ্ভাবন, ধান রোপণ ও কর্তনের জন্য সহজলভ্য ও সহজে চলমান যন্ত্র উদ্ভাবন, পরিবহন ব্যবস্থার উন্নয়ন এবং সঠিক সময়ে ও সঠিকভাবে ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ করেও এ অবস্থা থেকে উত্তরণ সম্ভব।

অন্যদিকে বর্ষার কর্মহীনতা ও মৌসুমী বেকারত্ব রোধে হাওরে পরিকল্পিতভাবে সমন্বিত গ্রাম সৃজিত করে এতে সারা বছর মাছ চাষ উপযোগী পুকুর, পুকুরের পাড়ে ফলদ বৃক্ষ রোপণ, হাঁস-মুরগী, গরু-মহিষের খামার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিশাল কর্মযজ্ঞের সৃষ্টি করা সম্ভব। বর্ষার ভাসমান পানিতে সহজে মাছ চাষ পদ্ধতি আবিষ্কার ও বিকল্প কৃষি ব্যবস্থার উদ্ভাবন যেমন মাচায় শসা চাষ, ভাসমান সব্জি চাষ ইত্যাদি করতে হবে। এতে করে ব্যাপক কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

এছাড়া হাওরের কৃষকদের ধানচাষের পাশাপাশি বিকল্প শস্য উৎপাদনে আগ্রহী ও অভ্যস্ত করে তুলতে হবে। হাওরে সস্তা শ্রম ও শিল্পবান্ধব অনুকূল পরিবেশ রয়েছে। তাই হাওরে ইপিজেড প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে বিকল্প কর্মসংস্থান হতে পারে। এর মাধ্যমে হাওরের লোকজন দেশের সামগ্রিক অর্থনীতিতে ব্যাপক অবদান রাখতে সক্ষম হবে।

সংশ্লিষ্টদের মতে, হাওর এলাকার সম্পদ এবং সম্ভাবনাকে সুষ্ঠুভাবে কাজে লাগাতে পারলে এটি দেশের সবচেয়ে সমৃদ্ধ এবং সম্ভাবনাময় অঞ্চল হিসাবে খুব সহজেই নিজের অবস্থান তৈরি করে নিতে পারতো। হাওরের মানুষও তাদের বর্তমান দুঃসহ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতো।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ