কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


নিকলী হাওরে জলেই উদয় চাঁন-সুরুজ


 খাইরুল মোমেন স্বপন, নিকলী | ২৬ জুলাই ২০২০, রবিবার, ২:৫৬ | হাওর 


ছবি: রাজীব সরকার পলাশ।

একদিকে মুহুর্মুহু আছড়ে পড়া উত্তাল ঢেউ আর ঢেউয়ের গর্জন। আরেক দিকে শান্ত জলাধারে কুলকুল ধ্বনি। যেন কোন বাউলের সাথে একাগ্র বেজে চলেছে সঙ্গত একতারা।

মাঝখান দিয়ে চলে যাওয়া সুদীর্ঘ বেরীবাঁধ। বাঁধের ওপর দিয়ে চলে যাওয়া পিচঢালা পথের একপাশ জুড়ে যুবতী বাবলার পাতায় পাতায় শিষকাটা দখিনা বাতাস।

নানান আকৃতিতে বেড়ে উঠা গাছগুলির কোন কোনটি বেঁকে বেঁকে তৈরী হয়ে আছে অতিথিদের আসন হয়ে। বাবলার ছায়ায় গাছের পেতে রাখা আসনে বসলেই নির্মল বাতাসে প্রশান্ত হয়ে উঠে শরীর,মন।

প্রকৃতির কুলে বসে হাওরের জলরাশি আর আকাশের সীমানায় তুখোড় দৃষ্টিও হয়ে যায় বিভ্রান্ত। বিস্তৃত জলরাশি আর আকাশ সীমানা তুলে দিয়ে যেন এখানেই কেবল একাকার। চন্দ্র-সূর্য উদয় হয় এখানে জলের ভিতর থেকে।

বলছিলাম কিশোরগঞ্জের হাওররাণী খ্যাত নিকলী উপজেলার সম্ভাবনাময় হাওর পর্যটন এলাকা বেরীবাঁধের কথা।

কিশোরগঞ্জ জেলা সদর থেকে মাত্র ২৬ কিলোমিটার পূবে হাওর উপজেলা নিকলী। ভৌগলিক অবস্থান থেকে জেলার ১৩ উপজেলার মধ্যমণি। পূবে মিঠামইন, অষ্টগ্রাম, দক্ষিণে বাজিতপুর, উত্তরে করিমগঞ্জ, পশ্চিমে কটিয়াদী উপজেলার বিস্তীর্ণ হাওর।

জেলা সদর থেকে সড়ক ও জনপথের পিচঢালা পথ কটিয়াদীর একাংশ হয়ে হাওরের বুকচিরে যুক্ত হয়েছে নিকলীর সাথে। এই সড়কটির সাথে যুক্ত হয়েছে বাজিতপুর ও কটিয়াদীর ২টি মহাসড়ক। যে কোন বাহনে চড়েই আসা যায়।

কিশোরগঞ্জ বা কটিয়াদী থেকে উপজেলা সীমানায় প্রবেশ করতেই বাঁধের শুরু। নির্মল বাতাসের ঝাপটা আর ঢেউয়ের উচ্ছ্বাসই আপনার ঝিমুনি ভেঙ্গে মনোযোগি করবে চারপাশে।

ব্যাটারী বা সিএনজি চালিত অটোরিক্সা কিংবা প্রাইভেট কারে বসে মনে হবে যাচ্ছেন যেন জলের গাড়ি করে। মাত্র হাত পাঁচেক দূরেই বেঁধে রাখা সারি সারি জেলে নৌকাগুলির উত্তাল ঢেউয়ে নেচে চলা দোলাবেই মন।

সুদীর্ঘ ৬-৭ কিলোমিটার এরকম দৃশ্য দেখতে দেখতেই যাওয়া যায় অনায়াসে। পথেই পড়বে হাওরের কূল ঘেঁষে দাঁড়িয়ে থাকা নান্দনিক উপজেলা পরিষদ। সামনে পানির ওপর হাওর বিলাস নামের রাজকীয় জলটঙ্গী।

পরিষদের ভিতরে ঢুকলেই মন ভরে যাবে। নির্দিষ্ট ভূখন্ডে পরিপাটি পরিবেশ। প্রবেশ দ্বারেই রয়েছে পদ্ম পুকুর, পরিপাটি আমবাগান থেকে নেমে এসেছে শানবাঁধা ঘাট।

পাশেই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের দ্বিতল অফিস ভবন। সামনে আড্ডার গোলঘর। আম বাগানের পশ্চিমে আরো একটি পুকুর। পাড়ে আবাসিক দ্বিতল কয়েকটি ভবন।

অফিস এবং আবাসিক ঘরগুলির মাঝে রয়েছে আরো একটি পাড় বাঁধানো বড় পুকুর। বিকাল হলেই এই পুকুরে নামে একঝাঁক জাতীয় মানের শিক্ষানবীশ সাঁতারু। ছোট ছোট শিশুদের সাঁতারের পাকা কৌশল কিছুটা সময় হলেও মজাবেই মন।

ভবন থেকে ভবনের মাঝের ফাঁকা স্থানগুলির কোথাও কোথাও ফুলের, কোথাও অর্গানিক সব্জি বাগান। রংঢংয়ে প্রকৃতির মতোই কোমল। সব মিলিয়ে যেন শিল্পীর তুলিতে আঁকা আধুনিক কোন শহর। পরিষদের দক্ষিণে প্রতিবেশী রয়েছে নান্দনিক আবহাওয়া অফিস ও তার গোছানো ক্যাম্পাস।

উপজেলা পরিষদ ঘুরে একটু উত্তরেই মিলবে আল্লাহর দান, সেতু, বিসমিল্লাহ, ক্যাফে ঢেউ নামের একাধিক খাবার হোটেল। কই, চিংড়ি, শিং, মাগুর, বেলে, বাইন কি দিয়ে সারা যায় দূপুরের খাবার! পাওয়া যাবে হাওরের তাজা মাছের নানা রকম পদ। মূল্য অবাক হবার মতোই কম।

হোটেল সীমানা থেকে সারি সারি জেলে নৌকার পাশাপাশি দেখা মিলবে বোয়াল মাছ শিকারীদের ছিপবিহীন বড়শি বাওয়া। ক্ষণিক দাঁড়ালে দেখতেই পারে কেউ হাওরের বোয়াল কি জিনিস! কিনতেও পারে কেউ ইচ্ছে করলে।

১-২ কিলোমিটার পুর্ব দিকে গেলেই দেখা মিলবে জল আর আকাশের সেই মিলনস্থল। জলে ভ্রমণ করতে চাইলে পাবেন ভাড়ায় চালিত স্পীডবোট, মনোরম নকশী আঁকা ছোট বড় নৌকা । বড় বড় কার্গো জাহাজের চলাচল জলে না আকাশে সে কেবল অনুমানেই বুঝতে হবে।

সারা পথ জুড়েই কিছুটা অন্তর অন্তর উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক বসবার পাকা ব্যবস্থাও রয়েছে। রাতভর বন্ধু বান্ধব নিয়ে কাটালেও নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় না থাকলেও চলবে। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা নাই বল্লেই চলে।

হাওরের সহজ সরল খেটে খাওয়া মানুষগুলিই পর্যটকদের বড় নিরাপত্তা। অপরিচিত হলেও ওদের নির্মল আপ্যায়ন আপনাকে আরো বেশী মুগ্ধ করবে।

সারা বছর বিশেষ করে বর্ষা মৌসুমে পর্যটকদের ভীড় লেগেই আছে এখানে। ছাত্র-শিক্ষক, সাংবাদিক, আমলা, ব্যবসায়ী  কমবেশী সকল মহলেরই পদচারণায় মুখরিত থাকে রাত দিন।

দর্শনীয় আরো কিছু দেখতে চাইলে কাছেপিঠেই রয়েছে প্রায় ৬শ’ বছরের ইতহাস বুকে নিয়ে ছেত্রার নারায়ন গোস্বামীর, গোবিন্দপুরের চন্দ্রনাথ গোস্বামীর ও লাল গোস্বামীর আখড়া, সুলতানী আমলের গুরুই মসজিদ, দ্বীপ আখড়া কানাই ভিটাসহ অনেক কিছু।

পুরোনো বিরল স্থাপত্যশৈলী দেখা ছাড়াও কাঠ খোদাই শিল্পের দূর্লভ সিতার বস্ত্রহরণ। জলে ভাসতে ভাসতে বাহারী রঙের সৌখিন নৌকার আনাগোনা আর নৌকায় ঘাটু শিল্পীদের বাহারী নৃত্যও দেখতে পাবেন।

গ্রামের ভিতর দিয়ে বয়ে চলা নদী খালে দেখা মিলবে ৫০-৯০ হাত লম্বা দৌঁড়ের নৌকার মহরত আর নিজস্ব ধারার সারিগান।

ভাদ্রের প্রথম দিনে আসলে এই অঞ্চলের সর্ববৃহৎ উৎসব (সম্ভবত) বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন ও বড় নৌকা বাইচ মুগ্ধ করবেই করবে। ফিরতি পথে প্রিয় জনের জন্যে নিতে পারেন হাওরের তাজা মাছ। স্থানে স্থানেই রয়েছে মৎস্য আড়ৎ, ছোট ছোট বাজার।

ভিডিও:




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর