কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


ডিজিটাল হাজিরা এবং হাওর, বাওর, চর, পাহাড় ও বন্যাদুর্গত এলাকার যাতায়াত


 হারুন অর রশিদ | ২০ ডিসেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ১২:৫৬ | মত-দ্বিমত 


সাম্প্রতিক সময়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এর সিদ্ধান্ত সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের যথাসময়ে বিদ্যালয়ে আগমন ও প্রস্থান নিশ্চিত করার জন্য প্রতিটি বিদ্যালয়ে একটি করে বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন ক্রয় করে লাগাতে হবে।

সরকারের এই সিদ্ধান্তকে আমরা সম্মান জানাই। সরকারি নির্দেশ মানতে গিয়ে সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এই যন্ত্রটি লাগাতে বাধ্য।

কিন্তু যে বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণভাবে উল্লেখযোগ্য যে দেশের একটি বৃহৎ এলাকা হলো, হাওর, বাওর, চর, পাহাড় ও বন্যাপ্রবণ এলাকা। যেসব এলাকার মধ্যে অধিকাংশ এলাকায়ই সড়ক পথ নেই। নদী পথে নৌকায় অথবা পায়ে হেঁটে বিদ্যালয়ে আসা যাওয়া করতে হয়।

অনেক শিক্ষক আছেন যাদের নিজ আবাসস্থল থেকে বিদ্যালয়ে পৌছুতে দুই ঘন্টা সময় লাগে। যথাসময়ে নৌকা না পাওয়া, প্রাকৃতিক দুর্যোগ (ঝড়, বৃষ্টি, শৈত্য প্রবাহ, বন্যা) এর সময় যেখানে ঘর থেকে বের হওয়াটাই ঝুঁকিপূর্ণ, সেখানে সকাল ৯ টার মধ্যে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে হাজিরা মেশিনে ফিংগার প্রিন্ট দিয়ে উপস্থিতি নিশ্চিত করা অনেকটাই কঠিন।

অনেক এলাকায় যেখানে বন্যা হলে রাস্তাঘাট, ঘরবাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পানির নীচে তলিয়ে যায় আর কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয়কেন্দ্র হয় তাদের কি হবে?

পার্বত্য অঞ্চল, হাওর অঞ্চল, চরাঞ্চল, দুর্গমাঞ্চল, গ্রামাঞ্চলের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অনেক দূর-দূরান্ত থেকে বিদ্যালয়ে আসে, তখন তাদের মাঝেমধ্যে বিদ্যালয়ে পৌঁছতে অনেক সময়ও লেগে যায়।

শীতের মধ্যেও দূর-দূরান্ত থেকে আসা গরীব শিক্ষার্থীদের চরম সমস্যার সৃষ্টি হয়। ঝড়বৃষ্টির দিনে/বর্ষাকালীন সময়েও চরম ভোগান্তির সৃষ্টি হয়।

এমনকি বর্ষাকালে যখন বন্যা হয় তখন রাস্তাঘাট পানির নিচে তলিয়ে যায়। তখন বিদ্যালয়ের যাতায়াত ব্যবস্থাও অত্যন্ত দুর্গতি ও চরম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার সৃষ্টি হয়।

এ অবস্থায় বিদ্যালয়ে সঠিক সময়ে পৌঁছানো দূরের কথা স্বাভাবিক চলাচলের অবস্থাও অনুকূলে থাকে না। অনেক সময় হাঁটু পর্যন্ত কাদায় গেড়ে চলাচল করতে হয়।

আর নদীতে যখন প্রচণ্ড স্রোত থাকে তখন স্রোতের কারণে নদী পারাপার হতে বা স্রোতের প্রতিকূলে নৌকা দিয়ে যেতে দীর্ঘ সময় লেগে যায়।

এমতাবস্থায় বিদ্যালয়ে আগমন প্রস্থানের বর্তমান সময়সূচী অনুযায়ী কর্মস্থলে পৌঁছতে সময়ের চরম ব্যাঘাত ঘটে বা ঘটবেই। তখন বারবার অফিসিয়াল হয়রানির শিকার হবে সাধারণ শিক্ষকরা।

অন্যদিকে যাঁরা ব্যাচেলর শিক্ষক, মহিলা শিক্ষকসহ, দূর-দূরান্তে যেসব শিক্ষকগণ চাকুরি করেন তাঁদের যাতায়াতের মধ্যেও অনেক ধরণের সমস্যার সৃষ্টি হয়। কারণ সকালের রান্না-বান্না, ছেলে-মেয়েদের বিদ্যালয়ে পাঠানোসহ অনেক কাজ সকালেই সারতে হয়। এমনকি দুপুরের খাবারটাও সকালে রান্না করে সাথে নিয়ে যেতে হয়।

সম্মানিত উর্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট সারা বাংলাদেশের সকল প্রাথমিক শিক্ষকের পক্ষ থেকে আকুল আবেদন করছি, আগামী শিক্ষাবর্ষ অর্থাৎ ১ জানুয়ারি থেকে বিদ্যালয়ের সময়সূচী ১০:০০টা থেকে ৩:০০টা পর্যন্ত করা হোক। বিষয়টি কর্তৃপক্ষ সুচিন্তিতভাবে বিবেচনা করে দেখবেন এই প্রত্যাশাই করছি।

# হারুন অর রশিদ, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, অষ্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জ।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর