kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

চাকা ঘোরে না পাকুন্দিয়ার পালপাড়ায়



 তাফসিলুল আজিজ | ১৫ এপ্রিল ২০১৮, রবিবার, ১১:২৬ | পাকুন্দিয়া  


পাল বাড়ির সেই চাকা আজ আর তেমন করে ঘোরে না। ওরা নিজেরাই এখন সমস্যার ঘূর্ণিপাকে। মাটির কলসি কাঁখে গাঁয়ের বধূকেও আর দেখা যায় না ঘাটে যেতে। মাটির হাড়ি-পাতিল বাসনকোসন কলসি ঠিলা বদনার ব্যবহারও কমে গেছে। বর্তমানে হাতে গোনা কিছু এলাকার পালরা অপেক্ষায় থাকে কখন মেলার ডাক আসে। বেশির ভাগই প্রতি বছর পহেলা বৈশাখের জন্য মাটির জিনিসপত্র বানিয়ে প্রতীক্ষায় থাকে। মেলা বসলে খেলনা হাড়িপাতিল পুতুল ফুলের টব মাটির তৈরি তৈজসপত্র টুকিটাকি জিনিসপত্র নিয়ে পসরা সাজায় কোনো মেলায় গিয়ে। এভাবেই চলছে পালদের টানাপোড়নের জীবন। জানালেন পাকুন্দিয়ার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের তালদশী পালপাড়ার কয়েকজন মৃৎশিল্পী।

কালের আবর্তে হারিয়ে যাচ্ছে পাকুন্দিয়ার ঐতিহ্যবাহী মৃৎশিল্প। বেঁচে থাকার তাগিদে চৌদ্দ পুরুষের ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছেন গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এ পেশার অনেক শিল্পী। একদিকে যথাযথ পৃষ্ঠপোষকতার অভাব অন্যদিকে আধুনিক যুগের যন্ত্রবিপ্লবের হুমকির মুখে পতন, এ দু’য়ের ফলে সংকীর্ণ থেকে সংকীর্ণতর হয়ে চলেছে এর স্থায়ীত্ব ও বিকাশের পথ।

শতবর্ষী এ মৃৎশিল্পের তৈরি হাড়ি, পাতিল, ফুলের টব, মাটির ব্যাংক, হাতি, ঘোড়া, টালি, টাইলসসহ অনেক ধরনের নান্দনিক দেশের বিভিন্নস্থানে সরবরাহ করা হয়ে থাকলেও ব্যবহার্য এসব বস্তু তৈরির প্রক্রিয়ায় কৌশলগত পরিবর্তনের ফলে এ শিল্প থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন মৃৎ শিল্পীরা। কম চাহিদা, আয়ের সঙ্গে ব্যয়ের অসঙ্গতি আর জীবন-মান উন্নয়নের জন্য ক্রমশ অন্য পেশার দিকে ঝুঁকে পড়ছেন তাঁরা। এছাড়া এ্যালুমিনিয়াম, সিলভার, মেলামাইন, প্লাস্টিকের জিনিসপত্র ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দিয়েছে এই মৃৎশিল্পকে।

সম্প্রতি পাকুন্দিয়া পালপাড়ার বিভিন্ন বাড়ি ঘুরে দেখা গেছে, আগে যেখানে সহস্রাধিক মৃৎশিল্পী ছিল আজ সেখানে এ শিল্পের সঙ্গে জড়িতদের সংখ্যা কমে মাত্র শতাধীক  দাঁড়িয়েছে। এক সময় এই পালপাড়ার সব বাড়িতেই এসব তৈজসপত্র তৈরি হতো। এখন সেখানে মাত্র ১৫-১৬টি বাড়িতে বাপ-দাদার ঐতিহ্যবাহী এ পেশা আঁকড়ে ধরে আছে।  এ পেশার সঙ্গে জড়িতদের অধিকাংশই হিন্দু সম্প্রদায়ভুক্ত। এদের মধ্যে কেউ কেউ চলে গেছেন ভারতে। আবার কেউ বা জীবন যাত্রার মানোন্নয়নের জন্য এ পেশা ছেড়ে হয়েছেন শিল্প কারখানার শ্রমিকসহ অন্যান্য যান্ত্রিক পেশাজীবী।

অবশ্য এমন এক সময় ছিল যখন মৃৎ পেশার সঙ্গে জড়িতদের জীবনমান ছিল উন্নত। আদি বা বংশানুক্রমে পাওয়া পেশা হওয়ায় অনেকে এ নিয়ে গর্ব করতেন। মাটির তৈরি তৈজসপত্রের পর্যাপ্ত চাহিদা থাকায় এ পেশার মাধ্যমে স্বচ্ছলভাবেই জীবন ধারণ করতে পারতেন তাঁরা। এখন এসব জিনিস তৈরি করতে রঙ, লাকড়িসহ সবকিছুর দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় ও আগের মতো মাটির সহজলভ্যতা না থাকায় মৃৎ শিল্পীদের জন্য এ পেশায় ঠিকে থাকা এখন কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

একটা সময় ছিল যখন প্রায় প্রতিটি পালপাড়ার বাড়িতে এসব জিনিস তৈরির উৎসব দেখা গেছে। উঠান দেখলেই বোঝা গেছে এটা পাল বাড়ি। মাটি দিয়ে বিশেষ কায়দায় তৈরি হয় মাটির জিনিসপত্র। এরপর শুকানোর পালা। আগুনে পোড়ানো হয়, তার নাম পুইন। এই পুইন সাজানোর প্রক্রিয়াও একটা শিল্প। ফরমা অনুযায়ী মাটির নানা ধরনের জিনিস পুড়িয়ে এনে তার ওপর চলে পালিশ ও রঙের আঁচড়। মাটির জিনিস বানানোর শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত প্রতিটি স্তরেই দিতে হয় শিল্পীর নিপুণ হাতের ছোঁয়া। এ কারণে পাল সম্প্রদায় মর্যাদা পেয়েছে শিল্পীর।

পাকুন্দিয়ার তালদশী পালপাড়ার রঞ্জিত চন্দ্র পাল ও নারায়ন চন্দ্র পাল বলেন, বাপ-দাদার চৌদ্দ পুরুষের ব্যবসা ছিল মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি করা। একসময় দেশের বিভিন্নস্থানে সরবরাহ করতেন এখানকার মাটির তৈরি তৈজসপত্র। এ জিনিসপত্রের চাহিদা ছিল অনেক। কালের পরিক্রমায় আজ বলতে গেলে তা শূন্যের কোঠায়। চাহিদা কমে যাওয়ায় এ পেশায় আজ টিকে থাকাই দায় হয়েছে। এভাবে চলতে থাকলে একদিন হারিয়েই যাবে এ পেশা।

বাদল চন্দ্র পাল, চঞ্চলী রাণী পাল, দিপালী রাণী পাল ও পারুল রাণী পালসহ এলাকার একাধিক মৃৎশিল্পী বলেন, পহেলা বৈশাখে মাটির খাবারের বাসন সানকি বানানোর চাহিদা বাড়ে। কারণ এই সানকিতে পান্তা ভাত খাওয়া হয়। সেজন্য প্রতিবছরই এসময় প্রচুর বাসন তৈরি করেন তাঁরা। এছাড়া সারা বছরে তেমন কোনও চাহিদা না থাকায় ওই সময়ে  ফুলের টব, শোপিস, খেলনা সামগ্রী, মাটির ব্যাংক ইত্যাদি তৈরি করতে হয়।

পাকুন্দিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম বলেন, গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এ পেশার শিল্পীদের বাঁচিয়ে রাখতে এখনই সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন। তাঁদের অস্তিত্ব রক্ষায় সহজ ঋণ দেওয়া দরকার। এমনকি দেশে বিভিন্ন স্থানে মেলার আয়োজন করে মাটির জিনিসপত্রের প্রয়োজনীয়তা জন সাধারণের কাছে তুলে ধরা দরকার। তা না হলে মৃৎশিল্পীদের স্থান হবে শুধু ইতিহাসের পাতায়।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ