kishoreganjnews.com:কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

হাওরে বন্যার আশঙ্কা, ধান কাটার শ্রমিক সংকটে বিপাকে কৃষক


 স্টাফ রিপোর্টার | ৩০ এপ্রিল ২০১৮, সোমবার, ১১:১১ | হাওর 


ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলার হাওরে হাওরে এখন পাঁকা ধান। শ্রমিক সংকটে সময় মতো ধান কাটতে পারছেন না অনেক কৃষক। চড়া মজুরি দিয়েও মিলছে না একজন শ্রমিক। শ্রমিক মিললেও একর প্রতি মজুরি দিতে হচ্ছে কমপক্ষে ১২ হাজার টাকা। এছাড়া চোখ রাঙাচ্ছে ভারি বর্ষণ। ফলে হাওর ভর্তি পাঁকা ধান নিয়ে এখন দুশ্চিন্তায় পড়েছেন হাওরের কৃষক।

আবহাওয়া অধিদপ্তর চলতি সপ্তাহে হাওর এলাকায় ভারি বর্ষণসহ বন্যার আশঙ্কা করছে। বন্যার হাত থেকে ফসল রক্ষায় তাড়াতাড়ি ধান কাটার তাড়া থাকলেও শ্রমিক সংকটের কারণে ব্যাহত হচ্ছে ধানা কাটা।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, গত বছর বন্যার পর অভাবের তাড়নায় এলাকায় বেশির ভাগ শ্রমিক কাজের সন্ধানে অন্যত্র চলে গেছেন। কৃষি শ্রমিকরা অন্য কাজে জড়িয়ে পড়েছেন। তাছাড়া কৃষির চেয়ে অন্য কাজে মজুরি বেশি হওয়ায় বেশ আগে থেকেই কৃষি শ্রমিকরা পেশা বদল শুরু করেছেন।

এছাড়া অন্যান্য বছর বোরো মৌসুমে ধান কাটার সময় পাবনা, সিরাজগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, টাঙ্গাইল, দিনাজপুর, রংপুর, জামালপুর, ময়মনসিংহসহ বিভিন্ন এলাকার শ্রমিকেরা ধান কাটার জন্য আসতো। বিগত বছরসমূহে পর পর অকাল বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে বোরো ফসলের ক্ষতি হওয়ায় আগের মতো আর ধান কাটা শ্রমিকেরাও আসছে না। বজ্রপাতে হতাহতের ঘটনাও ধান কাটা শ্রমিকদের মধ্যে ভীতি তৈরি করেছে বলে অনেক কৃষক জানিয়েছেন।

ইটনা, মিঠামইন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলার কৃষকেরা জানান, এবার ফলন ভালোই হয়েছে। কিন্তু শ্রমিক না থাকায় পাঁকা ধান মাঠে নষ্ট হচ্ছে। এছাড়া বৃষ্টির কারণে আগাম বন্যার চোখ রাঙানি তো রয়েছেই। তাই কৃষকের দুশ্চিন্তা কাটছে না।

মিঠামইন উপজেলার চমকপুর গ্রামের সেচ স্কীম ম্যানেজার সিদ্দিক মিয়ার জানান, তার স্কীমে পুরারবন্দ ও মাইজ বন্দে তিনশ’ একর জমি রয়েছে। অধিকাংশ জমির ধান জমিতে পাঁকা অবস্থায় রয়েছে। কিন্তু শ্রমিকের অভাবে কৃষকেরা জমির ধান কাটতে সাহস পাচ্ছেন না। এই সুযোগে স্থানীয় ধান কাটা শ্রমিকেরা চড়া পারিশ্রমিক ছাড়া ধান কাটছে না। প্রতি একর জমি কাটার জন্য তারা ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা মজুরী নিচ্ছে। পরিবহন খরচও প্রায় একই। ফলে ধান কাটা ও ধান বাড়িতে নেয়া নিয়ে সংকটে রয়েছেন এখানকার কৃষক। এ নিয়ে চরম দুর্ভোগে রয়েছেন কৃষকেরা।

একই অবস্থা ইটনা ও অষ্টগ্রাম উপজেলার কৃষকের।

কৃষকেরা জানিয়েছেন, ধান কাটা শ্রমিকের সংকট হাওরে প্রকট আকার ধারণ করেছে। ধান কাটা শ্রমিকের এ সংকট অব্যাহত থাকলে উৎপাদিত ফসল তারা ঘরে তুলতে পারবেন না বলে আশঙ্কা করছেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর














সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮
kishoreganjnews247@gmail.com
Web: www. kishoreganjnews.com
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ