কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


মুকুল ভাইকে ভুলবো না


 প্রকৌশলী রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, সংসদ সদস্য, কিশোরগঞ্জ-৪ | ৩ মে ২০১৮, বৃহস্পতিবার, ১১:৪৯ | মত-দ্বিমত 


অনেক বছর পর আবেগের ভারাক্রান্ত বেদনা নিয়ে এই লেখা লিখছি। আশি, নব্বুই দশকে যখন সাংবাদিকতা করেছি, 'প্রাত্যহিক চিত্র' সম্পাদনা করেছি, তখন নিয়মিত লিখতে হয়েছে। পরবর্তীতে সামাজিক-রাজনৈতিক ব্যস্ততার কারণে ফেসবুকে ছোট ছোট অনুভূতি ছাড়া বড় লেখা সম্ভব হয় নি। আমাদের কালের কিশোরগঞ্জের মেধাবী অগ্রজ মুকুল ভাইয়ের মৃত্যুতে আবার কলম তুলে নিলাম।

মুকুল ভাইয়ের মৃত্যতে গভীর শূন্যতা আমাকে আচ্ছন্ন করেছে। তিনি ছিলেন আমাদের অনুপ্রেরণার উৎস। পড়াশোনা, যুক্তি, মেধা দিয়ে তিনি আমাদেরকে আলোকিত করেছেন। ব্যক্তিগতভাবে তার স্নেহ, পরামর্শ আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে। তার অবর্তমানে আমরা একজন আন্তরিক সুহৃদ ও পৃষ্ঠপোষককে হারিয়েছি। এই শূন্যতা সহজেই পূরণ হবে না।

শিল্প, সাহিত্য, দেশপ্রেম, নান্দনিকতার শিক্ষা তিনি আমাদের দিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় স্বাধীনতার পথে চলার দীক্ষা তিনি প্রচার করেছেন। আলোকিত, শিক্ষিত, দেশপ্রেমিক প্রজন্ম তৈরিতে তিনি আজীবন কাজ করেছেন। ঈশা খাঁ বিশ্ববিদ্যালয়, অ্যাম্বিশান কোচিং মুকুল ভাইয়ের কর্ম ও কীর্তির প্রমাণ বহন করছে।

তিনি ছিলেন মহান পিতার সন্তান। ঐতিহ্যবাহী পরিবারের কৃতি সদস্য। তার অগ্রজ চুন্নু ভাই, বকুল ভাই কিশোরগঞ্জের রাজনীতির উজ্জ্বল নক্ষত্র। তার অপর ভাই, আমার বন্ধু জুয়েল সামাজিক রাজনীতির বিশিষ্টজন। ছোট ভাই শামীম, শাহিন স্ব স্ব ক্ষেত্রে কৃতিত্বের অধিকারী। রাজনৈতিক, সামাজিক সম্পর্ক ও পারিবারিক মেলামেশায় আমরা ছিলাম আত্মার আত্মীয়। ফলে মুকুল ভাইয়ের মৃত্যুতে স্বজন হারানোর বেদনায় বার বার অশ্রুসিক্ত হচ্ছি। মনে পড়ছে তার অমলিন মুখচ্ছবি, জাদুকরী ব্যক্তিত্ব আর মধুর আচরণের বহু স্মৃতি।

আমি এবং আমাদের পরিবারের সকল সদস্যই মুকুল ভাইকে অত্যন্ত পছন্দ করতেন। তিনি ছিলেন আমাদের আপনজন। আমার মতোই আমাদের পরিবার তার মৃত্যুতে শোকগ্রস্থ। আমি নিজে বিভিন্নভাবে তার সুচিকিৎসার সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণে সচেষ্ট ছিলাম। কিন্তু তিনি যে এভাবে চিরবিদায় নেবেন, তা স্বপ্নেও ভাবি নি। কিশোরগঞ্জবাসীকে কাঁদিয়ে তিনি চলে গেলেন এক পবিত্র রজনীর শেষে আগত ভোরে। রেখে গেলেন আলোময় বহু স্মৃতি।

অকালে প্রয়াত হয়ে মুকুল ভাই আমাদের ছেড়ে পরপারের পথে  চলে গেছেন। মহান আল্লাহ তার পরকালীন জীবনকে শান্তিময় ও কল্যাণকর করুন, এই আমাদের প্রার্থনা।  দোয়া করি, তার শোকাহত পরিবার-পরিজনের সকল সদস্যর জন্য। তাদেরকে জানাই গভীর সমবেদনা।

আর আমরা যারা মুকুল ভাইকে ঘিরে বড় হয়েছি তারা থাকবো তার অমলিন স্মৃতি নিয়ে। তাকে আমরা কখনোই ভুলতে পারবো না। কারণ তিনি আমার ও আমার প্রজন্মের সকলের জীবনের বিরাট একটি জায়গা জুড়ে রয়েছেন। আমরা অবশ্যই চেষ্টা করবো সম্মিলিতভাবে উদ্দ্যোগী হয়ে মুকুল ভাইয়ের স্মৃতিকে রক্ষা করতে। প্রিয় মুকুল ভাই, আমরা আপনাকে ভুলবো না। আমাদের স্মৃতির মাঝে আপনি আজীবন বেঁচে থাকবেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর