কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন ৮ জনের করোনা শনাক্ত, আক্রান্ত বেড়ে ৩৭০


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ১ মে ২০২১, শনিবার, ১০:১৯ | বিশেষ সংবাদ 


কিশোরগঞ্জে জেলার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সর্বশেষ শনিবার (১ মে) রাতে প্রকাশিত রিপোর্টে জেলায় মোট ৮ জন নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর বিপরীতে করোনাভাইরাস মুক্ত হয়ে জেলায় এদিন কোন সুস্থ নেই। এছাড়া কোভিড-১৯ কিংবা সন্দেহজনক কোভিড-১৯ কোন মৃত্যুও নেই।

এ পরিস্থিতিতে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। আগের দিন শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) জেলায় বর্তমান আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ৩৬২ জন। শনিবার (১ মে) এই সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৩৭০ জন।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া ৮ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ২ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১ জন, ভৈরব উপজেলায় ১ জন এবং বাজিতপুর উপজেলায় ২ জন শনাক্ত হয়েছে।

মোট ১৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে এই ৮ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাবে হাসপাতালটির প্রি-আইসোলেশনে ভর্তিকৃত জরুরী রোগীসহ বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল), শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) ও শনিবার (১ মে) সংগৃহীত মোট ৭৫ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে শুক্রবার (৩০ এপ্রিল) মোট ৯২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৫৬ জন যাদের মধ্যে ৫ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ১১ জন ভর্তি হয়েছেন এবং ৫ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৪৫৬৭ জন শনাক্ত, ৪১২১ জন সুস্থ এবং ৭৬ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ৩৭০ জন। তাদের মধ্যে ২৭ জন হাসপাতাল ও ৩৪৩ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে। এরপরেই রয়েছে ভৈরব উপজেলা।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ৩৭০ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় ১৫৫, হোসেনপুর উপজেলায় ২২ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ১১ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৭ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১৮ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৩০ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ১৭ জন, ভৈরব উপজেলায় ৫১ জন, নিকলী উপজেলায় ৮ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৩০ জন, ইটনা উপজেলায় ১১ জন, মিঠামইন উপজেলায় ৬ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৪ জন রয়েছেন।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন। এরপর থেকে প্রথম ডোজ দেয়া আপাতত বন্ধ রয়েছে।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত ৩৫ হাজার ৭৫৫ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

শনিবার (১ মে) মে দিবসের ছুটির দিন হওয়ায় ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম বন্ধ ছিল।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।




[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর