কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


কিশোরগঞ্জে নতুন ৭৭ জনের করোনা শনাক্ত


 কিশোরগঞ্জ নিউজ রিপোর্ট | ২২ জুলাই ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৭:১৭ | বিশেষ সংবাদ 



কিশোরগঞ্জে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে সর্বশেষ বুধবার (২১ জুলাই রাতে প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী, জেলায় নতুন করে ৭৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর বিপরীতে এদিন জেলায় ২৫ জন সুস্থ হয়েছেন।

ফলে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বর্তমান রোগীর সংখ্যা ৫২ জন বেড়েছে। তবে রিপোর্টে সবচেয়ে স্বস্তির খবর হচ্ছে, টানা দ্বিতীয় দিনের মতো এদিন জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন ‍মৃত্যু বা করোনা উপসর্গ নিয়ে কোন মৃত্যু নেই।

আগের দিন মঙ্গলবার (২০ জুলাই) জেলায় করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা ছিল ১৬১৭ জন। এখন জেলায় বর্তমান রোগীর সংখ্যা মোট ১৬৬৯ জন।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের আরটি-পিসিআর ল্যাব থেকে গত রোববার (১৮ জুলাই), সোমবার (১৯ জুলাই) ও মঙ্গলবার (২০ জুলাই) পাওয়া ৯৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এতে ৩৯ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এ রিপোর্ট মোট ২০০ জনের নমুনা পরীক্ষার ফলাফল দেওয়া হয়েছে।

বাকি ১০৬ জনের নমুনা বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাব ও রেপিড এন্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হয়। এতে মোট ৩৮ জনের নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাজিতপুরের জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে মঙ্গলবার (২০ জুলাই) ৪৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এর মধ্যে ৬ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

এছাড়া হোসেনপুর, পাকুন্দিয়া ও ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মোট ৫৭ জনের রেপিড এন্টিজেন টেস্টে ৩২ জনের কোভিড-১৯ পজেটিভ এসেছে।

জেলায় নতুন করোনা শনাক্ত হওয়া মোট ৭৭ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ২৭ জন শনাক্ত হয়েছেন।

এছাড়া বাকি ৫০ জনের মধ্যে হোসেনপুর উপজেলায় ১৬ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৬ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ১৪ জন, ভৈরব উপজেলায় ১২ জন এবং বাজিতপুর উপজেলায় ২ জন শনাক্ত হয়েছে।

নতুন সুস্থ হওয়া ২৫ জনের মধ্যে তাড়াইল উপজেলার সর্বোচ্চ ২১ জন এবং কুলিয়ারচর উপজেলার বাকি ৪ জন রয়েছেন।

মোট শনাক্ত, সুস্থ ও মৃত্যু সব সূচকেই জেলার মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা শীর্ষে রয়েছে।

কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কোভিড ইউনিটে বর্তমানে আক্রান্ত ও সন্দেহজনক মোট ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১২৭ জন যাদের মধ্যে ১০ জন আইসিইউতে রয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় নতুন ১৮ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন এবং ৩৬ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।

এই সময় পর্যন্ত জেলায় মোট ৭৮২৯ জন শনাক্ত, ৬০৩১ জন সুস্থ এবং ১২৯ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বর্তমানে জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী ১৬৬৯ জন। তাদের মধ্যে ৫৭ জন হাসপাতালে ও ১৬১২ জন হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

বর্তমানে করোনা আক্রান্ত মোট ১৬৬৯ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৭৪৮ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৯৬ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৫০ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৩৬ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ১৬৬ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ২১৭ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৪২ জন, ভৈরব উপজেলায় ১৬৬ জন, নিকলী উপজেলায় ১৭ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৭১ জন, ইটনা উপজেলায় ৩৪ জন, মিঠামইন উপজেলায় ২২ জন এবং অষ্টগ্রাম উপজেলায় ৪ জন রয়েছেন।

জেলায় মোট মৃত্যু ১২৯ জনের মধ্যে কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৪৬ জন, হোসেনপুর উপজেলায় ৫ জন, করিমগঞ্জ উপজেলায় ৮ জন, তাড়াইল উপজেলায় ৫ জন, পাকুন্দিয়া উপজেলায় ৭ জন, কটিয়াদী উপজেলায় ৮ জন, কুলিয়ারচর উপজেলায় ৬ জন, ভৈরব উপজেলায় ২৭ জন, নিকলী উপজেলায় ৬ জন, বাজিতপুর উপজেলায় ৯ জন, ইটনা উপজেলায় ১ জন এবং মিঠামইন উপজেলায় ১ জন রয়েছেন।

জেলার একমাত্র অষ্টগ্রাম উপজেলায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কোন মৃত্যু নেই।

এদিকে গত ৭ ফেব্রুয়ারি ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর গত ২৫ এপ্রিল পর্যন্ত মোট ৭৬ হাজার ৬৬৫ জন প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছেন।

এরপর গত ১৯ জুন থেকে সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া শুরু হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট ২০ হাজার ২২০ জন সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় কেউ সাইনোফার্ম ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নেননি।

অন্যদিকে গত ৮ এপ্রিল থেকে এ পর্যন্ত মোট ৫৯ হাজার ৩০৭ জন দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় কেউ দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেননি।

এ পর্যন্ত মোট ১ লাখ ৬৪ হাজার ৪৫৮ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

গত ২৪ ঘন্টায় ৯০০ জন কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন।

কিশোরগঞ্জ জেলার সিভিল সার্জন ডা. মো. মুজিবুর রহমান এসব তথ্য কিশোরগঞ্জ নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর