কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা


’৭১ এর পরাজিত শত্রুরা এখনো ঘাঁপটি মেরে আছে: এমপি তৌফিক


 বিজয় কর রতন, মিঠামইন | ১৫ আগস্ট ২০২১, রবিবার, ৯:২৮ | মিঠামইন 



কিশোরগঞ্জ-৪ (ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম) আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেছেন, ১৫ই আগস্ট একটি কলংকিত অধ্যায়। এই দিনে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল। বিশ্বের মধ্যে এটি নজিরবিহীন ঘটনা। শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা দেশে ছিলেন না বলে বেঁচে গিয়েছিলেন। যার ডাকে এ দেশ স্বাধীন হলো তিনিই আজ নেই। ’৭১ এর পরাজিত শত্রুরা এখনো ঘাঁপটি মেরে রয়েছে। তাদের ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে অনুষ্ঠিত শোকসভা ও মিলাদ মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক এসব কথা বলেন। রোববার (১৫ আগস্ট) রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়ামে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন এ শোক সভা ও মিলাদ মাহফিল আয়োজন করে।

সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক আরো বলেন, ১৭ই আগস্ট বাংলাদেশে সিরিজ বোমা হামলা হয়েছিল। ২১শে আগস্ট আবারো ৭৫ এর ১৫ই আগস্ট করতে চেয়েছিল রাজাকাররা। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে দেশ আরো এগিয়ে যেত। বর্তমানে বঙ্গবন্ধুর লালিত স্বপ্নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। জননেত্রী শেখ হাসিনার কারণে হাওর এখন শহর হচ্ছে। হাওরে হচ্ছে পানির উপর রাস্তা। গ্রামে গ্রামে হচ্ছে প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাওরে সুষম উন্নয়ন হচ্ছে।

শোক সভা ও মিলাদ মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন মিঠামইন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. শাহজাহান মিয়া।

এতে আরো বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ ভাইসচেয়ারম্যান মো. ইব্রাহিম মিয়া, জেলা পরিষদ সদস্য উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার বৈষ্ণব, সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এডভোকেট শরীফ কামাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক মাইন উদ্দিন খন্দকার, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আলম মোল্লা, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাক হাসান উল্লাহ প্রমুখ।

এর আগে সকালে সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সামনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রভাংশু সোম মহান, এএসপি সার্কেল এসএম আজিজুল হক, মিঠামইন থানার ওসি জাকির রাব্বানী প্রমুখসহ বিপুলসংখ্যক দলীয় নেতাকর্মী উপস্থিত চিলেন।

এছাড়া উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৃথক পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

পরে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের ৫জন সুবিধাভোগীকে যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মামুন মজুমদার প্রধান অতিথির মাধ্যমে ২ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করেন।

অনুষ্ঠান শেষে সরকারি ডাকবাংলো প্রাঙ্গণে দুস্থদের মাঝে কাঙ্গালী ভোজের খাবার বিতরণ করা হয়।


[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর