কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

পাকুন্দিয়ায় পার্চিং উৎসব ও কৃষক মাঠ দিবস


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ১৪ আগস্ট ২০১৮, মঙ্গলবার, ২:৫৫ | কৃষি 


পাকুন্দিয়ায় রোপা আমন ধানের লাইফ পার্চিং ও পার্চিং উৎসব এবং আউশ মৌসুমে ব্রি-ধান ৪৮ এর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (১২ আগস্ট) বিকালে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে উপজেলার খামা নতুন বাজার এলাকায় এ অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়।

ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম এনএটিপি-২ প্রকল্পের আওতায় গঠিত আদিত্যপাশা বাগানবাড়ী সিআইজি ও আংগিয়াদী টানপাড়া সিআইজির সদস্যদের যৌথ আয়োজনে লাইফ পার্চিং ও পার্চিং উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ উৎসবের উদ্বোধন করেন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ পরিচালক (শস্য) ড. সাইফুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ড. গৌর গোবিন্দ দাশ, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. আনিছুজ্জামান, উপ সহকারি কৃষি কর্মকর্তা মো. হামিমুল হক সোহাগ প্রমুখ।

এছাড়া অনুষ্ঠানে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা জমশেদ আলী, উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন ও মোফাজ্জল হোসেন, সিআইজির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও সদস্যবৃন্দসহ এলাকার তিন শতাধিক কৃষাণ-কৃষাণীর উপস্থিতিতে উৎসব মুখর ও আনন্দঘন পরিবেশে অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় স্বতস্ফূর্তভাবে কৃষাণ-কৃষাণীগণ মাঠে নেমে এই পার্চিং কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেন।

আদিত্যপাশা বাগানবাড়ী সিআইজির সভাপতি আতিকুর রহমান ও আংগিয়াদী টানপাড়া সিআইজির সভাপতি মো. হাদিউল ইসলাম বলেন, আমাদের দুইটি সিআইজি যৌথ উদ্যোগে আংগিয়াদী ব্লকের ৮ কিমি রাস্তার দুই পাশে প্রায় ২০০ হেক্টর জমিতে পার্চিং কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হয়েছে। যার মাধ্যমে এলাকার অন্যান্য কৃষকও উৎসাহিত হয়ে প্রযুক্তিটি গ্রহণ করছেন।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিমুল হক সোহাগ বলেন, এই  উৎসবের মাধ্যমে দুই ধরণের পার্চিং অর্থাৎ ডেথ পার্চিং ও লাইফ পার্চিং বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। ডেথ পার্চিং এ পাখি বসে ফসলের মাঠে ক্ষতিকর পোকা মাকড় খেয়ে থাকে ও লাইফ পার্চিং এ সাধারণত ধৈঞ্চা গাছ ব্যবহার করা হয় যা বাতাস থেকে নাইট্রোজেন সংগ্রহ করে গাছের শিকড়ে নডিউল উৎপাদন করে। যার মাধ্যমে মাঠিতে নাইট্রোজেন যোগ হয়। এছাড়াও ধৈঞ্চা গাছের ডালে পাখি বসে ফসলের মাঠের ক্ষতিকর পোকামাকড় খেয়ে থাকে। যার ফলে পোকামাকড় ধমনের জন্য কীটনাশক ব্যবহার করতে হয় না। ফলে পরিবেশ বান্দব পদ্ধতিতে পোকামাকড় ধমন করা যায়।

উপজেলা কৃষি অফিসার গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম এনএটিপি-২ প্রকল্পের আওতায় গঠিত সিআইজি সমূহ ডিএইর প্রতিনিধি হিসেবে মাঠে প্রযুক্তি সম্প্রসারণে কাজ করবে যার প্রমাণ আজকের এই পার্চিং উৎসব।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিধপ্তরের উপ-পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, কৃষি বিভাগ কৃষকদের উন্নয়নে বিভিন্ন প্রযুক্তি সম্পারণে কাজ করে যাচ্ছে তার সাথে কৃষকরা যদি প্রযুক্তিগ্রহণে এগিয়ে আসেন তাহলে কৃষি ক্ষেত্রে আরও ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হবে।

অনুষ্ঠানে তিনি ড্রাম সিডার প্রযুক্তি সম্প্রসারণে অসামান্য অবদানের জন্য কৃষক আতাবুর রহমান ও ড্রাগন ফল চাষ সম্প্রসারণে বিশেষ অবদানের জন্য কৃষক মো. খুর্শিদ উদ্দিনকে ক্রেষ্ট প্রদান  করেন। শেষে ড্রাম সিডার দিয়ে বপনকৃত আউশ ধানের নমুনা শস্য কর্তন করা হয়।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ