কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

কিশোরগঞ্জের ‘হাওর সৈকত’ নিকলীর দর্শনীয় বেড়িবাঁধ


 মোস্তফা কামাল | ৩১ আগস্ট ২০১৮, শুক্রবার, ৪:৩১ | হাওর 


কক্সবাজারে বেড়ানোর জন্য রয়েছে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত। কিশোরগঞ্জে সমুদ্র নেই। তবে বর্ষাকালে এখানকার বিশাল হাওরাঞ্চল যখন পানিতে একাকার হয়ে পড়ে, তখন এই দিগন্তহীন হাওরকেও সমুদ্রের মতই মনে হবে। আর বিস্তীর্ণ হাওর পাড়ের নিকলীর বেড়িবাঁধ এলাকাও যেন তখন হয়ে ওঠে অপরূপ ‘হাওর সৈকত’।

অবসরে বেড়ানোর মত কিশোরগঞ্জে কিছু দর্শনীয় স্থান বা ভ্রমন পিপাসুদের কিছু বিনোদন স্পট রয়েছে। সেসব স্থানের অবকাঠামোগত সৌন্দর্য না থাকলেও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য যেন অপরূপ। আর এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের টানে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে নানা বয়সের মানুষ ছুটে যায় মনটা একটু সতেজ এবং নবায়ন করে নিতে।

এসব স্পটে সারা বছরই মানুষের আনাগোনা থাকলেও বিশেষ করে ঈদের সময় লোকসমাগম যথেষ্ট বেড়ে যায়। তখন এলাকায় বসবাস করা লোকজন ছাড়াও ঈদে বাড়িতে আসা মানুষদের আগ্রহ থাকে সবচেয়ে বেশি। বেশ দূরদূরান্ত থেকে প্রাইভেট কার, মাইক্রো, অটোরিক্সা এবং মটরসাইকেল নিয়ে মানুষ ছুটে যায় প্রাকৃতিক এই সৌন্দর্যের টানে।

এরকমই একটি নির্মল বিনোদনের জায়গা নিকলীর বেড়িবাঁধ এলাকা। যাকে বর্ষকালে ডাকা চলে ‘হাওর সৈকত’ নামে।

কিশোরগঞ্জে আরো কিছু বিনোদনের জায়গা রয়েছে। যেমন কিশোরগঞ্জ শহরের নরসুন্দা পাড়ের মুক্তমঞ্চ এলাকা, ভৈরবের মেঘনা নদীর সৈয়দ নজরুল সেতু এলাকা, পুরাতন ব্রহ্মপুত্রের ওপর হোসেনপুর-গফরগাঁও সেতু এলাকা, মিঠামইনের দিল্লীর আখড়া, তাড়াইলের হিজলজানি হাওর ইত্যাদি।

নিকলীর উপজেলা সদরের বেড়িবাঁধের মহরকোনা এলাকা পার্শ্ববর্তী ঘোড়াউত্রা নদী আর পাটাচাপড়া হাওরের তীরে হওয়ায় এলাকাটি যেন বর্ষাকালে অত্যন্ত মোহনীয় চেহারা নিয়ে হাজির হয়। বিস্তীর্ণ হাওরের নির্মল শীতল হাওয়া, ভরা বর্ষার পানিতে সাঁ সাঁ শব্দে বিশাল বিশাল ঢেউ আর নৌকার বহর যেন এলাকাটাকে সত্যিই প্রকৃতির অপরূপ সৃষ্টিতে পরিণত করেছে।

হাওরের বিভিন্ন এলাকা থেকে তরুণ তরুণীরা সুসজ্জিত ট্রলার নিয়ে লাউড স্পিকারে গান বাজিয়ে নেচেগেয়ে এই এলাকা পরিভ্রমন করতে আসে। এমনকি ট্রলারের শিশুরাও এসময় নৃত্যকলায় পরিবেশকে যেন উদ্ভাসিত করে দেয়।

জেলা শহর থেকেও প্রায় ৩০ কিলোমিটা পাড়ি দিয়ে বহু পরিবার এই বেড়িবাঁধ এলাকার সৌন্দর্য উপভোগ করতে যায়। সেখানে সারি সারি নৌকা বা ট্রলার বাঁধা আছে। বাঁধা আছে স্পীডবোটও। মানুষজন এসব জলযান ভাড়া করে বেশ খানিকক্ষণ হাওরের একটু ভেতরে গিয়ে বেড়িয়ে আসে।

স্থানীয়রা জানান, এলাকাটি এক সময় নির্জন ভুতুরে এলাকা ছিল। এই এলাকার অনেক পরিবার চোর-ডাকাতের অত্যাচারে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র বসতি স্থাপন করেছিল। আবার হাওরের ঢেউয়ের ভাঙনেও অনেক পরিবার এখান থেকে উচ্ছেদ হয়ে গেছে। কিন্তু দুই দশক আগে এখানে বেড়িবাঁধ নির্মাণ হওয়ার পর থেকেই এলাকার চেহারা পাল্টে যেতে থাকে।

শুধু বেড়িবাঁধের মহরকোনা এলাকাটিই নয়, এর প্রভাব পড়েছে উপজেলা সদরেও। এখন অনেক পরিবার আবার নিজ এলাকায় ফিরে গিয়ে বসতি স্থাপন করেছে। এই বিনোদন স্পটকে কেন্দ্র করে অনেকগুলো স্থায়ী দোকানপাট যেমন হয়েছে, অনেক অস্থায়ী দোকানও বসেছে।

সাধারণত বিকাল বেলাতেই মানুষজন বেশি করে ওই এলাকায় ছুটে যায়। সন্ধ্যার প্রাক্কালে ডুবন্ত সূর্য যখন লাল হয়ে আসে, তখন মেঘের আড়াল থেকে এই লাল আভা যেন ওই এলাকার পুরো আকাশে ছড়িয়ে দেয়। সেসময় প্রকৃতি যেন আরো অপরূপ সাজে সজ্জিত হয়ে মানুষের মন ভরিয়ে দেয়। শুধু জেলা শহর নয়, পার্শ্ববর্তী বাজিতপুর এবং কটিয়াদী উপজেলা থেকেও প্রচুর মানুষের ভীড় জমে এই বেড়িবাঁধ কেন্দ্রিক সৌন্দর্য উপভোগ করতে।

তবে এখানে যদি পর্যটনের দৃষ্টিকোণ থেকে অবকাঠামোগত উন্নয়ন করা যায়, তাহলে মানুষের সমাগম যেমন আরো বাড়বে, এলাকাটির উন্নয়নেও এর ইতিবাচক প্রভাব পড়েবে বলে স্থানীয়রা মনে করেন।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর

















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ