কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

ড্রাগন চাষে লাভবান পাকুন্দিয়ার কৃষক খুর্শিদ উদ্দিন


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ১৯ অক্টোবর ২০১৮, শুক্রবার, ১:৩৯ | কৃষি 


ইচ্ছা ছিল এলাকায় ব্যক্তিক্রমী কিছু চাষ করা। যা আগে কখনও এই এলাকার কৃষকরা চাষ করেনি। সেই ব্যতিক্রম চাষের নেশা থেকেই ড্রাগন ফল চাষের দিকে ঝুঁকে পড়েন কৃষক খুর্শিদ উদ্দিন।

এই ড্রাগন ফল চাষের মাধ্যমেই লাভের মুখ দেখেছেন খুর্শিদ উদ্দিন। এছাড়া এলাকার অন্যসব কৃষকদের নজরে পড়েন তিনি। যা দেখে এলাকার অন্য কৃষকরাও এখন ড্রাগন চাষে আগ্রহ দেখাচ্ছেন।

এই ফলের ফুল রাতের বেলায় ফোটার কারণে অনেকেই ড্রাগন ফুলকে রাতের রাণীও বলে থাকেন।

পাকুন্দিয়া উপজেলার খামা গ্রামের কৃষক খুর্শিদ উদ্দিনের ড্রাগন ক্ষেত সরেজমিনে দেখতে গেলে তিনি জানান, তার ২০ শতাংশ জমির উপর ৮০টি পিলার এর সাথে ২৪০টি চারা দিয়ে তিনি ড্রাগন বাগান তৈরি করেন। বাগানটি স্থাপন করতে তার ত্রিশ হাজার টাকা খরচ হয়।

ভূমিহীন এই কৃষক বাগানের মধ্য সাথী ফসল হিসেবে টমেটো ও আদার চাষ করে প্রথম মৌসুমেই বিনিয়োগকৃত টাকা উঠিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছেন। পরবর্তীতে অঙ্গ ছাটাইয়ের মাধ্যমে যে ডালপালা কর্তন করা হয়, তা দিয়ে চারা উৎপাদন করে বাজারে বাজারে ঘুরে বিক্রি করে এবং জেলার বিভিন্ন কৃষি মেলায় চারা বিক্রি করে আরো ৪০-৫০ হাজার টাকা আয় করেছেন তিনি।

এই সাফল্য সরেজমিনে দেখতে সম্প্রতি জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কৃষিবিদ মোহাম্মদ মহসীন কৃষক খুর্শিদ উদ্দিনের ড্রাগন বাগান পরিদর্শন করেছেন।

কৃষক খুর্শিদ উদ্দিনের বাগান থেকে উৎপাদনকৃত ড্রাগনের চারা এখন এলাকার প্রায় বাড়ির উঠানের পিলারে রোপণ করা অবস্থায় দেখা যাচ্ছে।

কৃষক খুর্শিদ উদ্দিন বলেন, আমি একজন সহায় সম্বলহীন গরীব চাষী। প্রথমে ড্রাগন চাষাবাদে সাহস করতে পারছিলাম না। পরে সহযোগিতার জন্য উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাইয়ের কাছে গেলে তিনি আমাকে ড্রাগন চাষের বিষয়ে বিস্তারিত বুঝিয়ে বলেন।

সোহাগ ভাইয়ের পরামর্শে আমি ড্রাগন চাষ করার সাহস ও শক্তি পেয়েছি। তার সহযোগিতায় আমি ড্রাগন চাষাবাদের ফলে প্রথম মৌসুমেই বিনিয়োগকৃত টাকা উর্পাজন করতে সক্ষম হয়েছি। এছাড়া পাশাপাশি সাথী ফসল/কার্টিং/ফল এগুলো বিক্রি করে আমার সংসার খরচ মেটানো সম্ভব হচ্ছে।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ড্রাগন একটি ক্যাকটাস গোত্রীয় ফল। ড্রাগন বিদেশী ফল হিসেবে বিবেচিত হলেও বর্তমানে বাংলাদেশে এর চাষাবাদ শুরু হয়েছে। বাণিজ্যিক ভাবে এ ফলটির প্রচুর সম্ভবনা রয়েছে এ অঞ্চলে। গাছের কার্টিং বা পরিপক্ষ শাখা রোপণের এক বছরের মধ্যে ফুল ফল ধরা শুরু করে।

মে মাস থেকে শুরু করে নভেম্বর মাস পর্যন্ত ক্রমান্বয়ে ফুল ফল ধরে। ফুল ফোটা থেকে শুরু করে ফল পাকতে ৩০-৩৫ দিন সময় লাগে। ফলটি অতিপুষ্টিকর ভিটামিনস ও মিনারেল্স সমৃদ্ধ। বিশেষ করে এই ফলে ভিটামিন বি, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও নিয়াসিনের পরিমাণ খুব বেশি রয়েছে।

ফল সুস্বাদু যথেষ্ট মিষ্টি হলেও ডায়বেটিস রোগিদের জন্য আহার উপযোগী। এ ফল অন্য খাবার হজমে সহায়তা করে, দেহের কমীনয়তা আনয়ন ও সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে অ্যালোভেরার মত কার্যকর।

ড্রাগন ফলের তৈরি জুস অত্যান্ত শীতল ও তৃপ্তি দায়ক। সালাত হিসেবেও এ ফলের জুড়ি নেই। কচি ফল তরকারী হিসেবে খাওয়া যায়। এ ফল দিয়ে জ্যাম জেলি ইত্যাদি তৈরি করা যায়। শুকিয়ে বা প্রক্রিয়া জাত করে অসময়ে খাওয়া যায়। এমনকি রাতে আলো জ্বালিয়ে দিনের দৈর্ঘ্যের পরিমাণ বৃদ্ধি করে সারা বছর ফল ধরানো যায়।

পর্যাপ্ত রৌদ্র পাওয়া যায় এমন জায়গা ও দোঁআশ মাটি এ ফল চাষের জন্য উপযুক্ত এ বিবেচনায় বাংলাদেশে ফলটি চাষের প্রচুর সম্ভবনা রয়েছে। কৃষি বিভাগ এ ফলটির চাষ সম্প্রসারণে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানা যায়।

উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ বলেন, সন্ধ্যার পর অন্ধকার নেমে আসলে ড্রাগন এর সাদা রঙের লম্বাকৃতির মনোমুগ্ধকর এ ফুলটি ফোটে। ফুলের অপূর্ব বাহারি রঙ ও সুমিষ্ট গন্ধ কেবল রাতের বেলায় পাওয়া যায়। সে জন্য এই এলাকার লোকজন সন্ধ্যার পর খুর্শিদ উদ্দিনের বাগানে ভিড় জমায়।

এটি উভয় লিঙ্গিক হলেও ফুলের গন্ধ ও মধু আহরণে আকৃষ্ট হয়ে রাতে বিচরণকারী অনেক পোকা এসে ফুলের পরাগায়ন ঘটায়। ভোর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ফুলটি তার সেই সৌন্দর্য্য হারিয়ে ফেলে পরবর্তীতে আস্তে আস্তে ফলে পরিণত হয়।

প্রতি কেজি ফলের বাজার মূল্য ৫শ’ থেকে ৬শ’ টাকা রয়েছে। একটি গাছ সঠিক পরিচর্যা করলে এক বছরের মধ্যেই ফল আসে এবং তা ১০/১২ বছর পর্যন্ত ফল দিয়ে থাকে।

এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ ড. গৌর গোবিন্দ দাশ বলেন, ড্রাগন খুবই পুষ্টি সমৃদ্ধ ফল। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় বাউ ড্রাগন ফল-১ (সাদা) ও বাউ ড্রাগন ফল-২ (লাল) নামে দুটি জাত অবমুক্ত করেছে।

সাদা শাঁস বিশিষ্ট ফলের আকার বড়, ফলন বেশি হয়। তবে তুলনা মূলক ভাবে মিষ্টি কম হয়। আর লাল শাঁসযুক্ত ফল মিষ্টি, দেখতে সুন্দর এবং তুলনা মূলক ভাবে ফলের আকার ছোট ও ফলন একটু কম হয়। কিন্তু লাল শাঁসযুক্ত ফলের চাহিদা বেশি থাকে।

বাণিজ্যিক ভাবে ফলটির ব্যাপক সম্ভবনা রয়েছে। এ ফলের সম্প্রসারণে কৃষকদের পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে উপজেলায় ৫টি ড্রাগন ফলের বাগান সৃজন করা হয়েছে। এছাড়াও প্রায় বাড়িতেই দু-একটা চারা লাগানো অবস্থায় দেখা যাচ্ছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ