কিশোরগঞ্জ নিউজ :: কিশোরগঞ্জকে জানার সুবর্ণ জানালা

পাকুন্দিয়ায় ফসল উৎপাদনে জনপ্রিয় হচ্ছে মোবাইল অ্যাপস


 রাজন সরকার, স্টাফ রিপোর্টার, পাকুন্দিয়া | ৩ নভেম্বর ২০১৮, শনিবার, ১২:৫২ | কৃষি 


পাকুন্দিয়া উপজেলার বিভিন্ন ফসল উৎপাদনে ও তার সঠিক চিকিৎসার জন্য ট্যাব ও মোবাইল ফোনের ব্যবহার দিন দিনই জনপ্রিয় হচ্ছে। মোবাইল অ্যাপস্ ব্যবহার করে কৃষক জমিতে বসেই পাচ্ছেন তার মাঠ ফসলের সমস্যার সমাধান। এসব কৃষি ভিত্তিক অ্যাপস্ ব্যবহারে কৃষকদের উৎসাহিত করতে কৃষি বিভাগও কাজ করে যাচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মাটি থেকে ফসল উৎপাদনের জন্য চাষাবাদ থেকে শুরু করে ফসল উত্তোলন পর্যন্ত রয়েছে কৃষি বিভাগের সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থাপনা। ফসল ভেদে রয়েছে চাষাবাদ, সার, সেচ ব্যবস্থাপনা, রোগ ও পোকামাকড় ব্যবস্থাপনা। প্রতিটি ক্ষেত্রেই কৃষককে সঠিক ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে সমাধান পূর্বক ফসল সংগ্রহ পর্যন্ত যেতে হয়।

ফসল ভেদে কোন জমিতে কি পরিমাণ সার ব্যবহার করতে হবে, জমিটিকে কতবার চাষ করতে হবে, বীজ বপনের জন্য কি পরিমাণ বীজ ব্যবহার ও রোপনের জন্য রোপন দুরত্ব এবং চারার সংখ্যা, রোগ ও পোকামাকড়ের ক্ষেত্রে কোন রোগের জন্য কি রোগ নাশক এবং কোন পোকামাকড়ের জন্য কি ধরনের কীট নাশক ব্যবহার করবে তা যেন কৃষক মাঠে বসে সমাধান পেতে পারে তার জন্য কৃষি বিভাগ কৃষকদের জন্য বের করেছে অনলাইন-অফলাইন কৃষি ভিত্তিক অ্যাপস্। যে সমস্ত অ্যাপস্ ব্যবহার করে কৃষক জমিতে বসে পেতে পারেন তার মাঠ ফসলের সমাধান।

জানা যায়, উপজেলার আঙ্গিয়াদী ব্লকের বাগান বাড়ির কৃষক রুকন উদ্দিন তাহার রোগাক্রান্ত শসা জমিতে অ্যাপস্ ব্যবহার করে রোগ নাশক প্রয়োগ করেন এবং সমাধান পান।

এ সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের আদিত্য পাশা বাগান বাড়ি সিআইজির মাসিক সভায় মোবাইলে কৃষি ভিত্তিক অ্যাপস্ এর ব্যবহার সম্পর্কে জানতে পারি। পরবর্তীতে আমার শসা জমিতে পাতায় বিভিন্ন রকম দাগ দেখতে পেলে আমাদের উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ ভাইকে ফোন দেই। তারপর তিনি জমিতে এসে কৃষকের জানালা অ্যাপস্ ব্যবহার করে ট্যাবের মধ্যে বিভিন্ন রকম দাগে আক্রান্ত পাতা দেখান যেই আক্রান্ত পাতাটি আমার শসা বাগানের আক্রান্ত পাতার সাথে মিলে যায় তার উপরে কিক করতেই চলে আসে সমাধান। সেই অনুযায়ী ব্যবস্থাপনা নিয়ে আমি আমার শসা বাগানের সমস্যার সমাধান পাই।

এ বিষয়ে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হামিমুল হক সোহাগ বলেন, ট্যাব বা মোবাইল ফোনে বিভিন্ন ধরনের কৃষি ভিত্তিক অ্যাপস্/ওয়েব ভিত্তিক সফ্টওয়ার যেমন, রাইস নলেজ ব্যাংক, কৃষকের জানালা, কৃষকের ডিজিটাল ঠিকানা, ডিজিটাল ক্রপ ক্যালেন্ডার, অনলাইন ফার্টিলাইজার রিকমেন্ডেশান ইত্যাদি ব্যবহার করে ফসলের মাঠে বসেই কৃষক তার মাঠ ফসলের করনীয় বিষয় সম্পর্কে জানতে পারবেন।

তিনি আরও বলেন, ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম ফেজ-II প্রজেক্ট (এনএটিপি-২) প্রকল্পের আওতায় প্রকল্প ভূক্ত উপজেলায় প্রত্যেক ইউনিয়নে একটি করে এবং ফিয়াক সেন্টার রয়েছে এমন ইউনিয়নে দুইটি করে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের ট্যাব দেওয়া হয়েছে। যার ফলে কৃষি ভিত্তিক অ্যাপস্ এর ব্যবহার কৃষকদের মাঝে দ্রুত সম্প্রসারিত হচ্ছে।



[মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ি নয়। মতামত একান্তই পাঠকের নিজস্ব। এর সকল দায়ভার বর্তায় মতামত প্রদানকারীর]

এ বিভাগের আরও খবর



















সেগুনবাগিচা, গৌরাঙ্গবাজার, কিশোরগঞ্জ-২৩০০
মোবাইল:০ ১৮১৯ ৮৯১০৮৮, ০১৮৪১ ৮১৫৫০০
kishoreganjnews247@gmails.com
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি: সাইফুল হক মোল্লা দুলু
প্রধান সম্পাদক: আশরাফুল ইসলাম
সম্পাদক: সিম্মী আহাম্মেদ